পাতা:প্রভাতকুমার মুখোপাধ্যায়ের গল্পসমগ্র.djvu/৩৫২

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


লীচে নামিয়া গেলাম। সারদকে এ শুভ সংবাদ জ্ঞাত করাতে সে আনন্দে অধীর হইল। জিজ্ঞাসা করিলাম, “তোমার বাসা কোথায় ?” “আমার এখানে কেউ নেই।” “কোথায় থাকবে ?” “এখানে আমাকে একটা স্থান দিতে পারেন না দয়া করে ? যদি এত দয়া করলেন" বলিয়া চপ করিল। আমি বললাম, “আমার কম চারিদের একটা মেসের মত আছে। সেখানেই থাকতে পার।” সারদা বলিল, “সে ত বেশ হবে। কাল রাত্রে আমি সেইখানেই খেয়েছিলাম কিনা” —বলিয়া সারদা কাসিতে আরম্ভ করিল। কাসি থামিলে বলিল, “আজ একবার যদি অনুমতি করেন, তবে মীর শ্রীচরণ দর্শন করে।” সন্ত্রীর কাছে তাহাকে লইয়া গেলাম। সারদা তাঁহাকে প্রণাম করল । আর পল্লী তাহার মুখপানে সকরণ দটিতে চাহিয়া রহিলেন। টেবিলে গলাসে জল ছিল। সারদা তাহাই একট হাতে লইয়া মাটীতে বসিয়া, পাদোদক খাইল। পান করিয়া অবশিষ্ট অংশ মাথায় মাছিয়া ফেলিল। এইরুপ দই তিন দিন করিল। তাহার রোগের কিছমাত্র উপশম দেখা গেল না। আমাকে সারদা বলিল, “মা কি ভাল মনে আমায় পাদোদক দিচ্ছেন না ? এবার সারছে না কেন ?”—বলিতে বলিতে তাহার চক্ষ দিয়া টস টস করিয়া জল পড়িতে লাগিল। সেদিন এই কথা আমার স্ত্রীকে বলিলাম। তিনি বলিলেন, “ওষুধ খাবে না বিষধ খাবে না, পাদোকজল খেয়ে মানুষের রোগ ভাল হয় ? যত সব অনাসটি আবদার।" আমি বলিলাম, “দেখ, ইচ্ছাশক্তিতে বোধ হয় কিছু কায হয় । তুমি পাদোকজল দেবার সময় মনে মনে খুব আগ্রহের সহিত ভেবো, এই জলে এর রোগ ভাল হবে।” সত্ৰী হাসিয়া বলিলেন, “দিনকের দিন যেন সং হচ্চ। বিলিতি ময়রপুচ্ছ ক্ৰমশঃই তোমার গা থেকে খসে খসে পড়ছে।” আমি কপট অভিমান সহকারে বলিলাম, “অর্থাৎ আমাকে প্রকারান্তরে দাঁড়কাক বলা হল। এতই যদি কালো দেখছিলে, তবে বিয়ে করলে কেন ? ম্যাজিস্ট্রেট সাহেব--” আমার স্ত্রী এবার আর চাঁটলেন না। বলিলেন, “হ্যাঁ গো হ্যাঁ, সবাই তোমার মত কালো হলে জগৎ আলো হয়ে যেত f" কথাটা বোধ হয় মিথ্যা নয়। আমি যে একজন স্পরযে, তাহ বিলাতের অনেক বিবিই স্বীকার করিয়াছিলেন। li ott প্রতিদিন সারদার শারীরিক অবস্থার উন্নতি দেখা যাইতে লাগিল। তাহার কাসি প্রায় সারিয়া উঠিল, মাখের ফ্যাকাসে রঙ কালো হইতে লাগিল। চোখের কোলে মাংস জমিতে লাগিল। দেখিয়া আমি আহমাদিত হইলাম। আমার সাঁও ওtহার প্রতি প্রসন্ন হইলেন। তিনি প্রায়ই সারদাকে ডাকাইয়া ফায়ফরমাস করিতে লাগিলেন। কর্মচারিদিগকে বিশ্ববাস করিয়া যে সকল দ্রব্যাদি ক্ৰয় করিতে না পাঠাইতে পারিতেন, তাহা সারদকে ভার দিতেন। ارد ২৭শে বৈশাখ একটি বিবাহ উপলক্ষ্যে বন্ধগহে নিমন্ত্রণ ছিল। সেখানে অনেক রাত্রি অবধি থাকিবার কথা ছিল। বিবাহন্তে থিয়েটারের অভিনয় হইবে। বাড়ী ফিরিতে অন্ততঃ রাত্রি দইটা বাজিবে, ইহা আমাদের চাকরবাকর কম চারদিগকে বলিয়াছিলাম। ১১৬