পাতা:প্রভাতকুমার মুখোপাধ্যায়ের গল্পসমগ্র.djvu/৩৮৫

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


বলিলেন, “মা, একদিনেই তোমার উপর মায়া জন্মে গেছে। যেতে কট হচ্চে।” মালতীরও সেইরূপ বোধ হইতেছিল। বিদেশে কতদিন পরে একজন রমণীর স্নেহব্যবহার পাইয়া তার যেন পরমাত্মীয় লাভ লাভ হইয়াছে মনে হইতেছিল। ইনি চলিয়া গেলে আবার সেই সারাদিন ধরিয়া একাকী নিঃসঙ্গ জীবন যাপন করিতে হইবে। তাহারও বড় কট হইতে লাগিল। মালতী বলিল, “আজ নেই বা গেলেন । দুদিন থাকুন না। এ দুদিন আপনার সঙ্গে কথা কয়ে বেঁচেছি। একলাটি প্রাণ হাঁপিয়ে ওঠে। এক এক সময় কান্না পায় ।” কাশীবাসিনী বলিলেন, “আমি থেকে যেতে পারি, কিন্তু বাছা তোমার স্বামী কিছ: ভবেন যদি ?” মালতী মাখে বলিল, “ভাববেন আবার কি ?”—কিন্তু মনটি তাহার সংকুচিত হইয়া পড়িল। সত্যই ত, সবামী যে ইহার উপর প্রসন্ন নহেন। কুলিটা আসিলে অবশ্য তাহাকে ফিরাইয়া দেওয়া যাইতে পারে, কিন্তু সবামী পাছে বেশী রাগ করেন ? তাহার পর ভবিল—তা করেন, করিবেন। এমন কিছর গহির্গত কায্য করা হইতেছে না। আমি এই একলাটি এই সংসার ঘাডে করিয়া মরিতেছি, কেহ আহা বলিবার নাই, কথা কহিবার একটা মানুষ নাই—আমি একজন লোককে দুইদিন রাখিতে পারি না ? —স্বামী আসিয়া অসন্তোষ প্রকাশ করিলে মালতী কি কি বলিবে, কি রকম করিয়া রাগ করিবে সব মনে মনে গড়িয়া রাখতে লাগিল। - দইটা বাজিল, কুলি আসিল না। তিনটা বাজিয়া গেল, তথাপি কুলির দেখা নাই। মালতী হফি ছাড়িয়া বাঁচিল—তখন আবার মনের সুখে কাশীবাসিনীর সঙ্গে গল্প আরম্ভ করিয়া দিল । বৈকালে মালতী জলখাবার কিনিতে দাইকে বাজারে পাঠাতেছিল, কাশীবাসিনী বলিলেন, "ছাইপাঁশ বাজারের জলখাবারগুলো কেন খাও তোমরা z ঘরে খাবার তৈরি করতে জান না ?” . মালতী বলিল, “কে অত হাঙ্গামা করে বাপ!" “হাংগামা আবার কি ? আমি তোমায় আজ দেখিয়ে দিচ্চি।”—বলিয়া তিনি দাইকে অপেক্ষা করিতে বলিলেন । নিজের বাক্স হইতে একটি টাকা বাহির করিয়া সজি, চিনি, ময়দা প্রভৃতি কিছু কিছ আনিবার আদেশ করিলেন। - মালতী বলিল, “ও কি কথা । আপনি টাকা দিচ্ছেন কেন ? আমি টাকা দিই।” দাইকে বলিল, “টাকা ফিরিয়ে দে দাই ।” দাই টাকাটি কাশীবাসিনীর হাতে দিতে গেল—তিনি কিছুতেই লইবেন না। বলিলেন, "আমি তোমাদের জন্যে একটা টাকা খরচ করলামই বা ; তোমরা আমায় কত যত্ন আদর করছ " - মালতী বলিল, “ভারি অাদর ভারি যত্ন করেছি আপনাকে কিনা! আদর যত্ন করতে झाीन किना ! लिन प्लेकाप्ने झाथइन।” - তিনি বলিলেন, “দেখ বাছা, তা হলে কিন্তু আজই রাত্তির একটার গাড়ীতে চলে যাব।” তখন মালতী ক্ষান্ত হইল। বলিল, “কর বাছা তোমার যা ইচ্ছে তাই । কিন্তু অন্যায় হল বলে রাখছি।” - দাই টাকা লইযা বাজারে গেল। r ህ Ö ] আজ গিরীন্দ্র বাড়ী আসিল অনেক বিলম্বে; রাত্রি প্রায় তখন আটটা। আসিয়া কাশীবাসিনুকে বলিল, “আমার বড় অপরাধ হয়ে গেছে। আপিসে কাযের ভিড়ে আপনাকে নিতে কুলি পাঠাতে একেবারেই মনে ছিল না। দ্য দিন যখন কষ্ট পেলেন, -- $8२