পাতা:প্রভাতকুমার মুখোপাধ্যায়ের গল্পসমগ্র.djvu/৬৫৪

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


আমাকে দিবে না ? বল—হাঁ। বল—বল।” অশ্রুসিক্ত সবরে লীলা বলিলেন, "হাঁ।” হেম তখন লীলার মুখখানি তুলিয়া সযত্নে আশ্রম মছাইয়া দিল। তাহার পর, প্রিয়ার অধরবন্ত হইতে প্রণয়ের প্রথম কুসমে নিজ অধর দ্বারা চয়ন করিয়া লইল । অন্ধ ঘণ্টা কাটিল। বাহিরে পদশব্দ শনা গেল -দবার খালিয়া মিসেস রায় ও অতুল প্রবেশ করিলেন। হেম, লীলার সহিত বাহস বন্ধ হইয়া হাস্যমন্খে ধীরে ধীরে অগ্রসর হইয়া বলিল, "মিসেস রায়, অদ্য আপনার কন্যা আমাকে পতিরাপে গ্রহণ করিতে স্বীকৃতা হইয়াছেন। আমাদিগকে আশীব্বাদ করন " এ কথা শুনিয়া রায়-গহিণী কয়েক মহন্তকাল নীরবে দণ্ডায়মান রহিলেন। তাঁহার মুখে হাসি ফটিয়া উঠিল, চক্ষ জলভারক্রান্ত হইয়া আসিল । অতুল শুনিয়াই দুই হাত ছড়িয়া লাফাইয়া উঠিয়া বলিল—“Don't—don't Mrs. Roy—don't bless them. Stop thief—fire--murder—" অতুলের রঙ্গভঙ্গের বিষয় সকলে অবগত ছিলেন। মিসেস রায় হাসিয়া জিজ্ঞাসা করিলেন, “কি হইয়াছে ? ব্যাপার কি ?" - অতুল উত্তেজিত সবরে বলিল, “মিসেস রায়, ঐ হেমকেই জিজ্ঞাসা করন। জাহাজ ছাড়িবার আগেই toss up হইয়াছিল—আমিই জিতিয়াছিলাম। আমারই অধিকার মিস রায়কে বিবাহ করিবার। বলক হেম!” হেম ও লীলা মদ হাসিতে লাগিলেন। মিসেস রায় বলিলেন, “কিন্তু তুমি ত লীলাকে woo কর নাই। যে woo করিয়াছে সে win করিয়াছে।” অতুল ঘাড় বাঁকাইয়া, গালের উপর একটি অঙ্গলি পথাপন করিয়া চিন্তা করিয়া কহিল, "সে কথা ঠিক। ঐটা আমার বড়ই ভুল হইয়া গিয়াছে। কথামালার খরগোস ও কচ্ছপের গল্প হইল আর কি ! ঘুমাইয়া পড়িয়া আমি হারিয়া গেলাম। আচ্ছা তবে to feist All right, good luck to you Hem, old chap. My best, my very bestest congratulations –zfSTT CITT ITS fIT ETF offe দিতে লাগিল। দশ হাজার মাইল নহে—চারশত মাইল অতিক্ৰম করিয়া হেম দই মাস পরে আলার লন্ডন হইতে এডিনবরায় ফিরিয়া আসিল। শুভদিনে শুভবিবাহ সম্পন্ন হইয়া গেল। বলা বাহুল্য অতুলই "নিতবর" হইয়াছিল। [ আষাঢ়, ১৩১৬ ] রসময়ীর রসিকতা প্রথম পরিচ্ছেদ ক্ষেত্রমোহনবাবর অষ্টাদশবষব্যাপী দাম্পত্যজীবন সীর সহিত যন্ধবিগ্রহ ও সন্ধি করিতে করিতেই কটিয়াছে। এমন রণরঙ্গিণী সত্ৰী বংগদেশে প্রায়ই দেখা যায় না। ক্ষেত্রমোহনের বয়স এখন চল্লিশ বৎসর। সত্ৰী রসময়ীর বয়স ত্রিশ । রসময়ী’ –এ নাম যে রাখিয়াছিল বলিহারি তাহার প্রতিভা ! তবে রসও অনেকগুলি আছে কিনা— এ ক্ষেত্রে রৌদ্ররস। ক্ষেত্রমোহন একজন বাঙ্গলনবাস মোক্তার; হুগলীতে থাকিয়া বেশ দুই পয়সা উপাঞ্জন করেন। বাড়ী তাঁহার হুগলীতে নহে-জেলার মধ্যে কোন এক পল্লীগামে। তযে কয়েক বৎসর হইল হুগলীতে নিজ বাটী নির্মাণ করিয়া বাস করিড়েছেন। দুঃখের বিষয় এ পয্যন্ত ক্ষেত্রমোহনের সন্তানাদি কিছুই হয় নাই-পল্লীর যেরূপ (సె