পাতা:প্রভাতকুমার মুখোপাধ্যায়ের গল্পসমগ্র.djvu/৪১৫

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


একদাগ ঔষধ প্রথম পরিচ্ছেদ সৰুমারী আজ দুইদিন তাহার স্বামীর পর না পাইয়া অতিশয় চিন্তিত হইয়া পড়িয়াছে। সে এ বাটীর ছোট বউ। তাহার শবশরে বড়লোক। তাহকে কোনও সাংসারিক কায করিতে হয় সা—খালি অনেক উপন্যাস পড়িতে হয়; বড় যায়ের সঙ্গে, ননদ দটীর সঙ্গে, গম্প করিতে হয়, তাস খেলিতে হয় । মধ্যে মধ্যে ঝগড়াঝাঁটিও করিতে হয়। সতরাং স্বামীকে পত্র লেখা ও পত্র পাওয়া সক্লেমারীর দৈনন্দিন জীবনের একটা প্রধান কায । আর একটা কায তাহার আছে, সেটা বড় প্রীতিকর নহে। তাহাকে অনেক ঔষধ খাইতে হয়। কারণ, মাঝে মাঝে কাপ দিয়া তাহার জবর আসে । সকুমারী যে স্বামীর পত্র না পাইয়া ভাবিতেছে, তাহা বাড়ীর বিড়ালটা পৰ্য্যন্ত অবগত ছিল। আজ বেলা দশটার সময় সরুমারী কাপড় ছোপাইবে বলিয়া শিউলী ফলের বোঁটা কাটিতে বসিয়াছিল, এমন সময় তাহার ছোট ননদ মন্না আসিয়া বলিল, “ওলো ভেবে মরছিলি, এই নে তোর বরের চিঠি এসেছে।” স্কুমারী আগ্রহের সহিত চিঠি লইয়া নিজের শয়ন ঘরে পলায়ন করিল। চিঠি খলিয়া যাহা পড়িল, তাহাতে তাহার মাথা ঘুরিয়া গেল। চিঠি এইরুপ ৪— স্কুমারী আমি নিদারণে মনস্তাপে দগধ হইতেছি। আমি তোমার প্রতি বিশ্বাসঘাতকতা করিয়াছি। আমি আর তোমার ভক্তিযোগ্য স্বামী নহি । আমার বধিভ্রংশ হইয়াছিল— কুসঙ্গের দোষে প্রলোভনের বশবত্তী হইয়া অতি গহিত কাষ" করিয়াছি। সব কথা পরে লিখিবার নহে, সাক্ষাতে বলিব। আজ সন্ধাবেলায় বাড়ী আসিব। অকপটে তোমার কাছে সব বলিব। তোমার ভালবাসা যদি আমায় ক্ষমা করিতে পারে, তবেই আমি আবার আমি হইব—নচেৎ সব ফরাইয়াছে। তোমার হতভাগ্য অবিনাশ পত্ৰখানি প্রথম বার পাঠ করিয়া সৰুমারী বঝিল, একটা কোনও ভয়ানক জিনিষ ঘটিয়াছে; কিন্তু কি ঘটিল ভাল উপলব্ধি করিতে পারিল না। বরাবার পড়িতে পড়িভে একটা অর্থ তাহার মনে হইতে লাগিল। তাহার শরীর শিথিল হইয়া আসিল, আর ಛಿಛಿಛಿ বসিয়া, আর একবার পাখানি পাঠ রল । কারয়া, সেখান 5 রয়া ছিড়িয়া ফেলিল । ভারয় জানালা গলাইয়া বাহিরে বাগানে ফেলিয়া দিল । মাটি ভরিয়া ছিন্নপত্র পরমহত্তে মনে হইল, যদি কেহ ছোড়া কাগজগুলি কুড়াইয়া লয়, যোড়া দিয়া পড়ে ! তৎক্ষণাৎ সে বাগানে গিয়া ছোড়া কাগজুগলি একটি একটি করিয়া খটিয়া তুলিয়া লইল। তাহার আঙলের কচি ডগাগুলিতে শিশির ও কাদা লাগিয়া গেল। কিছদরে অন্যবাটীর সদর দরজায় বৈষ্ণব ভিখারী খঞ্জনী বাজাইয়া গান করিতেছিল, দাঁড়াইয়া আনমনে একটা তাহাই শুনিল। ছোড়া চিঠির টুকরাগলি অচিলের খাটে বাঁধিয়া শয়নঘরে ফিরিয়া আসিল । ভারী শীত করিতে লাগিল। জর আসিবার পর্বে যেমন হয়, ঠিক সেই রকম। বিছানায় উঠিয়া, লেপ মাড়ি দিয়া সকুমারী শয়ন করিল। লেপের মধ্যে, প্রথম তাহার శా * ভাঙ্গিল। একা ঘরে, পরিজনের অলক্ষিতে, সকুমারী অনেক | এই সময় তাহার বড় ননদ লিলি,সুন্ বলিল, ”সকি, শলি ষে, অসখ R