পাতা:প্রভাতকুমার মুখোপাধ্যায়ের গল্পসমগ্র.djvu/৫৯৯

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


সাহেব আসবার দিন সেইটে বিতরণ কর,—আর ফলার সাহেবকেও এক কাপি পাঠিয়ে দাও । এই ফরিদসিংহের সরকারী উকীল, মিউনিসিপ্যালিটির চেয়ারম্যান হয়েও অভিনন্দন দেন নি—তাঁকে নিয়ে গোলযোগ চলছে। চাই কি তাঁর পদটা পেয়ে যেতে পার।” সবোধ উত্তর না করিয়া, কপালে হাত দিয়া বিষম চিন্তায় নিমগ্ন হইলেন। জগৎপ্রসন্ন পবেমত পরিহাসের সবরে বলিয়া যাইতে লাগিলেন—“নাও, কাগজ কলম বের কর। আমি না হয় তোমায় সাহায্য করছি। ছেলেবেলায় আমার কবিতা লেখা SR=ITĩ fgãĩ ! fş R'3ĩ <IRIrs ##ĩ xIRI ? Hail Fuller- Lord of East Bengalতার পর, কি মিল করা যায় বল দেখি ?" সবোধ উত্তর না করিয়া পাববৎ ভাবিতে লাগিলেন। জগৎ বলিলেন, “তার চেয়ে <āş Hail Bamfylde Fuller—Lord of half Bengal— so of old foot করা যায় কি ? Bengal-এর সঙ্গে 'all', 'call', 'fall" অনেক মিলই ত আছে। হাঁ zΖgETE WHail Bamfylde Fuller–Lord of half Bengal, How glad are Dinajshahi people all То—to— তার পর কি হে? বল না। সব কবিতাটাই আমি রচনা করব—আর তুমি ফাঁকি দিয়ে গবর্ণমেণ্ট প্লীডার হবে ?" সবোধ বলিলেন, “না হে—কবিতার কাজ নয়। আমি আর একটা কথা ভাবছি।" "মনে হয়েছে। To welcome thee to their most ancient town, The worthy representative of the Crown. না। Worthy’ কেটে কর "glorious—সবটা শোন দিকিন—লিখে নাও— Hail Bamfylde Fuller—-Lord of half Bengal, How glad are Dinajshahi people all To welcome thee to their most ancient town, The glorious representative of the Crown— লিখে ফেল—লিখে ফেল। এমন ভাবরত্ব হারিয়ে গেলে আর পাওয়া যাবে না।” সবোধ বললেন, “দেখ, আমায় গোটা পঞ্চাশ টাকা ধার দিতে পার?” জগৎ কৃত্রিম রোষ প্রদর্শন করিয়া বলিলেন, “আচ্ছা বেল্লিক বেরসিক তুমি ত হেt হচ্ছে কবিতার চচ্চর্ণ। এমন সময় বললে কিনা টাকা ধার দিতে পার ? যাও, আমি তোমার কবিতা রচনায় সাহায্য করব না।” সবোধের মখে হাসি নাই। তাঁহার ললাট কুঞ্চিত। বলিলেন, “না ঠাট্টা নয়। গোটা পঞ্চাশেক দাও । সামার মাথায় একটা মতলব এসেছে।” “কি মৎলবটা শুনি “ "বড় দাঁও পেয়েছি। বড় আইডিয়াটাই আমার মাথায় তুমি ঢুকিয়ে দিয়েছ। গভর্ণমেণ্টকে ঠকিয়ে আমি একটা সবিধে করে নেবই নেব। দেখি এসপার কি ওসপার।" জগৎ একটা বিসিমত হইয়া বলিলেন, “কি করতে চাও ” “ফলার সাহেবকে অভ্যর্থনা করব।” “কি পাগল! কে তুমি ঃ রাজা নও, জমিদার নও, বড় চাকরিও কব না-তোমার অভ্যর্থনা ফলার সাহেব নেবেনই বা কেন ? তোমায় কি ম্যাজিস্ট্রেট সাহেব টেশনে যেতে নেমন্তন করবেন? দরবারের কাড পাবে ই প্রাইভেট ইন্টারভিউ করবার স্যোগ পাবে ?” “নাই পেলাম। কিন্তু আমি এমন পন্থা অবলম্বন করব, যাতে ফলার সাহেবের নজরে পড়ে যাবই যাব। তা হলেই কায্যোদ্ধার।” জগৎবাবর মুখ হইতে হাস্যপরিহাসের ভাব এখন তিরোহিত । বলিলেন, “কি 8