পাতা:প্রভাতকুমার মুখোপাধ্যায়ের গল্পসমগ্র.djvu/৩৭৪

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


আজ সন্ধ্যায় ডাক্তারবাবদের বাড়ী নিমন্ত্রণ খাইয়া, কল্য প্রভাতের গাড়ীতে তাহারা অঙ্গের যাত্রা কাঁরবে। সমস্ত ঠিকঠাক। - সন্ধ্যার পর ডাক্তারবাবর বৈঠকখানায় বসিয়া অনাথ হেমন্তকুমারের নিকট হইতে এই পর পাইল — ব্ৰহ্ম কৃপাহি কেবলং কলিকাতা । ২৫ জ্যৈষ্ঠ। মঙ্গলবার। প্রিয় ভ্রাতঃ, ভগিনী মন্দাকিনীর অসুস্থতার সংবাদে অত্যন্ত দঃখিত হইলাম। ঈশ্বর শীঘ্র তাঁহার আরোগবিধান করুন। আজ তোমায় একটি দারণ দঃসংবাদ দিব, প্রস্তুত হও। তুমি বলিয়াছিলে, তোমার দঢ় বিশ্বাস, নগেন্দ্রবালা তোমাকে ভালবাসেন। আমারও বিশ্বাস তাহাই ছিল; কিন্তু কল্য সন্ধ্যাকালে আমার সে ধারণা চণ হইয়াছে। শুনিলাম, শরতের সঙ্গে নগেন্দ্রবালার বিবাহ ন্থির। আরও শনিলাম, দই বৎসর হইতে তাঁহারা পরপরের প্রণয়ে আবদ্ধ। সতরাং মগেন্দ্রবালার ব্যবহারে তুমি যে অনমান করিয়াছিলে তোমার প্রতি তিনি প্রণয়বতী, তাহা তোমার ভ্রান্তি মাত্র। এখন তুমি কি করিৰে ? এ দুঃসহ শোক কেমন করিয়া বহন করিবে ? তোমার আর একটা ভুল হইয়াছে। হিন্দমতে যে বিবাহ সম্পন্ন হইয়াছে, নতন ব্রাহ্মবিবাহ আইনের সঙ্গে তাহার কোনও সম্পক নাই। সুতরাং তোমরা উভয়ে ব্রাহ্ম হইলেও সে সম্মবন্ধ ছিন্ন করিবার পথ বন্ধ। - তুমি কি কলিকাতায় আসিবে ? চারি পাঁচ দিনের মধ্যেও যদি ভগিনী আরোগ্য লাভ করেন, এখানে আসিতে পার, তাহা হইলেও পর্বেকথিত রাজবাড়ীর সেই কাৰ্য্যটি হস্তান্তরিত হইবে না; কিন্তু আমার পরামর্শ, ভগিনীকে গহে পাঠাইয়া দিয়া তুমি কিয়দিন হিমালয়ের কোনও নিভৃত প্রদেশে গমন করতঃ তপস্যা ও উপাসনার দ্বারায় চিত্তস্থির ও আত্মশান্তিবিধান করিবে। ভবদীয় শ্ৰীহেমন্তকুমার সিংহ রাত্রি নয়টার পর ডাক্তারবাবর বাড়ী হইতে ফিরিয়া অনাথ সন্ত্রীকে পত্রখানি দেখাইল । মন্দা পড়িয়া হাসিয়া বলিল, “তবে আর নগেন্দুবালার উপর আমার রাগ নেই। মঙ্গেরে মা গিয়ে কলকাতাতেই চল, নগেন্দুবালার বিয়েটা দেখতে হবে।” অনাথ বলিল, “তাই চল। মঙ্গেরে যাবার আর একটা উদ্দেশ্য ছিল, তামায় ভুলে যেতে নগেন্দুবালাকে অবসর দেওয়া।” শুনিয়া মন্দাকিনী ভারি অভিমানের ভান করিল। বলিল, “তাই তখন মনের কথা -খলে বললেই ত হত ! বলা হল তোমার শরীর সারাবার জন্যে পশ্চিম যাচ্ছি।” বাহিরে অন্ধকার বকুলগাছে একটা কোকিল বসিয়া ছিল, সে হয়ত মানবের ভাষা শখিতে পারে। বঝি মন্দাকিনীর এ ছলনাময় মানকথা শুনিয়া সে ভারি আমোদ পাইল, ভাই মহেমেনহয় ঝঙ্কার দিতে আরম্ভ করিল। অনাথ সন্ত্রীকে বক্ষের নিকট টানিয়া লইয়া, ভাৰায় মুখচন্বন করিয়া বলিল, “না গো, না--তা নয়," বৈশাখ, ১৩০৭ ] రీ