পাতা:প্রভাতকুমার মুখোপাধ্যায়ের গল্পসমগ্র.djvu/২৯৯

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


মান। মণিময় সিংহাসনের উপর, হীরকের মুকুট পরিয়া, মোতির হার গলায় দিয়া, মালেক সাদেক বসিয়া আছেন। মুবারক রাজপত্রসহ নিকটে গিয়া সেলাম করিল। মালেক সাদেক দেখিবামাত্র তাহাকে চিনিতে পারিয়া বলিলেন—“কি মবোরক ? তুমি কবে আসিলে ?” মনবারক নত হইয়া বলিল—“শাহানশাহ ! এ দাস পারস্যরাজ্য হইতে গত রাত্রিতে পেপছিয়াছে।” মালেক সাদেক কহিলেন—"বশ। তোমার সহিত এই যুবকটি কে ?” মবোরক উত্তর করিল—“মহারাজ ! ইহাকে চিনিতে পারিলেন না ? আপনি চিনিবেনই বা কি করিয়া, অতি বাল্যকালে ইহাকে দেখিয়াছিলেন কিনা। আপনার বন্ধ পারস্যের সবগীয় বাদশাহের ইনি পত্র।” অতঃপর মুবারক এই কয়েক বৎসরের ঘটনা সমস্তই আন পৰিবাক নিবেদন করিল। এক কলসী মোহরও তাঁহাকে উপহার দিল । শেষে বলিল—“রাজপত্রের বড়ই বিপদ । এ বিপদে আপনি রক্ষা না করিলে আর কে করিবে ? আপনি যদি কৃপা করিয়া শেষ বানরটি দেন, তাহা হইলে ইহার আর কোনই কট থাকে না। আপনার বন্ধরে রাজ্য ও বংশ সমস্তই বজায় থাকে।” সকল কথা শুনিয়া মালেক সাদেক লেন—“আচ্ছা, সে উত্তম কথা । এ যখন এতদর আসিয়া আমার শরণাপন্ন হইয়াছে, তখন অবশ্যই আমি ইহাকে রক্ষা করব । কিন্তু উহাকে একট পরীক্ষা করিতে চাই। আমার একটি কাৰ্য সম্পন্ন করিয়া দিতে হইবে।” ইহা শনিয়া রাজপত্র করযোড়ে কহিলেন—“যাহা হুকুম হয়, এ অধীন তাহা যথাসাধ্য পালন করিবে।” মালেক সাদেক বলিলেন—“কাৰ্য্যটি বড়ই কঠিন। পারবে কি ? যদি কাষাটি করিতে পার, তবে তোমার পিতাকে আমি যে পরিমাণ অনুগ্রহ করিয়াছিলাম, তাহার অধিক অনুগ্রহ তোমাকে করিব। যাহা চাহিবে তাহাই দিব। কিন্তু যদি কাৰ্য্যনাশ কর, তাহা হইলে আমার হতে তোমার বিপদের সীমা থাকিবে না।” রাজপত্র বলিলেন–“কাৰ্য্যটি যদি আমার শক্তির মধ্যে হয়, তবে অবশ্যই তাহা আমি প্রাণপণে সম্পন্ন করব। কাষটি কি ?” ইহা শনিয়া মালেক সাদেক নিজ বস্ত্রমধ্য হইতে একখানি চিত্র বাহির করিলেন। রাজপত্রের হস্তে দিয়া বলিলেন—“এই মনুষ্যকন্যার সন্ধান করিয়া, যদি তাহাক আমার কাছে আনিতে পার, আমি তোমার সহিত চিরদিনের জন্য মিত্রতাপাশে বন্ধ থাকব। আর যদি না আনিতে পার, কিবা কোনওরূপ অন্যায় কর, তবে তুমি অত্যন্ত বিপদে পতিত হইবে। দেখ এখনও সময় আছে। যদি কাৰ্য্যটি সসম্পন্ন করিতে পার, তবেই ভার গ্রহণ কর। নতুবা এখনও নিবত্ত হও।” রাজপত্র দেখিলেন ছবিখানি ত্রয়োদশ অথবা চতুদশবষীয়া একটি পরমাসন্দরী রমণীর মত্তি। বলিলেন—"প্ৰভু ! কেন পারিব না? আমি এই রমণীকে পৃথিবী ভ্রমণ করিয়া অন্বেষণ করিব এবং যে প্রকারে পারি আপনার নিকট আনিয়া দিব।” ইহা শনিয়া মালেক সাদেক অত্যন্ত প্রীতিলাভ করিলেন। ছবিখানি দিয়া, বিবিধ ধনরত্ন ও পরিচ্ছদ উপহার দিয়া, রাজকুমারকে বিদায় দিলেন। তৃতীয় পরিচ্ছেদ মালেক সাদেকের নিকট বিদায় লইয়া, শাহজাদা ও মবোরক সেই মনুষ্যকন্যার উদ্দেশে বাহির হইলেন। দেশে দেশে, নগরে নগরে, গ্রামে গ্রামে, পৰ্ব্বতে পবর্তে ও জঙ্গলে জঙ্গলে, বহল অনুসন্ধান করিলেন, কিন্তু কোথাও মনষকন্যার সংবাদ পাইলুেন না। ੰ সেই মনুষ্যকন্যার সংবাদ .X సెb