পাতা:প্রভাতকুমার মুখোপাধ্যায়ের গল্পসমগ্র.djvu/৬৩৭

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


স্থানীয় ইউরেশিয়ান পোটমাস্টার ছাড়া, আর কোনও সাহেবই আসেন নাই। কমিশনর সাহেব লিখিয়াছিলেন, তাঁহার পত্নী পীড়িতা বলিয়া আসিতে অক্ষম । জজ সাহেব লিখিয়াছিলেন, সেই সময় পথানান্তরে তিনি অন্য নিমন্ত্রণ পর্বেই গ্রহণ করিয়া ফেলিয়াছিলেন বলিয়া দুঃখের সহিত আসিতে অক্ষম। ম্যাজিষ্ট্রেট সাহেব নিমন্ত্রণ পত্রের কোনও উত্তর দেওয়াও আবশ্যক মনে করেন নাই। ডাক্তার সাহেব প্রথমে আসিবেন বলিয়া নিমন্ত্রণ গ্রহণ করিয়াছিলেন। কিন্তু বিবাহের দিন একটি রৌপ্য নিমিত ফোটো ফ্রেম বরকন্যাকে উপহার পাঠাইয়া লিখিলেন, হঠাৎ তাঁহার গহে অতিথিসমাগম হওয়াতে আসিতে পারলেন না। শোর-শ্যাম্পেনের বাক্সগুলি অন্ধমল্যে দোকানে ফেরৎ দেওয়া হইল। " নবদম্পতি ভুবনেশ্বর ডাকবাংগলায় “মধচন্দ্র” যাপন করিবেন স্থির করিয়াছিলেন। ক’ফেতি (মাঙ্গল্য) বটির মধ্যে শকটরোহণ করিয়া অপরাহুকালে তাঁহারা যাত্রা করিলেন।

  • ঘটনাটি অবিকল সত্য ! কটক হইতে প্রকাশিত, শ্ৰীষকে ক্ষীরোদচন্দ রায় চৌধুরী সম্পাদিত ২০শে জলাই ১৯o৭ তারিখের star of Utkal নামক সংবাদপত্রে A Christian স্বাক্ষরিত একখাঁন চিঠিতে উপরিউক্ত ঘটনাটি প্রকাশিত হইয়াছিল। -

मभन्न *ब्रिट्राकृझ ॥ थङाबखनि “মিটার দাস—মিটার দাস—বেড়াইতে যাইবেন ?”—মহাতি মহাশয়ের কনিষ্ঠ পত্র পল আসিয়া বলিল, "চলন না, একট বেড়াইয়া আসি।" রামনিধিবাব বললেন, “কোন দিকে যাইবে?" *মহানদীর তীরে। এমন সন্দের প্রাতঃকাল, ঘরে বসিয়া নষ্ট করিতে আছে ?” রামনিধি উঠিয়া বলিলেন, "চল।” উভয়ে প্রভাতবায় সেবনাথ বহির্গত হইলেন। টেলিগ্রাফ আফিসের সম্মুখ দিয়া, ইংরাজপাড়া ভেদ করিয়া, নদীতীরে উপস্থিত হইলেন। নদীর জল শুকাইয়া মধ্যস্থল আশ্রয় করিয়াছে। দরে ধোপারা কাপড় কাচিতেছিল। উভয়ে বালুচর অতিক্ৰম করিয়া সেখানে গিয়া ধোপাদের কাপড় কাচা দেখিতে লাগিলেন । তীরে বাঁশ পতিয়া, কাপড় দিয়া ঘেরিয়া, ধোপারা বায়রোধাথ গহ নিমৰ্পণ করিয়াছে—তাহার মধ্যে বহৎ বহৎ চল্লেীর উপরে ক্ষারজলে মলিনবস্ত্র সিদ্ধ হইতেছে। পল বলিল, “উঃ! এ ধোপাদের রং কি কালো !" রামনিধি বলিলেন, “তোমার চেয়ে কালো হইতে পারে। আমার চেয়ে আর বিশেষ কি এমন কালো, পল ?” রামনিধির কন্ঠস্বরে যেন একট তিক্ততা মিশানো ছিল। তাই পল একট লজিত হইয়া বলিল, "না-না, আমি সে ভাবে বলি নাই। আপনি রাগ করিতেছেন কেন ?" রামনিধি বলিলেন, “না, রাগ করি নাই। একটা কথা বলি। জান পল. আমিও একজন ধোপা ?” : পল বলিল, “না আপনি পরিহাস করিতেছেন।” “না, পরিহাস নয়, সত্য কথা। আমিই নিজে কখনও কাপড় কাচি নাই বটে, কিন্তু আমার পিতা, পিতামহ প্রভৃতি এইরুপে নদীতীরে কাপড় কাচিয়া দিনপাত করিয়াছেন।” পল গম্ভীর হইয়া বলিল, "আঁমি তাঁহা কিছই অগৌরবের বিষয় বলিয়া মনে করি না। দৈহিক পরিশ্রম করিয়া জীবিকা অজ্ঞজন করিতে হয় বলিয়া কাহারও লজ্জিত হইবার কারণ নাই।" রামনিধি বলিলেন, "ইহা নব আবিকৃত নীতিশাসের কথা। কিন্তু এখনও আমাদের দেশে—এবং য়ুরোপেও-কায়িক পরিশ্রমে জীবকা অজ’ন করাটা লড়জার কথা বলিয়া পরিগণিত।" পল বলিল, “তাহা সত্য বটে। আপনি, আমি, নব্যযগের অন্যান্য শিক্ষিত ব্যক্তিগণ, 8 R -