পাতা:প্রভাতকুমার মুখোপাধ্যায়ের গল্পসমগ্র.djvu/৫২৬

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


তালিকা হইতে মিষ্ট, দগধ, ঘত ও তণ্ডলে যথাসম্ভব কাটিয়া দিয়া, তত্তৎপথানে রুটি, মাংস, ডিম্বব প্রভৃতি যোজনা করিলেন। প্রথম প্রথম পাঁচ সাত মিনিটের অধিক ব্যায়াম করিতে পারিতেন না—ক্লান্ত হইয়া পড়িতেন। অভ্যাসের গণে ক্ৰমে প্রভাতে ও সন্ধ্যায় অন্ধঘিণ্টা কাল ধরিয়া নিয়মিতভাবে ব্যায়াম করিতে লাগিলেন। এক বৎসর এইরুপ করিয়া তাঁহার অঙ্গ-প্রত্যঙ্গাদি বিলক্ষণ দঢ় হইল। তখন স্বীয় মত্তি আরও অধিক মাত্রায় পরষ কারবার অভিপ্রায়ে তিনি দাড়ি কামানো বন্ধ করিয়া দিলেন। দই একটি শিকারী বন্ধর সহিত মিলিত হইয়া মধ্যে মধ্যে পল্লীগ্রামে গিয়া হংস, বনাশকেরাদি শিকার করিতেও অভ্যাস করিলেন। এইরুপ করিয়া দুই বৎসর কাটিয়াছে। এখন আর সে নলিনী নাই। এখন তাঁহার কপোলদেশ বসাশন্য, চিবকোগ্রভাগ সক্ষমতাপ্রাপ্ত, হস্তপদাদি অপিথবহল হইয়াছে; ফলতঃ তিনি নামের এখন সম্পণে অষোগ্য হইয়া উঠিয়াছেন। এমন সময় একবার কুঞ্জবালার সহিত সাক্ষাৎ আকাঙিক্ষত। হায় নামটাও যদি পরিবত্তন করিবার উপায় থাকিত । নলিনীবাব মনে করিয়াছেন, তাঁহার পত্র জমিলে তাহার নাম রাখিবেন—খবে একটা ভীষণ রকমের—কি নাম রাখিবেন এখনও সিথর করিতে পারেন নাই। \ן ס\ }ן পরদিন বেলা দইটার সময়, নলিনীবাব এলাহাবাদ স্টেশনে অবতরণ করলেন। তাঁহার পরিধানে পায়জামা ও লম্বা পাঞ্জাবী কোট, মস্তকে পাগড়ী। হসেত একটি বৃহদাকার যটি দেখা যাইতেছিল। জিনিসপত্রের সঙ্গে একটি বন্দকের বাক্স। ইচ্ছা ছিল ছটিতে কিঞ্চিৎ শিকারও করিয়া যাইবেন। ন্টেশনে নামিয়া চতুন্দিকে চাহিয়া দেখিলেন-কই, কেহ ত তাঁহাকে লইতে আসে নাই। গত কল্য যাত্রা করিবার পরে তিনি যে *বশীর মহাশয়ের নামে চাাঁর আনার টেলিগ্রাম একটি পাঠাইয়াছিলেন, তাহা পৌঁছে নাই কি ? কুলি ডাকিয়া, জিনিসপত্র লইয়া, নলিনীবাব স্টেশনের বাহিরে গেলেন। একজন গাড়োয়ান উত্তর করিল, “হাঁ বাব-আইয়ে।” "চলো”—বলিয়া নলিনী গাড়ীতে আরোহণ করিলেন। এমন কি এই তিনি প্রথম বঙ্গদেশের বাঁহরে পদাপণ করিয়াছেন। পশ্চিমের সহরের নতন দশা দোঁ ు ऊिनि छब्लिटूब्लन । সহরের নতন দশা দেখিতে দেখিতে অন্ধ ঘণ্টা পরে গাড়ী একটি বহৎ কম্পাউণ্ডযুক্ত বাড়ীতে প্রবেশ করিল। সমখেই বহিব্বাটী, বারান্দায় একটি নয় দশ বৎসরের বালিকা খেলা করিতেছিল। বারান্দার নিম্নে, বামে, একটা কাপ; সেখানে বসিয়া একজন পশ্চিমা ভূত্য সজোরে একটা কটাহ মাজিতেছিল। গাড়ী হইতে অবতরণ করিয়া, সেই ভূতাকে সম্বোধন করিয়া নলিনীবাব বললেন —”এই মহেন্দ্রবাব উকীলের বাড়ী?” “হ্যাঁ বাবা।” “না। তিনি কিদারবাব উকীলের বাড়ী পাশা খেলতে গিয়েছেন।” “আচ্ছা—ভিতরে খবর দাও—বল জামাইবাব এসেছেন।" এই কথা শনিবামার, যে মেয়েটি বারান্দায় খেলা করিতেছিল, সে ছটিয়া বাড়ীর * দিনকতক এরপে টেলিগ্রাম ఇళ్ళফুলি কিন্তু এলে লি লিঙ্গ অধম । - - I