পাতা:প্রভাতকুমার মুখোপাধ্যায়ের গল্পসমগ্র.djvu/৫২৮

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


মনে স্বীয় পত্নীর উপরও রাগ হইল। তাহার কি উচিত ছিল না পত্রে নলিনীকে লেখা ৰে, অমকের সন্তান হইয়াছে, তাহার মুখ দেখিবার জন্য একটা গিনি জানিও ? ঝি বলিল, “সে কথা শোনে কে? তা হলে আজই সেকরা ডেকে সোণার গহনার ফরমাস দাও । ছেলের বাপ হলেই হয় না!” নলিনীর বন্ধিসন্ধি ইতিপবেই যথেষ্ট গোলমাল হইয়া গিয়াছিল; শেষের এই কথা শুনিয়া সে একেবারে দিশেহারা হইয়া পড়িল। ছেলের বাপ হলেই হয় না ইহার অর্থ কি ? তবে নলিনীই কি ছেলের বাপ নাকি ? শিশকে ঝির কোলে ফিরাইয়া দিয়া, সভয়ে নলিনী জিজ্ঞাসা করিল, "ছেলেটি কবে হল ?” ঝি পনার গালে হাত দিয়া বলিল, “অবাক কল্পে যে ! তোমার ছেলে কৰে হৰ তুমি জান না, পাড়ার লোককে জিজ্ঞাসা করছ?" ৰে দুইটি বালকবালিকা উহারই মধ্যে একট বয়ঃপ্রাপ্ত ছিল, তাহারা ঝির এই বাগোস্তি শনিয়া হাসিয়া উঠিল। ক্ষুদ্রতর বলকবালিকাগণ তাহদের দেখাদেখি, উচ্চতর হাস্য করিয়া মেঝেতে লাটোপটি করিতে লাগিল । সদ্যসনাত নলিনীর ললাট তখন ঘৰ্ম্মণসন্তু হইয়া উঠিয়াছে। সে, মনের বিস্ময় মনে চাপিয়া রাখবার প্রাণপণে চেষ্টা করিতেছে। এ গঢ় রহস্য ভেদ করিবার ক্ষমতা তাহার "এই সময়ে একটি বালিকা আসিয়া, নলিনীর হতে একটি গেলাস দিয়া বলিল, “জামাইবাবা! একটা সরবত খাও।” নলিনী গেলাসে মুখ দিয়া দেখিল, জলটা লবণাক্ত। গেলাস নামাইয়া রাখিল। তখল হঠাৎ তাহার মনে হইল, তাহার প্রতি এই পিতৃত্ব আরোপটাও জামাই ঠাট্টারই একুটা অংশ হইবে। এই মীমাংসায় উপনীত হইয়া, নলিনীর মন একটা শান্ত হইল। তাহার কুঞ্চিত প্রযে়াগল আবার সমতা প্রাপ্ত হইল। - সেই বৈঠকখানার একটা কোণে, একটা কবাট খলিবার শব্দ হইল। কবার্টের সম্মুখপিথত পদা অপসত করিয়া রামশরণ ভূত্য বলিল, “বাবা অসন—জলখাওয়া দেওয়া হয়েছে।” মলিনী চাহিয়া দেখিল, অন্দরমহলের একটি কক্ষ দশ্যমান। উঠিয়া সেই কক্ষে প্রৱেশ করিল। কক্ষের মধ্যস্থলে সন্দের কাপেটের আসন পাতা রহিয়াছে। তাহার সম্মুখে পোর রেকারী বাটী গেলাসে ভরা নানাবিধ খাদ্য ও পানীয়। নলিনী ধীরে ধীৱে আসনখানির উপর উপবেশন করিয়া জলযোগে মন দিল । এমন সময় কক্ষান্তর হইতে মলের, ঝুমঝুম শব্দ উত্থিত হইল। একটি ক্ষুদ্র বালিকা ৰাৱপথে মুখ দিয়া বলিন্স, “মেজীদ আসছেন।” নলিনী বঝিল, কুঞ্জবালা আসিতেছেন। নিজ দক্ষিণ হস্তের অস্তিন সে ভাল । কন্দ্রিরা গটোইয়া লইল। কুঞ্জবালা আসিয়া দেখন, তাহার হাতের কাজী এখন আর সগোল নহে, মাংসল নহে, পরন্তু তাহা সপোস্ট অস্থি ও শিয়ায় সমাকীর্ণ। মলের শব্দ নিকট হইতে নিকটতর হইতে লাগিল। “কি ভাই এত দিনে মমে পড়ল ?”—বলিতে বলিতে যাবতী আসিয়া কক্ষমধ্যপথলে দণ্ডায়মান হইলেন । কিন্তু তাহা এক মহত্তের জন্য মাত্র। চারি চক্ষে মিলিত হইতেই, সেই মহিলা একহাত ঘোমটা টানিয়া তপদে কক্ষ হইতে নিৰ্ম্মকান্ত হইয়া গেলেন । নলিনী দেখিল, তিনি কুঞ্জবালা মহেন ! পাশেৰৱ ৰক্ষ হইতে দুই-তিনটি রমণীর উত্তেজিত কণ্ঠস্বর নলিনীৱ কৰে অসিৰs“কি লেঃ, পালিয়ে এলি যে :"স্থ ও ন ন লৰr"অন ড়ে, ল? আমাদের শরৎ নয় ?” २