পাতা:প্রভাতকুমার মুখোপাধ্যায়ের গল্পসমগ্র.djvu/৪৮

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


খেছিয়া রাজি করিবার চেষ্টা দেখা যাউক ৷” হিমানী বলিল--"না, তাহার কিছুমাত্র প্রয়োজন নাই, আমিই দিব। কোনও ভয় শাই, ভয় থাকিলে আমি এমন কায কেন করিব ? প্রাণের মায়া আর কার নাই ?” লোকে মনে করিল, তা বটেও ত । ভয় থাকিলে বোগীর জন্য কেন ডাক্তার এত করিতে বাইবে, গরজ কি ?—চিকিৎসায় হিমানীর বেশ পশার ছিল, তাহার ব্যবসথা সম্বন্ধে কাহারও কিছু সন্দেহ হইল না। নবদগণর মা শেষে বলিলেন—“যা তুমি ভাল বোঝ সুস্থা ! কিন্তু যেন কোনও বিপদ ঘটাইও না।” পাড়ায় একজন নবপরীক্ষেত্তীণ নেটিভ ডাক্তার ছিল হিমানী তাহাকে ডাকিয়া পাঠাইল । প্রক্রিয়ার সময় একজন চিকিৎসাব্যবসায়ীর সাহায্য প্রয়োজন ; সকলে বলিল,— “যদি সাহায্যেরই প্রয়োজন, তবে সাহেব ডাক্তার আনান যাউক ও অভিজ্ঞতাবিহীন ডাক্কারকে বিশ্বাস কি ?” হিমানী বলিল—“বিশেষ কিছু করিতে হইবে না। কেন ব্যথা অর্থব্যয় ও বিলম্ব বন্ধি করলেন ?”—বঝি হিমানীর শঙ্কা হইয়াছিল, পাছে বিজ্ঞ সাহেব ডার্ক্সর আসিয়া তাহার চিকিৎসা প্রণালীতে বাধা দেয় ! পরামর্শ ঠিক হইল, এই রক্ত সঞ্চালল-কাৰ্য্য রাত্রে ঠান্ডার সময় করিতে হইবে। নিজের হাসপাতাল হইতে হিমানী প্রয়োজনীয় যন্ত্রাদি আনাইয়া রাখিল । নেটিভ ডাক্তারকেও বলিয়া কহিয়া শিখাইয় পড়াইয়া ঠিক করিল। BB BBBB BBB BBBBB BBB BBBBB BBBS BBB BB BBBBBS BBBBBB BBBBB BBBBBS BBB BB BBBB BBBS BBB BBBB BBBB BBB একটা গ্রি ছিন্ন করিয়া যথারীতি নল বসান হইল। পরে সেই নল অনিয়া হিমানীর তভের ছিল শিরার সাথে যোজিত করা হইল। নেটিভ ডাক্তার ধীরে ধীরে কল চলাইল। হিমানীর শরীর হইতে রক্তধারা নল বহিয়া নবদগর্ণর শরীরে প্রবেশ করতে লাগিল। কিয়ৎক্ষণ এইরুপ চলিলে, হিমানীর মুখ পাণ্ডত্রণ ধারণ করিল, চক্ষ বসিয়া গেল, BBB B BBBB DDDBS BBBBB B BBBBB BBBBB BBDDSBBB BBB BBBS আমার মাথা ঘুরিতেছে।” কল বন্ধ হইল। ডাক্তার বৈজ্ঞানিক প্রক্রিয়া অনুসারে নল খলিয়া একে একে উভয়ের ছিন্ন শিরা বধিয়া দিল। ক্ষতমখে ঔষধ দিয়া ব্যান্ডেজ করিল। নবদগার মা হিমানীকে ধরিয়া তাহার শয়নকক্ষে লইয়া গেলেন। মণিভূষণ আর দুই একজন তাহার সঙ্গে গেল। হিমানী শয়ন করিল। তাহার কথা জড়ান, যেন নেশা হইয়াছে। বলিল—“আমার মখে অলপ অলপ করিয়া সেই ঔষধ ও ব্রাণ্ডি মিশন গরম দন্ধ দাও।” » দগ্ধ পানে হিমান একট সন্থ হইল। বলিল—“আর কিছ করিতে হইবে না। তোমরা ঘাও । আমি ঘুমাইব । ঘুমাইলেই সব সারিয়া যাইবে।” সকলের সঙ্গে মণিভূষণও চলিয়া যাইতেছিল। হিমানী বলিল--"আপনি একটা অপেক্ষা করন, রেগিণীর সম্বন্ধে আপনাকে দুই চারটা কথা বলিব।” সকলে চলিয়া গেল। মণিভূষণ হিমানীর শয্যাপাশেব দাঁড়াইল । হিমালী বলিল—”মণি, আমার মাথা যেন ঘুরিতেছে। কিছু বলতে চাই-কিন্তু হয় ত কি বলিতে কি বলিব ।” মণিভূষণ, হিমানীকে ব্রাডি মিশন আর একট দগধ পান করাইল। হিমানী আবার প্রকৃতিস্থ হইল । - সে রাত্রি পণিমা ছিল। সমসত বহিন্দেশ জ্যোৎসনাবন্যায় প্লাবিত। কতকটা জ্যোৎসনা মুক্ত বাতায়নপথে উছলিয়া আসিয়া হিমানীর শয্যার উপরেও পড়িয়াছে। নারিকেলের পাতা কাঁপাইয়া এক একবার বিরঝির করিয়া বাতাস বহিতেছে। 8艾