পাতা:প্রভাতকুমার মুখোপাধ্যায়ের গল্পসমগ্র.djvu/৪৭১

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


ফলের কথা শুনিয়া রজনী তাহার কোটের প্রতি দটিপাত করিল। সঙ্গে সঙ্গে প্রভারও চক্ষ সেইদিকে পড়িল। প্রভা বলিয়া উঠিল, “আমার ফলে কি করলে ? যন্ধে খইয়ে এসেছ নাকি বীর-মশাই ?” রজনী দুঃখিতভাবে বলিল, “ফলটি গেছে দেখছি।” প্রভা বলিল, “আচ্ছা, অত দুঃখ করতে হবে না।”—বলিয়া প্রভা ক্ষেতে নামিয়া গিয়া একগুচ্ছ কড়াইসটি ফল তুলিয়া আনিল । রজনীর কোটে পরাইয়া দিতে দিতে বলিল, “এ ফলের যে ভারি প্রশংসা করছিলে—এই নাও।” এতক্ষণে রজনীর মুখে একটা হাসি দেখা দিল । সেখানে রাখাল-বালক উপস্থিত ছিল, সতরাং এবার আর ধন্যবাদ দেওয়া হইল না। শুধ প্রভার হাতখনি নিজের হাতে লইয়া সমেনহে নিচেপষণ করিল। এমন সময় দেখা গেল, হুগলির দিক হইতে একখানি ঘোড়ার গাড়ী আসিতেছে । উভয়েই অত্যন্ত আগ্রহের সহিত আশা করিতে লাগিল গাড়ীখানি যদি খালি থাকে ত বড় ভাল হয়। গাড়ীখানি খালিই আসিতেছিল। শ্রীরামপুর হইতে কোনও গ্রামের জমিদারের জামাতাকে স্বশুরবাড়ী পৌছাইয়া দিয়া ফিলিয়া আসিতেছে। রজনী গাড়ীকে আটক করিল। একটা পরে ভগ্ন বাইসিক্ল গাড়ীর ছাদে তুলিয়া লোক দুইটাকে পরীকৃত করিয়া প্রভা ও রজনী শ্রীরামপুর অভিমুখে চলিল। গাড়ী ছাড়িল। রজনী বলিল, “প্রভা, আজ তোমার বড় কটু হল। খুব ক্ষিদে পেয়েছে, না ? তোমার মনখখানি যেন শুকিয়ে গেছে।” প্রভা হাসিয়া বলিল, “গর্জনের কথা না শোন কাণে-" রজনী বলিল, “সে ত ক'দিন থেকেই শনছি। আমার কথার উত্তর দাওনা। খুব ক্ষিদে পেয়েছে না ? চল, শ্রীরামপুরে গিয়ে কিছু খাবে।” প্রভা বলিল, “ক্ষিদে পেলে কি খেতে আছে ? মা বলে দিয়েছেন গায়েহলদের আগে কিছ খেতে নেই।” রজনী বলিল, “সে ব্ৰত ত একবার ভঙ্গ হয়ে গেছে।” প্রভা আশচয্য হইয়া বলিল, “কথন গো ?” প্রভা বলিল, “ওগো তাই ত! তুমি আমায় মনে করিয়ে দিলে না কেন ?" “আমার দোষ ? তুমি আমাকেও খাইয়ে দিয়ে আমারও ব্রতভঙ্গ করেছ।” “তোমার দোষ নয় ত কার দোষ তবে ?” রজনী বলিল, “বেশ! তোমার দোষও বঝি-আমার দোষ ? তব এখনও বিয়ে হয়নি!” প্রভা কৃত্রিম রোষসহকারে বলিল, “আমার কখনও কোনও দোষ হতে পারে ; সব দোষ তোমার!” এই অন্যায় অপবাদ রজনীর একান্ত অসহ্য হইল। সে প্রভাকে দণ্ডিত করিবার অভিপ্রায়ে-রাস্তার দুইপাশ জনশন্য দেখিয়া—প্রভার মুখখানি নিজের বক্ষের কাছে টানিয়া লইল । { ফালগন, ১৩১১ ] বিবাহের বিজ্ঞাপন । প্রথম পরিচ্ছেদ সহর গাজীপুর, মহল্লা গোরাবাজারে, রাম অওতার নামক একটি লালাজাতীয় যবক বাস করে। তাহার বয়ঃক্রম বাবিংশতি శ్యా লোকটার কিঞ্চিৎ ইংরাজি লেখা br