পাতা:প্রভাতকুমার মুখোপাধ্যায়ের গল্পসমগ্র.djvu/৪৯০

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


“না না। শয়নঘরে কি তোরঙ্গ-পেটরা সতপোকার করে রাখা হয় ? তাতে সৌন্দৰ্যহানি হবে ষে।” ঈডিথ চাবি লইয়া চলিয়া গেল। কোথায় নরেনের থাকা হইবে, সেই সম্বন্ধে কথা উঠিল। নরেন বলিল, “কলকাতায় যেমন ছাত্রদের মেস থাকে সে রকম এখানে কিছু নেই ?” יין חה" “তবে এখানে থাকবার কি রকম বন্দোবসত ?” চার বলিল, “তিন রকম বন্দোবসত হতে পারে। এক তুমি কোনও পরিবারে থাকতে পার; কিন্তু ভদ্রপরিবারের মধ্যে থাকতে পাওয়ার সংযোগ দলভ। তাঁরা নিজেদের বন্ধবোন্ধবের কাছ থেকে যথেষ্ট সপোরিশ না পেলে রাখেন না। তুমি তাঁদের স্মী পত্র কন্যার সঙ্গে ঠিক তাঁদের একজন হয়ে বাস করবে, তুমি যে ভাল লোক, তা তাঁরা না জানলে তোমায় রাখবেন কেন ? কাগজে বিজ্ঞাপন দিয়ে কেউ কেউ পরিবারে ঢুকতে চেষ্টা করেছে। ঢকে দেখে তারা নিম্নশ্রেণীর লোক, দএক সপ্তাহ থেকে পালিয়ে আসে। দ্বিতীয়তঃ, তুমি কোন বোডিং হাউসে থাকতে পার, কিন্তু সেখানে অনেক সময় অবাঞ্ছনীয় লোকের সঙ্গে মিশতে বাধ্য হতে হয়। তৃতীয়তঃ, রমসে থাকতে পার— এই আমি যেমন আছি। এই একটা ধর মস্ত বাড়ী রয়েছে, এর একজন ল্যাণ্ডলেডি আছে, সেই বাড়ীর কত্রী। এই আমি একটা শয়নঘর, একটা বসবার ঘর নিয়ে আছি, —এমন আরও দু’চারজনে আছে—তাঙ্গের সঙ্গে আমার কোনই সম্মবন্ধ নেই, তাদের আমি চিনিও না। আমার বসবার ঘরে ল্যান্ডলেডি আমার খাবার দিয়ে যায়। আমি হস্তায় হস্তায় ওকে পয়ত্রিশ শিলিং করে ফেলে দিয়ে খালাস!” “এ তিন রকমে খরচের বিভিন্নতা কি ?” "তা বড় নেই। এই রকমই খরচ। তবে এর চেয়ে ভাল টাইলে থাকলে আরও পাঁচ সাত শিলিং বেশী লাগতে পারে। একটু কম টাইলে থাকলে দ্য পাঁচ শিলিং কমেও হতে পারে।” “আপনি আমায় কোন রকম থাকতে উপদেশ দেন?” “যদি ভদ্রপরিবারে স্থান পাও, তবে সেই খব বাঞ্ছনীয়। আমি এই পাঁচ বৎসরের প্রায় তিন বৎসর ভিন্ন ভিন্ন পরিবারে বাস করে কাটিয়েছি। পরিবারে বাস না করলে, ওদের সামাজিক রীতি নীতি ভাল করে শিক্ষা করা যায় না। আমাদের মত ভারতবষীয়দের পক্ষে তার একটা মসত educative value আছে ? “তবে দাদা অনুগ্রহ করে আমাকে কোনও ভদ্রপরিবারে পথান করে দেবেন।” চার চেষ্টা করিতে স্বীকৃত হুইল। আপাততঃ আগামী কল্য তাহাকে "ইনে” গিয়া ভত্তি হইতে হইবে। চার হিসাব করিয়া দেখিল, ভত্তি হইবার টাকা অপেক্ষা নরেন পঞ্চাশ পাউণ্ড অধিক আনিয়ছে। বলিল, “আচ্ছা, ঐ টাকা থেকে, গোটা দই তিন সন্ট তৈরি করয়ে নাও—বাকী টাকা ব্যাঙ্কে রেখে দিও এখন " নরেন্দ্র বলিল, “দাদা, কলকাতার এই সটে যতদিন চলে চলক না। মিথ্যে টাকা খরচ করে কি হবে ?” - চার বলিল, “সে ভাল কথা।” রাত্রি দশটার পর, চারকে শুভরাত্রি ইচ্ছা করিয়া নরেন শয়ন করিতে গেল। গিয়া . দেখিল, তাহার বাক্স তোরঙ্গ সমস্ত অন্তহিত। ওয়ার্ড-রোব খলিয়া দেখিল, তাহার কামিজগুলি একস্থানে, সন্টগুলি একস্থানে, রমালগুলি একটা ছোট দেরাজে, অন্য একটাতে তাহার নেকটাইগলি, আর একটাতে তাহার কলারগুলি—এইরুপ সদৃশখেলায় সজিত। আলোকের নিকট, কালো বনাতে সোণালি কায করা বসে আচ্ছাদিত এ টেবিল। তাহার উপর নরেনের রাইটিং কেশীট, চিঠির কাগজ, খামগালি রক্ষিত। , , . . ३8१ · - .”.