পাতা:প্রভাতকুমার মুখোপাধ্যায়ের গল্পসমগ্র.djvu/৫৫৯

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


‘সত্রী গভৰ্ণমেণ্টের চাকর নহেন।” ক্ৰোধের সহিত কিমযের ভাবও সাহেবের মনে আধিপত্য করিতে লাগিল। তিনি এতদিন চাকরি করিতেছেন, এ প্রকার তেজের কথা ত বাঙ্গালীর মুখে অদ্যাবধি শানেন মাই ! সাহেব বুঝিলেন, আজ নগেন্দ্রবাব তাঁহাকে অপমান করিবার জন্য বদ্ধপরিকর হইয়াছেন। আচ্ছা, তাহার অমোঘ- ঔষধও সাহেবের কাছে আছে। তাহা প্রয়োগ করিলে, চাকরিগতপ্রাণ বাঙ্গালী এখনই নতজান হইয়া ক্ষমাভিক্ষা করবে। এই ভাবিয়া তিনি বলিলেন, “সে কথা যাউক । আজ যে জন্য আপনাকে ডাকিয়াছি তাহা বলি। সমপ্রতি আপনার কাবকৰ্ম্মেম অত্যন্ত শিথিলতা দেখা যাইতেছে। আপনি যদি এখনই সাবধান না হন, তবে আপনার বেতন বন্ধির অনুরোধপত্র আমাকে ত প্রত্যাহার করিতে হইবেই, হয় ত আপনাকে ডিগ্রেড করিতেও বাধ্য হইতে পারি।” এই কথা বলিয়া সাহেব নগেন্দুবাবর মুখের পানে সাগ্রহে দটিপাত করিলেন—ঔষধ ধরিল কিনা। বাবর মুখ নিশ্চয়ই ভয়ে বিবর্ণ হইয়া যাইবে এবং তিনি ক্ষমাপ্রাপ্তির জন্য আকুল হইয়া উঠিবেন। কিন্তু তাহা হইল না। নগেন্দ্রবাবর মাখে, অলেপ অপে, একটু ঘণামিশ্রিত হাস্যরেখা ফটিয়া উঠিল। তিনি বলিলেন, “তাহা স্বচ্ছন্দে আপনি করিতে পারেন। কারণ উহাতে আমার কোনই ক্ষতি হইবে না।” সাহেব অধিকতর আশ্চৰ্য্য হইয়া বাঁললেন, “তাহার অথ" কি ?” “আমি স্থির করিয়াছি, কম হইতে অবসর গ্রহণ করিব। অদ্যই আফিসে আমার কমত্যাগপত্র আপনার হস্তগত হইবে । আমাকে মাসান্তে যাহাতে বিদায় দিতে পারেন, বিলব না হয়, অনুগ্রহপব’ক সে চেষ্টা করিলে অত্যন্ত বাধিত হইব।” শনিয়া, সাহেব যেন আকাশ হইতে পড়িলেন। বাঙ্গালী ! বাঙ্গালী হইয়া এত বড় চাকরিটা এক কথায় ছাড়িতে উদ্যত হইয়াছে ? নগেন্দুবাব পকেট হইতে ঘড়ি খলিয়া দেখিলেন। দেখিয়া দণ্ডায়মান হইয়া বলিলেন, “আমি আর আপনার সময় নাট করিব না। গুডমৰ্ণিং।” সাহেব অন্যমনস্ক হইয়া দাঁড়াইয়া উঠিয়া বলিলেন—“গডেমণিং।” একমাস কাটিল। আজ নগেন্দ্রবাবর চাকরির শেষ দিন। বিকাল বেলা দেখা গেল, "তাঁহার এজলাসের বাহিরে বহুসংখ্যক ইস্কুলের বালক সমবেত হইয়াছে। অনেকের হাতে বন্দে মাতরম ধনজা । তিনি বাহির হইবামার বালকেরা তাঁহাকে পম্পেমাল্যে বিভূষিত করিল। একখানা ফেটন,গাড়ী আনিয়াছিল। তাহাতে নগেন্দ্রবাবকে আরোহণ করিতে অনুরোধ করিল। কিন্তু নগেন্দ্রবাব সম্মত হইলেন না। বালকেরা জিদ করিতে লাগিল। বলিল, ঘোড়া খলিয়া আজ তাঁহাকে তাহারা টানিয়া লইয়া যাইবে। x - পথ দিয়া একজন গ্রাম্য ও একজন নাগরিক নিরক্ষর লোক যাইতেছিল। ব্যাপারখানা বঝিতে না পারিয়া গ্রাম্য ব্যক্তি-জিজ্ঞাসা করিল—“একি বাহে : বাবার সাদি নাকি ?” নাগরিক ব্যক্তি উত্তর করিল—“আমার পছন্দ হয়, বাবর জ্যাল হইছিল, আজ খালাস হইছে। আজকাল দেহি বাবদের জ্যাল থেহে খালাস হইলে এই রকমড়া করে।” এ দিকে, বালকেরা নগেন্দ্রবাবকে টানিবার জন্য বিস্তর পীড়াপীড়ি করিল, কিন্তু নগেন্দ্ৰবাব কিছতেই রাজি হইলেন না; অন্য দিনের মতই পদব্রজে গহে প্রত্যাবৰ্ত্তন • দইমাস-ব্যাপী বিচ্ছেদের পরে আজ স্বামী সীর মধ্যে পনমিলন সংঘটিত হইল। ভাদ্র, ১৩১৪ ৷ ల్ఫి