পাতা:প্রভাতকুমার মুখোপাধ্যায়ের গল্পসমগ্র.djvu/৫৮১

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


পরষ। প্রবীণ ভদ্রলোক যতীনবাবকে দেখিয়া বলিলেন, “এ বাসায় সরেন্দ্ৰবাব বলে কেউ থাকেন কি ? সুরেন্দ্রনাথ চ্যাটাজী ।” যতীন প্রশেনর উত্তর না দিয়া জিজ্ঞাসা করিল, “আপনারা কোথা থেকে আসছেন ?” “কৃষ্ণনগর থেকে।” শনিবামাত্র যতীনের দেহ রোমাঞ্চিত হইয়া উঠিল। উত্তর করিল, “সরেনবাব ত এখন বাসায় নেই, বেরিয়েছেন।” “কখন ফিরবেন তিনি ?” “সন্ধ্যার আগেই আসবে বোধ হয়।” “তাঁর ঘরে বসে আমরা কি অপেক্ষা করতে পারি ?” “নিশ্চয়। তাঁর ঘর বোধ হয় তালাবন্ধ আছে। সিড়ি দিয়ে উঠে দোতলায় ডানH দয়া করে সেখানে বসে অপেক্ষা করুন, আমি সনান সেরে - 1” “আচ্ছা থ্যাঙ্কস"—বলিয়া বাব দুইজন সিড়ি দিয়া উপরে উঠিয়া গেলেন। , যতীন তাড়াতাড়ি সমান সারিয়া নিজ কক্ষে গিয়া দেখিল, বাব দইটি দইখানি চেয়ার দখল করিয়া বসিয়া আছেন। যতীন মাথায় শাক তোয়ালে ঘষিতে ঘষিতে বলিল, “আপনাদের এক এক পেয়ালা চা দিতে পারি কি ?” - প্রবীণ বাবটি বলিলেন, “দোকানের চা ? না, থাংকস।” - যতীন বলিল, “দোকানের চা নয়। ঐ যে স্টোভ রয়েছে, আমি নিজে তৈরী করবো ।” প্রবীণ ভদ্রলোক সঙ্কুচিত হইয়া বলিলেন, “আবার কাট করবেন আপনি ?” যতীন বলিল, “স্টেভি ত আমায় জবালতেই হবে। আমি একটা খাব কিনা!" বাবটি বলিলেন, “আচ্ছা, তা হলে—” যতীন টেীভ জবালিয়া চায়ের জল চড়াইয়া দিয়া, নিজ তত্ত্বপোষের প্রান্তে আসিয়া বসিল। বাবটি জিজ্ঞাসা করিলেন, “আপনার নাম কি ?” “স্ত্রীযতীন্দ্রনাথ চক্লবত্তীর্ণ।” "এখানে পড়াশুনো করেন বঝি ?” “আজ্ঞে হ্যাঁ,-সিটি কলেজে বি-এ পড়ি। এবার ফোর্থ ইয়ার।” “বাড়ী কোথায় আপনার ?” “কোথায় ?” “মাধবপর প্রামে।” একটা থামিয়া যতীন বলিল, “যদি বেয়াদবি না মনে করেন, মশাইয়ের নামটি জানতে পারি কি ?” “আমার নাম শ্ৰীসঞ্জীবচন্দ্র বন্দ্যোপাধ্যায়। আমি কৃষ্ণনগরে দ্বিতীয় মনেসেফের পেস্কার। এটি আমার ভাগনে নাম সন্ধীরকুমার মাখযো। ইনি সম্প্রতি ওকালতী পাস করে কৃষ্ণনগরেই টিস আরম্ভ করেছেন। এর পিতার নাম আপনি শনে থাকবেন বোধ হয়, তিনি কৃষ্ণনগরের খাব নামজাদ উকীল, রামজীবন মাখয্যে।” গত কল্যকার আসরে, সংবাদপত্র হইতে পঠিত নামটা যেন রামজীবন বলিয়াই যতীনের মনে হইল। সন্দিগ্ধস্বরে বলিল, “রামজীবন ? রামজীবন ? আচ্ছা, তাঁরই মেয়ে কি এবার ম্যাটরিকে ফাট হয়েছেন ?" সঞ্জীববাব বিনীত হাস্য করিয়া বলিলেন, “হ্যাঁ-কুন্দমালা—আমার ভাগনী।” যতীনের সব্বাঙ্গ দিয়া একটা রোমাঞ্চ বহিয়া গেল। কি আশ্চৰ্য্য, অতুলবাব কি তবে একটা ছদ্মবেশী যোগী নাকি? মানুষের দিব্যদটি সত্যই কি তবে থাকিতে পারে? হিন্দুধৰ্ম্ম কি তবে নিতান্ত বজর কি নয় ? সে মনে মনে বলিল, “নাঃ, সন্ধ্যেరి\లిe