পাতা:প্রভাতকুমার মুখোপাধ্যায়ের গল্পসমগ্র.djvu/২৭

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


পত্র পাঠ করিতেছেন। রামসুন্দর তাঁহার কাছের চেয়ারখানিতে উপবেশন করিল। জামাতাকে দেখিয়া নিমাইবাব সংবাদপত্রখানি টেবিলে রাখিয়া দিলে । নেরুলগন চশ মাটি ঠিক করিয়া, চরটটি দন্তে দংশন করিয়া, ইংরাজি ভাষায় বলিলন—“তুমি বিলাভ যাইবার ইচ্ছা করিয়াছ ? বেশ ত—অতি উত্তম কথা।” রামসন্দের ইহার মম ব:ঝিতে না পারিয়া বোকার মত চাহিয়া রহিল। নিমাইবাব স্বীয় জামাতার ভাবী পদগৌরব কল্পনায় সচিত করিয়া হযে়ৎফুল্ল হইয়া উঠিলেন, এবং সেই উচ্ছাসে কেবল ইংরাজি কথাই বলিতে লাগিলেন। আমরা তাহার বংগানুবাদগুলিই নিনে প্রকাশ করিলাম। জামাতাকে নিরক্তর দেখিয়া নিমাইবাব বললেন-—“আমার কাছে আর লুকাও কেন ? আমি সকলই জানিতে পারিয়াছি। তুমি যে বিলাত যাইবার কলপনা করিয়াছ, তাহাতে আমার সম্পণে সহানুভূতি আছে। তুমি খরচের কি বন্দোবস্ত করিয়াছ জানি না, হয় ত বিলাতে পেশছিয়া পিতাকে সংবাদ দিলে, তিনি খরচ না দিয়া থাকিতে পারবেন না, ইহাই ভাবিয়াছ। এইরুপ কেহ কেহ করিয়াছে শনিতে পাই। তোমার পিতা দায়ে পড়িয়া তোমাকে খরচ যোগাইবেন সত্য, কিন্তু তোমার আচরণে তিনি দুঃখিত ও রন্ট হইবেন। তাহাতে কায নাই। আমি তোমার সমস্ত খরচের ভার লইলাম।” রামসুন্দর এ সমস্ত কথা শুনিয়া অবাক হইয়া রহিল। আকাশ পাতাল ভাবিয়া কিছই ঠিক করিতে পারল না। প্রথমে মনে হইয়াছিল, বশর বঝি পরিহাস করিতেছেন। কিন্তু বিশেষ মনোযোগ দিয়া দেখিয়া তাঁহার মাথে কথাবাত্তার ভঙ্গিতে সে ভাবের কণিকামাত্রও লক্ষিত হইল না। উত্তরে সে যে কি বলিবে কিছুই ঠিক করতে পারিল না। নিমাইবাব উত্তরের অপেক্ষা না করিয়া আবার বলিতে লাগিলেন— “তোমরা নব্যসম্প্রদায়েরা শবশরের টাকা লইতে নিতান্ত নারাজ, আমি তাহা জানি। আমাদের সময়ে এরপ ছিল না। আমার বশর মহাশয়ই ত আমাকে খাওয়াইয়া পরাইয়া, লেখা পড়া শিখাইয়া, চাকরি করিয়া দিয়াছিলেন, তিনি তাহা না করিলে আমি এতদিন কোথায় থাকিতাম ? আমার একটিমাত্র কন্যা। আমার যাহা কিছ আছে তাহা ভবিষ্যতে তোমার হইবে। তুমি তোমার নিজের টাকায় বিলতের ব্যয় নিববাহ কর। আজকাল যে দিন সময় পড়িয়াছে, তাহতে এখানে থাকিয়া আর কিছই হয় না। সুতরাং মনে কোনও প্রকার দ্বিভাব করিও না।” - তখন রামসন্দের মনে করিল, “বাং, এ ত দেখিতেছি ব্যাপার মন্দ নয়। শবশরের অথে যদি একটা কেট-বিষ্ণ’ হইয়া আসিতে পারা যায়, তবে সে সমযোগ ছাড়ে এমন হাসন্তমখ কে আছে ? প্রকাশ্যে সাহস করিয়া গভীরভাবে বলিল-আমি বিলত যাইব আপনি কেমন করিয়া জানিলেন ?” নিমাইবাব পকেট হইতে টেলিগ্রাম দইখানি বাহির কারখা, হাসিতে হাসিতে রামসুন্দরের হাতে দিলেন। রামসুন্দর সে দুইটি আদ্যোপান্ত নিরীক্ষণ করিয়া ভাবিল— "আর কিছুই নয়, বাবা কোনও কার্য উপলক্ষে কলিকাতায় আসিয়া আমাকে দেখিতে পান নাই। অনুসন্ধান করিয়াছেন, কেহ তাঁহাকে মিথ্যা কথা বলিয়া একটা মজা দেখিতেছে। বাল্যকাল হইতে আমার বিলাত যাইবার ঝোঁক, ইহা তিনি অবগত আছেন. এইজন্য এ কথা সহজেই বিশ্ববাস হইয়াছে। যাহা হউক, তিনি নিশ্চয়ই আমাকে ধরিতে আসিবেন। সতরাং আর কাল-বিলম্ব করা উচিত নহে।” স্বশরকে বলিল—“বাবা ইহাতে লগ করবেন, মা কাঁদিবেন, এমন কায করা কি আমার উচিত ?” নিমাইবাব একটা যেন উত্তেজিত সবরে বলিলেন--“কোন পিতা কোন সন্তানের উপর BB BB BBB S SBB BB B BBBBB BBBB BBBS BBB BB BBB আসিলে তাঁহাকে আমি ভাল করিয়া বঝাইয়া বলিব। বলিব আমিই তোমাকে পাঠাই R Y