পাতা:প্রভাতকুমার মুখোপাধ্যায়ের গল্পসমগ্র.djvu/৩৯৯

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


মৃগডালে উঠিয়া তাহাকে ছানাসদ্ধ পাখীর বাসা পাড়িয়া দিয়াছে, ঘোড়া সাজিয়া পঠে তাহাকে বহন করিয়াছে, কিন্তু তখন ত সে কোনওরূপ চিত্তচাঞ্চল্য অনুভব করে নাই। কে প্রচ্ছন্ন প্রবাহের অস্তিত্ব নিজেও অবগত ছিল না। মাণিকলাল নিজের কাছে নিজে ধরা পড়িয়াছে সংপ্রতি মাত্র। সেদিন মাণিক কুসমদের বাগানে, পেয়ারা পাড়িতে গাছে উঠিয়াছিল। কুসুম-মাতার সঙ্গে গঙ্গাস্নান করিয়া বাড়ী ফিরিতেছে। কুসুমের পরিহিত বসনখানি জলসিক্ত, পাঠলম্বিত ঘন কৃষ্ণ কেশরাজির প্রান্ত দিয়া ফোঁটা ফোঁটা জল পড়িতেছে, আদ্র মুখখানি প্রভাতের সোণালি রৌদ্র লাগিয়া প্রতিমার মত চিক চিক করিতেছে। দেখিয়া, মাণিক হৃদয় হারাইল। 3---- ইহারা চলিয়া গেলে পর, মাণিক তাহার অন্তরে যেন এক অপব্ব আলোকের রশিম প্রতিভাত দেখিল। সে আলোক তাহার মনোদেহের প্রতি পরমাণটিকে যেন বেড়িয়া নত্য করিতে লাগিল। আলোক মন অতিক্ৰম করিয়া ক্লমে তাহার চক্ষযগলে আসিয়া উপনীত হইল এবং নিমেষের মধ্যে নিখিল বিশ্বচরাচরে ছড়াইয়া পড়িল। সেই নবীন আলোকে মাণিক আকাশের পানে চাহিল—আকাশ আশ্চৰ্য্য নীল—এমন কখনও দেখে নাই।—বসন্ধরার প্রতি দটিপাত করিল, বসন্ধরা আজ পরমা সন্দেরী। দরে দীঘিকাতীরে ঘঘে ডাকিতেছে —উকু পাখী কলরব করিতেছে, বউ-কথা-কও মাঝে মাঝে ঝঙ্কার দিতেছে; পাখীর ভাষায় যেন আজ নতন প্রাণ, নতন সর। মাণিক নিশবাস ফেলিয়া, গাছ হইতে নামিয়া আসিল । তাহার কোঁচার খাটে গোটা দশেক পেয়ারা ভাল দেখিয়া গোটা দই রাখিয়া, বাকী সমসত বাগানে ছড়াইয়া দিল । পেয়ারায়—বিশেষতঃ কোষো পেয়ারায়—আর তাহার চিত্ত নাই। সেদিন রবিবার ছিল—স্কুল যাইতে হইবে না। আহতবৎ মন্থরপদে বাড়ী আসিয়া মাণিক পড়িবার ঘরে প্রবেশ করিল। পড়িবার জন্য ? হায়, না, পড়িবার জন্য, চিন্তার অনলে নিজের হৃদয়কে আহুতি দিবার জন্য। শতরঞ্জ বিছান মেঝেতে ওয়েবটিার ডিক্সনারি মাথায় দিয়া চপ করিয়া শ্যইয়া রহিল। মাণিকের বয়স চতুর্দশ বৎসর। এই বয়সেই সে বাঙ্গালা উপন্যাস পড়িয়াছে রাশি রাশি। মণালিনী, চন্দ্রশেখর, উদভ্ৰান্ত প্রেম হইতে আরম্ভ করিয়া, বটতলার পারলেবালা, সোহাগিনী, বউরাণী প্রভৃতি কিছুই আর বাকী নাই। শইয়া শইয়া মাণিক আকাশ পাতাল চিন্তা করিতে লাগিল। তাহার মনে হইতে লাগিল, দঃখ যেন তাহার হদয়ে ধরিতেছে না—উথলিয়া যেন গ্রন্থ হইয়া বাহির হইতেছে। কেন দেখিলাম ! হরি হরি কি দেখিলাম! দেখিলাম ত মীরলাম না কেন ? আমার মনে এ আগন-এ কুলকাঠের আঙার-কে জালিল রে? নিবিবে কি ? কতদিনে—হায় কতদিনে f —ইত্যাদি ইত্যাদি। কিয়ৎক্ষণ পরে শিশ দিতে দিতে লম্ফ দিয়া মাণিকের সহপাঠী বন্ধ বিপিন ও শর প্রবেশ করিল। বিপিন আসিয়া একেবারে মাণিকের চল ধরিয়া বলিল, “কি রে ইন্টপিট ঘমেচ্ছিস নাকি ? মাৰ্ব্বেল খেলবিনে ?” মাণিক উঠিয়া বিপিনের গালে হঠাৎ এক চড় কসাইয়া দিল। বিপিন হতভম্বব । শরৎ বলিল, “তোর হয়েছে কি ? মারামারি করতে চাস, আয়”— বলিয়া শরৎ আসিতন গটাইতে লাগিল। বিপিন বলিল, "আঃ শরতা কি করিস।” মাণিকের পানে ফিরিয়া বলিল, “লেগেছে ভাই, রাগ করেছিস ?” মাণিক বলিল, “মানুষ শায়ে রয়েছে, চলে ধরে টানলি কি বলে ?” শুরৎ মাণিকের চল ধরিয়া টানিয়া বলিল—“আহা এ রকম করে টানলে বঝি আবার লাগে?”—তাহার আশা ছিল, তাহাকেও মাণিক চড় মারবে, তাহা হইলে তৎক্ষণাৎ শরৎ ১৫৩