পাতা:প্রভাতকুমার মুখোপাধ্যায়ের গল্পসমগ্র.djvu/৩৭৬

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


নেমন্তয় রইল।” যদবাব লোকটি বড় ভালমানুষ। একটা ঘরান কথা হঠাৎ কঝিতে পারেন না। বালকের মত বিস্মিত হইয়া জিজ্ঞাসা করেন ‘কি ? কি ?’ বলিয়া দিলে, তখন বালকেরই মত হা হা করিয়া হাসিয়া আকুল হন। নিমন্ত্রণ করায় বললেন, "কেন বলন দেখি ? হঠাৎ নেমন্তন করে বসলেন যে 2" কুমদবাব বলিলেন, “আধসের তিনপোয়া মাংস খাই শুনে নিরাশ হলেন, আপনি কত খান সেইটে আমি দেখতে চাই।” 3. যদবার হা হা করিয়া হাসিয়া উঠিলেন। এই সময় ভূত্য চা আনিল। করি। এখন আর বেশী পারিনে; পর্বে যখন নীচে রাবলীপডিতে ছিলাম, একবার সখ হয়েছিল ভেড়ার মাথা খাবার। প্রত্যহ একটা করে এত বড় ভেড়ার মাথা ক্ৰমাগত চল্লিশ দিন খেলাম। চল্লিশ দিনের পর, চব্বিতে গা ফাটতে লাগল। একজন ডাক্তার ছিল, সে কারণ করলে। বললে গায়ে বেশী চব্বি হলে হৃদরোগে মারা পড়বে।” কুমন্দনাথ শনিয়া অত্যন্ত আমোদ অনুভব করিলেন। বলিলেন, “কাল আপনার জন্যে একটা ভেড়ার মাথাও প্রস্তুত থাকবে।” দইজনে আরাম করিয়া উষ্ণ চা পান করিতে লাগিলেন। যদবাব জিজ্ঞাসা করিলেন, “খুব বেড়াচ্চেন ত?” “হ্যাঁ—খব নয়; তবে বেড়াচ্চিবইকি। কাল জ্যাকো প্রদক্ষিণ করে এসেছি।” “আর একটু সবল হোন, তারপর আমি আপনাকে নিয়ে বেড়াব। এখন আপনি পারবেন না আমার সঙ্গে, হাঁপিয়ে পড়বেন ।” প্রথম পাত্র নিঃশেষ করিয়া যদবাব দ্বিতীর পাত্র চা গ্রহণ করিলেন। এতক্ষণ ঘরে বাতি জলিতেছিল, বাহিরে আলো হইয়াছে দেখিয়া ভূত্য সাসির উপর হইতে পদা সরাইয়া দিল, বাতি নিভাইল। দ্বিতীয় পাত্র নিঃশেষ করিয়া যদবাদ বিদায় চাহিলেন। কুমন্দবাক বলিলেন, "বসন না, অত তাড়াতাড়ি কি ?” “একটা কায আছে।” “যোগ-টোগ নাকি ?” যদবাব যে গোপনে যোগ অভ্যাস করিয়া থাকেন, এ কথা সিমলার আবালবদ্ধ সকল বাঙ্গালীই অবগত আছে। সলজ হাসি হাসিয়া যদবাব বলিলেন, “সে সব হয়েটয়ে গেছে।” "আজ একটু অন্য কায আছে। সকাল সকাল খেয়ে, একবার তারাদেবী যেতে হবে। মেয়েরা অনেক দিন থেকে ধরেছে।” . “তারাদেবী যাবেন ? তা আমায় বলেননি কেন ? আমার স্ত্রীও যে এসে অবধি একদিন যাবার জন্যে ব্যস্ত হয়েছেন। কতদর বলন দেখি ?" "এই ছ সাত মাইল।” “নীচে অবধি যায়, টিবেবতে অবিশ্যি কি করে উঠবে ?” "কখন বেরলে সন্ধের মধ্যে ফেরা যায় ?” “বারোটার সময় বেরলেই যথেষ্ট।” সমস্ত পরামর্শ ঠিক হইল। যদবাব বললেন—আরও সকালে—১১টার সময়— শহির হওয়া ভাল। আজ সৌভাগ্যক্রমে আকাশটাও বেশ পরিকার আছে। বিগত তুষারপাতের পর পাঁচ দিন অতীত হইয়াছে—তুষার গলিয়া শুকাইয়া পথও বোধ হয় পাকার হইয়া গিয়া থাকিবে । S'එම්