পাতা:প্রভাতকুমার মুখোপাধ্যায়ের গল্পসমগ্র.djvu/৬২১

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


ইহা শনিয়া ছাত্র দুইজন সাদরে তাঁহাকে বাসায় লইয়া গেল। উপরতলায় একটি কক্ষ খালি ছিল। সেখানে তাঁহাকে স্থান করিয়া দিল। জল আনাইয়া তাঁহার হস্তপদাদি ধৌত করাইয়া দিল। তাঁহার সন্ধ্যাহিকের ব্যবস্থা করিল। বাজার হইতে ফলমল আনাইয়া তাঁহাকে জলযোগ করাইল, অবশেষে একটি নতন হকা কিনিয়া আনিয়া জল ভরিয়া তামাক সাজিয়া দিল । কাত্তিকবাব বললেন, "ভট্টাচায্য মশায়, আপনি রাত্রে কি খান ? ভাত, রাটি না লচী " “চারটি ভাতই খাব এখন i ভাল কথা, এখানে কাছে কোথাও গয়লাবাড়ী আছে ? পয়সা দিচ্ছি, আধসের দধে অনিয়ে ভাল করে জাল দিইয়ে দাও যদি ত হয়। আমি আফিম খাই কিনা। একট দধ না হলে প্রাণ বাঁচে না।” শরৎবাব বললেন দধের বন্দোবস্ত হইবে, পয়সা দিতে হইবে না। দই তিন জন পরামর্শ করিয়া, নিজ নিজ দধে একত্র করিয়া ক্ষীরের মত করিয়া জনাল দিবার জন্য ঠাকুরকে বলিয়া আসিল। সম্পণে সেকেলে পরম হিন্দ ব্যাথ ভট্টাচাৰ্য আসিয়াছেন। বাসার ছেলেরা তাঁহাকে ঘিরিয়া বসিয়া শাস্ত্র সম্বন্ধে নানাবিধ প্রশন করিতে লাগিল। কেহ বলিল, উপনিষদের মধ্যে কোনটি সব্বাপেক্ষা প্রাচীন ? কেহ বলিল, সাংখ্যকার যে বলিয়াছেন “ঈশবরাসিন্ধেঃ প্রমাণাভাবাৎ"-ইহা হইতে কি নিরীশ্ববরবাদ সমথিত হইতেছে ? কেহ বা বলিল, "ম্যাক্সমুলার যে বলিয়াছেন, দেড় হাজার বৎসর মাত্র পাবে রামায়ণ রচিত হইয়াছিল, এ সম্ভবন্ধে আপনার মত কি ?" ভট্টাচাৰ্য্য মহাশয় সপচটই সকলকে বলিলেন, সংস্কৃত তাঁহার বিশেষ জানা নাই। বাল্যকালে টোলে প্রবেশ করিয়া কিছ দিন কলাপ ব্যাকরণ অধ্যয়ন করিয়াছিলেন। রঘর দ্বিতীয় সগ আরম্ভ করিতেই পিতৃবিয়োগ হয়--সতরাং টোল ছাড়িয়া অথোপাজনে মন দিতে হইল। যজন যাজন দশকমা করিবার মত সামান্য বিদ্যা মাত্র তাঁহার আছে —তাহাতেই কোন ক্ৰমে জীবিকা নিববাহ করিয়া থাকেন –দশনাদি শাস্ত্র জানা না থাকিলেও, গলপ ও উদ্ভটশেলাক ভট্টাচাৰ্য্য মহাশয়ের বিস্তর জানা ছিল। তাহাতেই আসর মাত করিয়া তুলিলেন। ছাত্রেরাও তাঁহার অহমিকাশন্য সরল ব্যবহারে বড় প্রীত । হইল। এইরপে কিছুক্ষণ কাম্ভিল, নিম্নে শঙ্খধ্বনি হইল । ভট্টাচায্য মহাশয় বলিলেন, “ওকি ? এখন শকি বাজে কোথায় ? কার ছেলে হল নাকি ?” একজন বলিল, ”খাবার ঠাই হয়েছে, তাই বামন শাক বাজালে। আসনে ভটচাষ মশায়—গা তুলন।” সকলের সঙ্গে ভট্টাচাৰ্য্য মহাশয় নিম্নে অবতরণ করলেন। রান্নাঘরের নিকট বিস্তৃত ভোজনকক্ষ। ব্রাহ্মণেরা এক সারি এবং অলপ দরে কায়স্থগণ এক সারিতে বসিত। দুই সারিতে দশ রারোজন খাইতে বসিল । ব্রাহ্মণ ছেলেদের সহিত এক সারিতে না দিয়া, একটু তফাতে ভট্টাচাৰ্য্য মহাশয়ের জন্য স্বতন্ত্র আসন নিন্দিটি হইয়াছিল। ভোজন আরম্ভ হইল । বামন ঠাকুরও ছমটাছটি করিয়া কাহাকেও ডাল, কাহাকেও তরকারী পরিবেষণ করিতে লাগিল। খাইতে খাইতে ভট্টাচাৰ্য্য মহাশয় বলিলেন, “শ্যনেছিলাম যে এ বাসায় শিউড়ী জেলার একটি ছাত্র আছেন—কই তাঁর সঙ্গে ত আলাপ হল না।” - কয়েকজন রামনিধিবাবকে দেখাইয়া বলিল, “এই যে, এরই বাড়ী শিউড়ী জেলায়। কোথায় ছিলেন রামনিধিবাব ? আপনাদের ওদিক থেকেই ভটচাষ মশায় এসেছেন।” রামনিধিবাব ভট্টাচাৰ্য্য মহাশয়ের পানে একবার মাত্র চকিত দটিপাত করিয়া মনোযোগের সহিত আহারে প্রবত্ত হইলেন। ২৬