পাতা:প্রভাতকুমার মুখোপাধ্যায়ের গল্পসমগ্র.djvu/৬০২

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


"তাঁহাতে তিনি উচ্চকণ্ঠে বলিয়াছিলেন—“ভাই বাঙালী—মায়ের আগে এ খড়াঘাত-এ রধিরপাত—যতদিন এর প্রতিবিধান না হবে, ততদিন যেন কোন বিলাস বিভ্রমে আমরা মগন না হই”—ইত্যাদি। সবোধচন্দ্র নীরব রহিলেন । বালকেরা অনেক কাকুতি মিনতি করিল। একজন বলিল, “আপনার পায়ে ধার-এ সব ভেঙ্গে ফেলন।” সবোধচন্দ্র বলিলেন, "এত খরচ করে করলাম, সব নষ্ট হবে ?" বালকেরা বলিল, “আপনার যা খরচ হয়েছে বলন,—আমরা স্কুল থেকে চাঁদা তুলে, নিজেদের জলখাবারের পয়সা থেকে বাঁচিয়ে আপনার ক্ষতিপত্রণ করে দেব। অনুমতি করন, আমরা নিজে এ সব ভেঙ্গে ফেলি।” সবোধচন্দুের বকের মধ্যে হঠাৎ একটা ব্যথা বাজিয়া উঠিল। কিন্তু তাহা মহত্তের জন্য মাত্র। একটা ক্ৰোধের ভাণ করিয়া বলিলেন, ”খাব যাও, বিরক্ত কোরো না। সকল কাজেই তোমরা খোঁচা দিতে শিখেছ! মাও লেখাপড়া করগে।” বালকেরা তখন হতাশ হইয়া ফিরিয়া গেল। সবোধ ভাবিলেন—এ সকল বালক যেরূপ দদৰ্শনত, কি জানি রালে আসিয়া যদি সব ভাঙ্গিয়া দেয় ? তৎক্ষণাৎ পোষাক পরিয়া পলিশ সাহেবের কুঠীর অভিমুখে ছয়টিলেন। সেখানে পৌছিয়া শুনিলেন, সাহেব বাড়ী নাই—ম্যাজিষ্ট্রেট সাহেবের কুঠীতে গিয়াছেন। সবোধুবাব ম্যাক্রিস্ট্রেট সাহেবের বঙ্গলায় গিয়া পলিস সাহেবের নিকট নিজ কাড় পাঠাইয়া দিলেন। অবিলবে তাঁহার আহবান হইল। . ম্যাজিষ্ট্রেট ও পলিস সাহেব একত্র বসিয়া ছিলেন। সরোধবাব গিয়া উভয়কে সেলম কুবিযা দাঁড়াইলেন। পলিস সাহেব বলিলেন, “কি বাব ? কি চাই ” “হজের কাল লাটসাহেল আসিবেন বলিয়া আমি আমার বাড়ী কিঞ্চিৎ সাজাইয়াছি। লোক-পরম্পরায় শুনিলাম, নকুলের ছেলেরা রাষ্ট্রে অসিয়া সমস্ত ভাঙ্গিয়া দিবে।” পলিস-সাহেব বলিলেন, “আপনিই কি আজ বাজি পোড়াইবার অনুমতি চাহিয়াছিলেন ?” - "হাঁ হজের, আমিই ।” ম্যাজিষ্ট্রেট সাহেবকে পলিস সাহেব বলিলেন, "ইহারই কথা আপনাকে বলিতেছিলাম।” সবোধকে বলিলেন, “আচ্ছা, সে জন্য আপনার কোনও চিন্তা নাই। আপনার বাড়ীর সম্মখে সমস্ত রাত্রি পাহারা দিবার জন্য আমি এখনই চারিজন কনেটবল হুকুম করিতেছি।” ম্যাজিস্ট্রেট সাহেব সিমতমুখে জিজ্ঞাসা করিলেন, “আপনি উকীল ?” “হাঁ হজের গ “বেশ। আপনার রাজভক্তি দেখিয়া সন্তুষ্ট হইলাম। আপনি কল্য দরবারে উপস্থিত হইতে ইচ্ছা করেন ?” সবোধ সবিনয়ে বলিলেন, "হজর, সে ত আমার সৌভাগ্যের কথা।” “অলরাইট। আমি আপনাকে নিমন্ত্ৰণ কাড় দিতেছি। আপনার নামটি কি ?” সবোধ নাম বলিল। ম্যাজিস্ট্রেট সাহেব একখানি কাড লইয়া, স্বহস্তে নাম পরে, করিয়া, তাঁহাকে দিলেন। সবোধবাব ঝাঁকয়া সেলাম করিয়া, কাড়া লইয়া, মহোল্লাসে গহে প্রত্যাবত্তন করিলেন | .nদন যথাসময়ে লাটসাহেবের আগমন হইল। কাছারির পোষাক পরিয়া, সবোধ নিজ দ্বারদেশে দাঁড়াইয়া ছিলেন। লাটসাহেবের ফেটন গাড়ী ব্রুমে নিকটে আসিয়া পে%ছিল। কামসনর সাহেব ও శాఖ সাহেব সেই গাড়ীতে ছিলেন। ফলোর