পাতা:প্রভাতকুমার মুখোপাধ্যায়ের গল্পসমগ্র.djvu/৪৮১

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


পবববং সাবধানতা অবলম্বন করিয়া বলিলাম, “কি জানি অত বঝিসঝিনে।” গহিণী বলিলেন, “আহা কথার শ্রী দেখ। কচি খোকা কিনা—কিছু বোঝেন না। ಾಗ ಾ ಾ ಃ তুমি যদি সন্দরলাল হতে, তা হলে তুমি ভালবাসতে কৈ না ? আমি দন্টামি করিয়া বসিলাম, “কাকে ? তোমাকে ?” শ্ৰীমতী রাগিয়া বলিলেন, “গা জালা করে কথা শনে। পান্নাকে-পান্নাকে।” “হাঁ গো হাঁ। একটা কথা বুঝতে পার না ? এত পাস করলে কি করে ?” : এরূপ প্রশেনর উত্তরে কি বলিতে হইবে জ্ঞানীজনেরা তাহার কোনও নিন্দেশ করেন নাই। সুতরাং রুপাল ঠকিয়া বলিলাম, “তা, বাসতাম বোধ হয়।” - কপাল ঠকিয়া বারদের বাক্সতে দিয়াশলাই ধরাইয়া দিলাম না কেন? ফল ইহা অপেক্ষা গরতের হইত না। অনেক কন্টে মান ভাঙ্গাইলাম। মানান্তে তিনি পান্নার পরিজনাদি সম্বন্ধে ষে সবেদারজী লোকটি বড় ভাল। ঐ কন্যাটি তাঁহার সবসব। বলেন, ইচ্ছা করিলেই এখনি তাহার বিবাহ দিতে পারেন, কিন্তু মেয়েটিকে পরের হাতে সমপণ করিয়া দিয়া কি লইয়া থাকিবেন ? আজীবন তিনি যুদ্ধ ব্যবসায় করিয়া কাটাইয়াছেন, তাহার অনেক গল্প করিলেন। আষাঢ় মাস। রাত্রে গভীর নিদ্রায় মগন ছিলাম। সহসা কি একটা শব্দে নিদ্রাভঙ্গ হইল। কাণ পাতিয়া রহিলাম। দরজার বাহির হইতে শব্দ আসিল—“বাংগালীবাব-এ হাংগালীবাব।” 3. - আমার নাম এখানে অলপ লোকেই জানে। সাধারণে আমি "বাংগালী উকীল” অথবা "বাংগালীবাব" বলিয়াই পরিচিত। - পুনশ্চ শব্দ হইল—“বাংগালীবাব—েএ বাবাজী।” আমি “কোন হায় ?” বলিয়া বিছানায় উঠিয়া বসিলাম। “ঞ্জারা বাহার তো আইয়ে।" আমার স্ত্রীও জাগিয়া উঠিলেন। বলিলেন, “কোনও অমঙ্গলের টেলিগ্রাম এসেছে বঝি।” 2 - : বাতি জালাইয়া, চাঁটজতা পায়ে দিয়া বাহির হইলাম। জ্যোৎস্না রাত্রি-কিন্তু আকাশে অলপ মেঘ ছিল, তাই জ্যোৎসনা লান দেখাইতেছিল। তালগাছগুলি কাঁপাইয়া সন, সন করিয়া বাতাস বাঁহতেছে। উঠানের পাবে টগরগাছে একগাছ ফল ফটিয়া রহিয়াছে। সদর দরজা খলিয়া দেখি, একটি অপরিচিত ব্যক্তি দাঁড়াইয়া আছে। “কে তুমি ?” লোকটি বলিল, “মোহাক্কেল।” “এত রাত্রে কেন ?" “একটি বন্ধ মৃত্যুশয্যায় শায়িত। উইল করিতে হইবে। এখনি না গেলে নয়। ভোর অবধি তাঁহার নিশ্বাস থাকিবে কিনা সন্দেহ।” - “কত দরে যাইতে হইবে ?” - - “বেশী নয়। এখান হইতে দই তিন ক্লোশ মাত্র।” “যাইব কি করিয়া ?” ”ঘোড়া আনিয়াছি।” “আনিয়াছি। কত লাগিবে ?” "এই রাত্রে আমি একশত টাকার কমে যাইব না।"

  • . - ২৩৮