পাতা:প্রভাতকুমার মুখোপাধ্যায়ের গল্পসমগ্র.djvu/৫৮৮

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


ছাড়া দুইটি ছোট ভাই এবং একটি অবিবাহিতা ভগিনীও বৰ্ত্তমান। সাংসারিক অবস্থার তারতম্য সত্ত্বেও, অমরেন্দ্র ও সুকুমারের মধ্যে বাল্যকাল হইতে বন্ধত্ব অত্যন্ত নিবিড়। বিদ্যালয়ে তাহারা একই শ্রেণীতে পড়িত। প্রবেশিকা পরীক্ষায় কৃতকাষ্য হইতে না পারিয়া, অমরেন্দ্র পড়া ছাড়িয়া, পিতার হউসে প্রবেশ করে। স্কুমার বি-এ পাস করিয়া এম-এ পড়িতেছিল, এমন সময় তাহার পিতৃবিয়োগ ঘটিল, কাজেই উদরান্নের জন্য বাধ্য হইয়া তাহাকে পড়া ছাড়িতে হইল। বাপের আফিসের বড়সাহেব অনুগ্রহ করিয়া তাহাকে চাকরী দিলেন;–সেই চাকরীই সে করিতেছে। আর একটি কথা বলিলেই ইহাদের সংক্ষিপ্ত পরিচয় শেষ হয়। অমরেন্দ্রনাথ প্রকাশ্যভাবে পিথর করিয়াছে, তাহার ভগিনী সাল্ত্বনার সহিত সরুমারের বিবাহ দিয়া নিজেদের বন্ধত্ব পাকা করিয়া লইবে, এবং তাহার মনের গোপন অভিপ্রায়, বিবাহান্তে স্কুমারকে তার অল্পবেতনের কেরাণীগিরি ছাড়াইয়া নিজ ব্যবসায়ে শান্য অংশীদার করিয়া লইবে । কিন্তু সান্ত্বনা অগ্রজের মনের এই গোপন অভিপ্রায় অবগত ছিল না। এখন সে আর নিতান্ত ক্ষুদ্র বলিকা নহে, তাহার বয়স হইয়াছে চতুদশ বর্ষ। এ বিবাহের প্রস্তাব হওয়া অবধি সে মনঃক্ষণ হইয়া আছে। স্কুমারদের বাড়ী সে কতবার গিয়াছে। সে বাড়ীতে বিদ্যুৎ নাই—সতরাং ফ্যান নাই, এবং তেলের আলো জলে। আসবাবপত্র কুশ্রী এবং বিরল। দাস-দাসী ও অশন-বসনের ব্যবস্থাও তাহার পিতৃগৃহের তুলনায় অত্যন্ত হীন। তাই এ বিবাহে তার কিছমাত্র উৎসাহ নাই। ফলে সকুমারকে দেখিলেই তাহার গা জবলিয়া যায়। এ পয্যন্ত মুখ, ফুটিয়া সে এ কথা কাহাকেও না বলিলেও, তার করিয়া, ওটা বড় গ্রাহ্য করেন না। বিবাহ অগ্রহায়ণ মাসের সরতেই হইবে ইহার. সিথর হইয়া আছে। ज्रिन `ಬ್ಜೆಕ್ಸ್ অট্টালিকা। ফটকের দ দুইটি ঘর একটিতে একজন বারবান থাকে, অপরটিতে মালী বাস করে। গহের নিনতলের ঘরগুলি প্রায় সবই খালি মাত্র একটিতে বাড়ীর সরকার থাকে। বাটীর পশ্চাতে কয়েকটি মৎকুটীরে কয়েকজন দলিয়া-জাতীয় লোক বাস করে, তাহারা গহস্বামীর পালকীবাহক। বিতলে ." જ ન - f ; : * ~ * রতলে গহপবামী তাঁহার একমাত্র কন্যাকে লইয়া বাস করেন, তাঁহার আর কেহ নাই। - বিতলে পাবদিকের বারান্দায় একটি চেয়ারে পড়িয়া গহস্বামী পেন্সনপ্রাপ্ত সব-জজবন্ধ হরিশ করবাব মধ্যাহ্ন-ভোজনাতে সংবাদপত্র পাঠ করিতেছেন। - একটি ছোট টেবিলে রূপার ডিবায় দই খিলি পাণ। অপর পাবে মেঝের উপর তাঁহার গড়গড়ি রহিয়াছে—সটকা-নলটি চেয়ারের হাতলের উপর পড়িয়া। ভদ্রলোক মকে মুঝে কাগজ নামাইয়া নলটি তুলিয়া লইয়া কিঞ্চিৎকাল ধমপান করিতেছেন আবার নল রাখিয়া কাগজ উঠাইয়া পাঠে মন দিতেছেন - 2 చ్గా“ಕ್ಗ বছরের একটি সন্দরী মেয়ে কক্ষ হইতে বাহির হইয়া আসল। তার কুঞ্চিত কেশরাশি পিঠের উপর পড়িয়ছে—পরিধানে একখানি দেশী ডরে শাড়ী, গায়ে শিমপাতা রঙের ফ্ল্যানেলের একটি হাপ-হাতা ব্লাউজ। রঙটি যাহাকে বলে দধে আলতা, চক্ষ দইটি বড় বড়, দেহটি যৌবন-লাবণ্যে টলটল করিতেছে। মেয়েটি বন্ধের চেয়ারের কাছে আসিয়া বলিল, “বাবা, আপনাকে আর দটো পাণ দিয়ে যাব কি ?” হারশঙ্করবাব মুখ তুলিয়া বলিলেন, "দিয়ে কোথা যাবি ? শতে?" - “না বাবা, আমি ছাদে যাব চল শকুতে।” - "তা যাবি যা, কিন্তু দিনের বেলায় ঘমেসনে, মা। শীতকালে দিনে ঘািমলে শরীর খারাপ হয়।” O3& ,