পাতা:প্রভাতকুমার মুখোপাধ্যায়ের গল্পসমগ্র.djvu/২৬৬

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


হইতে যাড়ী ফিরিলেন। বস্ত্র-পরিবত্তন করিতেছেন, এমন সময় মনোরমা ঘাম স্ত কলেবরে আসিয়া প্রবেশ করিল। ইন্দনবাব বললেন, “কি গো. কোথায় ছলে ?” “রান্না করছিলাম।” “কেন, মোক্ষদা “ মনোরমা মুখখানি গম্ভীর করিয়া কিয়ৎক্ষণ নীরব রহিল। তার পর বলিল, “ওর হাতে আমাদের আর খাওয়া চলবে না।” “কেন, কি হয়েছে : মনোরমা থামিয়া থামিয়া বলিল, ও—খারাপ—মেয়ে !" BBBBB BBBBB BBB BBBBBS BB S BB BB B BB BBBS BB BBB তুমি ?” “আমি নিজের চক্ষে দেখেছি। ভাত চড়িয়ে দিয়ে এসেছি, এখনও ফুটতে দেরী আছে। সব কথা বলি, শোন। —বলিয়া মনোরম একখানা চেয়ারে বসিল । ইন্দবাব শঙ্কিত-নেত্ৰে সন্ত্রীর পালে চাহিয়া বললেন, “কি বল দেখি !" তখন মনোরম বলিতে লাগিল, “তুমি আপিস যাবার সময়, শরৎকে পাঠিয়ে দিতে তোমায় বললাম ত সে আটটার সময় আমায় প্রণাম করতে এল । মোক্ষদা তখন সমানের ঘরে, আমি এই ঘরে বসে তেল মাখছি। শরৎ এসে আমার কাছে বসল। সে থাকতে থাকতেই মোক্ষদা সনানের ঘর থেকে বেরলে, বেরিয়ে ওদিকে চলে গৈল । তার পর শরৎ আমায় প্রণাম করে বিদায় নিলে, আমি সনানের ঘরে ঢুকে দোর বন্ধ করলাম। সনান করতে গিয়ে দেখি, আমার গামছাখানা নেই। আবার বেরিয়ে গামছা খজতে খুজতে রান্নাঘরের বাইরে দেখি, শরৎ আর মোক্ষদা দুজনে জড়াজড়ি করে দাঁড়িয়ে রয়েছে, মোক্ষদার মাথা শরতের কাঁধের উপর, দজনে একবারে জ্ঞানশনা। তার পর মোক্ষদার মাথাটা শরৎ তুলে, তার মুখে চমো খেয়ে, চোখ মুছতে মুছতে পিছনের সিড়ি দিয়ে নেমে গেল। মনে করেছিল, গিন্নীমাগী সনানের ঘরে বন্ধ, কেউ আমাদের দেখতে পাবে না ?” “তুমি যে দাঁড়িয়ে অস্থ, তা শরৎ দেখলে ?” יין זה" “মোক্ষদা আমায় দেখলে বইকি—একট পরেই। “তুমি কি বললে ?” “রাগে আমার ব্রহ্মাণ্ড জলে যাচ্ছিল, আমি দাঁড়িয়ে থর্থর করে কপিছিলাম। মথ দিয়ে আমার কথা বেরচ্ছিল না। কোনও রকমে শুধ বললাম, মোক্ষদা তুমি আর রান্নাঘরে চকো না।—বলেই আমি গামছাখনা নিয়ে স্নানের ঘরে গেলাম। প্রায় পনেরো মিনিট স্নান করতে পারলাম না, কাঠের মাত্তির মত বসে রইলাম। তার পর স্থান সেরে মাথা মুছতে মছতে ও ধরে গিয়ে দেখি, কয়েদীদের নিয়ে যাবার জন্যে জেলের গাড়ী ফটকে দাঁড়িয়ে আছে, আর মোক্ষদা জানালার গরাদে ধরে দাঁড়িয়ে হাঁ করে ফটকের পানে চেয়ে আছে। আমি যে ঢুকেছি, তা বিবির হস পর্যন্ত নেই।” ইন্দবাব বলিলেন, “অ্যাঁ, তুমি দেখে ফেলেছ জেনেও ই পরেও লজ-সরম একেবারে বিসউজান ?” মনোরমা বলিল ওগো, বুঝছ না, ধরা পড়ে দকাণ-কাটা হয়ে গেল কিনা ! এককাণ-কাটা যায় গাঁয়ের বার দিয়ে দকাণ-কাটা যায় গাঁয়ের ভিতর দিয়ে।” “কোথা সে এখন ? পালিয়েছে বোধ হয় ?” “পালবে কেন ? নিজের বিছানায় শয়ে, বিরহিণী বোধ হয় বিরহের কান্না 5Hor