পাতা:প্রভাতকুমার মুখোপাধ্যায়ের গল্পসমগ্র.djvu/৫৭৮

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


শতে যাবার আগে, মার সেই ছবিখানি ফল দিয়ে সাজাতেন-ব্যারাম হবার পরও কয়েকদিন তার অন্যথা হয়নি। বাবা যদি আবার বিয়ে করতেন, তা হলে কেউ ত তাঁকে বলতে পারতো না যে তিনি অন্যায় যা অধম করলেন।” লাহিড়ী গহিণী অবাক হইয়া কিছুক্ষণ সষমার মাখের পানে চাহিয়া রহিলেন। তাহার কথাগুলির তাৎপৰ্য্য মনে মনে চিন্তা করিতে লাগিলেন। তারপর বলিলেন, “তোমার বাবা, তোমার মাকে নিয়ে কত বচ্ছর ঘরকন্না করেছিলেন--কিন্তু তুমি ত বাছা, তামার স্বামীর সঙ্গ পরো দটি বছরও পাওনি।” সষমা, নীরবে নতমখে বসিয়া রহিল। কোনও উত্তর করিল না। গহিণী আরও কিয়ৎক্ষণ নীরবে বসিয়া চিন্তা করলেন। সষমার প্রতি তাঁহার মন শ্রদ্ধায় পণ্য হইয়া উঠিল। বলিলেন, “তোমার বাবা, তোমার মাকে বন্ড ভালবাসতেন তা আমরা জানতাম । তোমার মার মৃত্যুর পর কিছুদিন অবধি তিনি পাগলের মত হয়ে গিয়েছিলেন। আচ্ছা, একটা কথা আজ তোমায় জিজ্ঞাসা করি। তুমি রোজ আয়াকে দিয়ে ফল আনাও, আমরা মনে করতাম, লুকিয়ে লুকিয়ে তুমি ঠাকুর পজো করে হিন্দয়ানী বজায় রাখ। তুমিও কি তোমার বাবার মতন—” সষম ধীরে ধীরে বলিল, “আমার স্বামীর একখানি ফোটােগ্রাফ আমার কাছে আছে ।” গহিণী আরও কিয়ৎক্ষণ নীরকে বসিয়া রহিলেন। তার পর বলিলেন, "আচ্ছা মা রাত হল, শোও এখন। এ বিষয়ে আর কখনও আমি তোমায় অনুরোধ করবো না, তুমি আমার উপর রাগ কোর না মা।” “না জোঠাইমা, রাগ করবো কেন ? আপনি ত ’ভাল ভেবেই বলেছিলেন। আপনি আমার অপরাধ নেবেন না, জ্যেঠাইমা।”—বলিয়া সষমা গলায় আঁচল দিয়া ভূমিষ্ঠ হইয়া তাঁহাকে প্রণাম করিল। -. জ্যেঠাইমা চলিয়া গেলে সৃষমা বারে খিল বন্ধ করিয়া, যে দেরাজে, তার মত স্বামীর ছবি থাকিত, উহা খলিল। ছবিখানির চারিদিকে অদ্য প্রাপ্ত তাজা গোলাপ্ল ফলগুলি তুলিয়া লইয়া সষমা জানালা গলাইয়া ফেলিয়া দিল; বস্ত্রাঞ্চলে ছবিখানি বেশ করিয়া মছিয়া, উহা মাথায় ঠেকাইয়া বলিতে লাগিল—“তুমি আমায় ক্ষমা কর—ক্ষমা কর—আমি । ত জানতাম না যে ও ফলগুলোর সঙ্গে অলক্ষ্যে একজনের বাসনার কালি মাখানো আছে ।” দিব্যদটি জ্যৈষ্ঠ মাস। কলিকাতা পটলডাঙ্গায় একটি ছাত্রাবাসে আজ মহা উৎসব লাগিয়াছে। ব্যাপারটা এই— সরেন্দ্রকুমার চট্টোপাধ্যায় ম্যাট্রিক ও আই-এ পরীক্ষায় প্রথম বিভাগের উচ্চস্থান অধিকার করিয়াই পাস হইয়াছিল, কিন্তু বি-এ পরীক্ষার মনোবিজ্ঞান বিভাগে সে একেবারে উচ্চতম স্থান অধিকার করিয়া বসিয়াছে। প্রথম হইবার খবর যে দিন বাহির হইল, সে দিন ছিল বুধবার। সরেনের পিতা জীবিত নাই—দেশে, পাবনা জেলায় চৌরীপুর গ্রামে, তাহার জননী আছেন; সরেনের পিতৃব্যের অভিভাবকতায় তিনি বাস করেন। বাড়ীর অবস্থা তেমন ভাল নহে। তাই বি-এ পরীক্ষা, কবে শেল্প হইয়া গেলেও সরেন কলিকাতায় থাকিয়া প্রাইভেট টিউশনি করিতেছে। সরেনের বয়স তেইশ বৎসর, দিব্য সন্ত্ৰী চেহারা, সদাই হাস্যবদন। সনে আজিও অববাহিত, - \లి,