পাতা:প্রভাতকুমার মুখোপাধ্যায়ের গল্পসমগ্র.djvu/৬৬৯

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


ক্ষণকাল দণডায়মান রহিলেন। দেখিলাম, পরক্ষণেই আবার আত্মসম্বরণ করিয়া, মদ মন্দ গমনে আমাকে ছাড়াইয়া গেলেন. এবং আমার পথান হইতে চারি পাঁচটি আসনের ব্যবধানে উপবেশন করিলেন। আমি ভাবিলাম, বন্ধা ক্ষীণদটি—আমাকে প্রথমে কোন পরিচিত ব্যক্তি বলিয়া ভ্রম করিয়া থাকিবেন। এ তুচ্ছ ঘটনা আমার মনে অধিক্ষণ স্থান পাইল না—আমি আবার নায়ক-মািগয়ায় ব্যাপ্ত হইলাম। এইরূপে আরও কিছুক্ষণ কাটিল। মনোমত নায়কের সন্ধান না পাইয়া, আরও দই একখানা পুস্তকের অন্বেষণে যাইতেছিলাম। সেই মহিলাটির নিকট দিয়া যাইতে দেখিলাম, তাঁহার সম্মখে দই তিনখানি ভারতবষীয় ছবির পসন্তক খোলা রহিয়াছে—আর তিনি কাগজে পেন্সিল দিয়া একটা জংগল আকিতেছেন। আরও কিয়ৎক্ষণ পরে সেই স্থান দিয়া যাইবার সময় দেখিলাম, জঙ্গলের অন্তরালে একটা বাঘ থাবা পাতিয়া বসিয়া আছে, হসিতপঠে হইতে সৈনিকবেশধারী একজন ইংরাজ পরিষে তার প্রতি বন্দকে লক্ষ্য করিতেছেন। কমে একটা বাজিল—লাঞ্চের সময় উপস্থিত। বহি সবসথানে রাখিয়া আমি বহিব হইয়া গেলাম। অলপ দরেই ভিয়েনা রেটোর নামক ভোজনশালা ছিল, তথায় প্রবেশ করিয়া খাইতে বসিলাম । দই এক মিনিট পরেই দেখি, সেই বন্ধটিও প্রবেশ করিলেন। আমারই টেবিলে আমার সম্মুখস্থিত চেয়ারখালি দখল করিলেন । আমার পানে চাহিয়া সম্মিত বদনে বলিলেন--“Good afternoon-আপনি এইমাত্র বটিশ মিউজিয়মের পাঠাগারে ছিলেন না ? আমি তাঁহাকে প্রত্যভিবাদন করিয়া বলিলাম—“আমি আপনার আসন হইতে অলপ দরেই উপস্থিত ছিলাম।" - বন্ধা বলিলেন—“আমায় ক্ষমা করিবেন—আপনি কি ভারতবর্ষ হইতে আসিয়াছেন - “ *আমি বাংগালী ।” “কলিকাতার ?” আমি বলিলাম—“কলিকাতাতেই আমাদের নিবাস ।" বাধা একট নীরব থাকিয়া বলিলেন—“আমার এ সকল প্রশেন আপনি বিরক্ত হইতেছেন না ত ? আমি শধে অলস কৌতুহলের বশবৰ্ত্তী হইয়া আপনাকে জিজ্ঞাসাবাদ করিতেছি না।” আমি বলিলাম—“সে বিষয়ে আমার সন্দেহ নাই। আপনার যাহা জানিবার আছে আপনি অনগ্রহ করিয়া অবাধে আমায় জিজ্ঞাসা করন।" “বহু ধন্যবাদ। পঞ্জাব কিংবা মধ্যভারতে আপনি বেড়াইয়াছেন কি ?” "মধ্যভারতে কখনও যাই নাই, তবে পঞ্জাবের কয়েকটি নগর দেখিয়াছি।” এই সময় পরিচারক আসিয়া তাঁহাব আদেশের অপেক্ষায় দাঁড়াইল। "আমায় একমহত্ত ক্ষমা করন"—বলিয়া বন্ধা, খাদ্যতালিকা হাতে লইয়া, স্বেচ্ছামত দ্রব্যগলি ফরমাস করিলেন। তাহার পর আমায় বলিলেন—“আমার জিজ্ঞাস্য কি, আপনাকে বঝাইয়া বলি। আমি কয়েকটি বিখ্যাত মাসিকপত্রের জন্য ছবি অকিয়া থাকি। ভারতবৰ্ষই আমার বিশেষ বিষয়। সম্প্রতি কোনও পত্রসমপাদক একটি ভারতীয় শিকারের গল্প আমায় ছবি আঁকিবার জন্য পাঠাইয়া দিয়াছেন। গল্পটি এই—পঞ্জাবের একজন রাজা এবং একজন বটিশ সৈনিক একত্র হস্তিপণ্ঠে জঙ্গলে শিকার করিতে গিয়াছিলেন। দরে হইতে ব্যাপ্নের গজন শনিয়া রাজার মনে অত্যন্ত ভয় হইল। তিনি হস্তী হইতে নামিয়া পলায়ন করিলেন। ইংরাজ সৈনিক শব্দানসারে জঙ্গলের মধো প্রবেশ করিয়া বাঘকে গলি করিলেন। এ গল্পের জন্য সম্পাদক দই একখানি ছবি চাহেন। একখানি রাজার পলায়নের ছবি, দ্বিতীয়খানি বাঘ মারিবার ছবি। দ্বিতীয়খানি আমি আকিতেছি । কিন্তু প্ৰথমখানি সম্বন্ধে আমি বড় সমস্যায় ༧་ལྕུ་༔ ། ভারতবষের রাজাদের য়ে পোষাক