পাতা:প্রভাতকুমার মুখোপাধ্যায়ের গল্পসমগ্র.djvu/৫৬৪

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


আহারান্তে তাবল চক্রবণ করিতে করিতে মণিকা একটা বাঙ্গতি মাসিক পত্রিকা হতে সোফায় অঙ্গ ঢালিল। এখানি “তরণ" দলের কাগজ। মণিকা একটা গল্প পড়িতে আরম্ভ করিল। স্বামিপ্রেম-বণ্ডিতা এক তরণী গোপনে কিরুপ ভাবে পর্ষান্তরের সহিত প্রেম করিয়াছিল তাহারই বর্ণনা। কিছুদিন পরে গ্রীর সতীত্ব সম্বন্ধে স্বামীর মনে সন্দেহ উপস্থিত হয়, তখন সেই সেকেলে সংকীর্ণমনা নরপশটো মাঝে মাঝে অসময়ে অতকিতে গহে আসিয়া দেখিত সন্ত্রী কি করিতেছে! এই ভাবে লাঞ্ছিতা অপমানিতা তরণী অবশেষে সবামীর নামে সমাজতত্ত্বঘটিত খুব উচ্চ দরের চিন্তাপণ একটা পত্র লিখিয়া রাখিয়া, গহত্যাগ করিয়া তাহার প্রণয়ীর গহে গিয়া আশ্রয় লইল এবং তথায় নিজ নারীত্ব সফল” করিতে লাগিল। গল্পটা পড়িয়া ঘণায় মণিকার ওঠ কুঞ্চিত হইয়া উঠিল। সে মনে মনে বলিল, ঈশবরকে ধন্যবাদ, আমাদের প্রেমে আমন অভিশাপ লাগেনি।” গলেপর শেষাংশ পাঠ করিতে করিতে মণিকার চক্ষ ঘমে জড়াইয়া আসিতেছিল। গল্প শেষ করিয়া, মাসিকপত্রখানি পাবস্থ টেবিলে রাখিয়া মণিকা সেই সোফাতেই একটা গড়াইবার আয়োজন করিতেছে,—এমন সময় বাংলোর হাতায় একটা গাড়ী প্রবেশ করেবার শব্দ শুনিতে পাইল। কে আসিল ? ইনপেক্টারবাবর সী? যদবাৰ উকিলের সত্ৰীও হইতে পারেন। কিন্তু সিপড়তে পদশব্দ উঠিল—তার স্বামীর। মণিকা দেওয়ালঘড়ির পানে চাহিয়া দেখিল, বেলা সবে তখন দেড়টা। পাঁচটার পাবে স্বামী ত কোনও. দিন ফেরেন না, তবে আজ এমন অসময়ে কেন ? সে মনে মনে হাসিয়া বলিল, “ওগো, আমার নারীত্ব বিফল হয়নি। তোমার গোয়েন্দাগিরির কোনও দরকার নেই!” পদশব্দ হঠাৎ অত্যন্ত মন্দভাব ধারণ করিল। মণিকা বেশ বুঝিতে পারিল, আগন্তুক সাবধানে পা টিপিয়া টিপিয়া আসিতেছেন। সত্যই তবে এটা গোয়েন্দাগিরি নাকি ? অবশেষে সরেনবাব ভেজানো দয়ারটি আস্তে আস্তে ফাঁক করিলেন। তারপর ভিতরে আসিয়া বলিলেন, “কি গো, তুমি এখনও ঘমোওনি ? পাছে তোমার ঘুম ভেঙ্গে ঘায় সেই ভয়ে আমি পা টিপে টিপে আসছি ।”—বলিয়া তিনি হাসিতে লাগিলেন। মণিকা সপ্রেম দটিতে স্বামীর পানে চাহিল। বলিল, ”আজ হঠাৎ এমন অসময়ে যে ” “হঠাৎ সাহেবের হুকুম হল, একটা সরেজমিন তদন্তের জন্যে বাইরে যেতে হবে। ৩টের গাড়ীতেই রওয়ানা হতে হবে ।” “কোথায় ?” “তিসতা জংসন থেকে নেমে ১২ মাইল। তুমি যাবে ই চল না বেড়িয়ে আসবে। সেখানে ছোটখাট রকমের একটা ডাকবাংলা আছে।” মণিকা হাসিতে হাসিতে বলিল, “কেন, আমাকে বাড়ীতে একা রেখে যেতে তোমার অবিশ্বাস হয় নাকি ?” - “অবিশ্বাস ? তোমাকে ? তোমার প্রতি যেদিন অবিশ্বাস হবে সেদিন যেন আমার মৃত্যু হয়।”—বলিতে বলিতে তিনি পল্লীর পাশে সোফায় বসিলেন। মণিকা রাগিয়া সবামীর গালে একটা ঠোনা মারিয়া বলিল, “আহা ! কথার ছিাঁর দেখ না পরষের খাব রসিকতা হল, না ?” “রসিকতা আমি করলাম ? না তুমি করলে ?” “আমিও করিনি। দেখ, ঐ হতভাগা মাসিকপত্রের একটা হতভাগা গল্প আমার মাথার ভিতরে ঘরেছিল। আমি ষেতাম গো, তোমার সঙ্গে গিয়ে এই বাহের দেশের • পাড়া-গাঁ দেখে আসতাম। কিন্ত শরীরটে কেমনু ভাল ঠেকছে না।” কন আবার জর করবে নাকি ?” “কি জানি " --- "তাই ত" ভার মকিল করলে ষে স্নানটা আজ বাদ দিলেই হত ! কিন্তু め 等) ৩ ২১