পাতা:প্রভাতকুমার মুখোপাধ্যায়ের গল্পসমগ্র.djvu/৪৭৫

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


আসিবে। তাহাকে আসিতে লিখি। কেবল ফোটাগরাপটার কি করি ?” মহাদেও বলিল, “সে জন্য ভাবনা কি ? ফোটাগিরাপ বাজারে অনেক মিলিবে । চোঁকে যে মহম্মদ খানের দোকান আছে কি না, সেখানে পাসী থিয়েটর দলের অনেক খ্যপসরৎ আউরতের তসবীর আছে। সেই একখানা কিনিয়া পাঠাইলেই হইবে।” পরামশ তখনই সিথর হইয়া গেল। ইহাও সিথর হইল যে, এ বাড়ীতে আনা হইবে না, তাহা হইলে পরে পলিসে সন্ধান পাইতে পারে। অন্য একটা বাড়ী সাজাইয়া, সেইখানে লইয়া গিয়া, কায সমাধা করিতে হইবে। এক পোয়া ভাঙ, সঙ্গে একটু ধাতুরার রস– আর কিছই করিতে হইবে না। তৃতীয় পরিচ্ছেদ অপরাহুকাল। গোরাবাজায়ের সেই বৈঠকখানাটিতে অন্ধশয়ান অবস্থায় রাম অওতার ধমপান করিতেছে, এবং মাঝে মাঝে রাজপথের পানে সতৃষ্ণ দটিনিক্ষেপ করিতেছে। ডাকওয়ালার আসিবার আর বিলব নাই। আজ দই দিন হইতে রাম অওতার এই প্রকার সপ্রতীক্ষ, কারণ এখনও পত্রের উত্তর আসে নাই। ডাকওয়ালা আসিয়া একখানি পত্র এবং একটি প্যাকেট দিয়া গেল। হস্তাক্ষর অপারচিত। বেনারস সিটির মোহর রহিয়াছে। হষোৎফুল্ল হইয়া রাম অওতার তত্ত্বপোষের উপর উঠিয়া বসিল। প্রথমেই প্যাকেটটি উন্মুক্ত করিল। ফটোগ্রাফ—সুন্দরী যাবতীর মনোজ্ঞ সন্দের ছবি। সতৃষ্ণ নয়নে রাম অওতার ছবিখানির প্রতি চাহিয়া রহিল। পাসী মহিলাদের ধরণে শাড়ীখানি পরিহিত । "বরমসমাজীদের স্ট্রী-কন্যারা এইরুপ ধরণেই শাড়ী পরিধান করে বটে—তাহা সে রেলে যাতায়াতের সময় অনেকবার দেখিয়াছে। মুখ চক্ষর গঠন কি সন্দের । রাম অওতার মনে মনে বলিতে লাগিল—“বাহবা কি বাহবা। বাহ রে বাহ!” ছবিখানি রাখিয়া সে পত্ৰখানি খলিল।—তাহাতে এইরুপ লেখা ছিল – মহাশয়, আপনার পত্রিকা প্রাপ্ত হইয়াছি। আগামী শনিবার সন্ধ্যার গাড়ীতে যদি আপনি আসেন, তবে উত্তম হয়। আপনার সঙ্গে সাক্ষাৎ পরিচয় হইলে তবে অন্যান্য কথাবাৰ্ত্তা হইবে। আমি সম্প্রতি বাড়ী বদল করিয়াছি, সতরাং কেদারঘাটের বাড়ীতে আসিবেন না। আমি স্টেশনে লোক পাঠাইয়া দিব, আপনাকে সঙ্গে করিয়া লইয়া আসিবে। ঐ দিন সন্ধ্যাকালে আমার আলয়ে আপনি ভোজন করিলে অত্যন্ত সখী হইব। ফোটোগ্রাফ পাঠাইলাম। व्नानां शब्ललौथद्र लाल পত্র রাখিয়া আবার ফোটোগ্রাফখানি লইয়া রাম আওতার দেখিতে লাগিল। একটি বাহ পাশবদেশে লক্ষিবত, অপরটি অধোখিতভাবে শাড়ীখানির এক অংশ ধরিয়া আছে। རྒྱུ་ཨརྱན་” ཨ་། ཐ་ཤད་ལྟ་ལ་) e"ཨང་ ༠༩:༡༡, ses Mi་ལྕ ཨ་” sར་ཤང་ ts ཐམ་ཨ་མ་

  • ভ্ৰকুঞ্চিত করিয়া রাম অওতার ভাবিল,—লিখিয়াছে শনিবার সন্ধ্যার গাড়ীতে যাইতে। সে আজ দই দিন বিলম্ব। শনিবার না লিখিয়া শক্লেবার লিখিল না কেন ? যাহা হউক, এই দই দিনে ভাল করিয়া প্রস্তুত হইতে হইবে।

শনিবার দিন আহারাদি শেষ করিয়া রাম আওতার বাড়ীতে বলিল—“একবার কাশীজী দশন করিয়া আসি " বলিয়া, নিজ বেশবিন্যাস করিতে প্রবত্ত হইল। এইরপূভাবে বেশ করিয়া যাইতে হইবে যে, প্রথমদর্শনেই কুমারীর মনে প্রণয়সঞ্চার হয়। ভাল রেশমী চাপকান বাহির করিয়া রাম অওতার সযত্নে পরিধান করিল। জরির কাযকরা সন্দের মখমলের টুপী লইয়া মাথায় দিল। দিল্লী হইতে আনীত সুকোমল রঙীন জতায় স্বীয় পদদ্বয়ের - * 9: