পাতা:প্রভাতকুমার মুখোপাধ্যায়ের গল্পসমগ্র.djvu/৬৭৮

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


ঝাপটা দিতে লাগিলাম। দাসী তাঁহার পোষাকের কিয়দংশ খুলিয়া দিল। মেলিং সলট আনিয়া তাঁহার নাসারন্ধুে ধরল। মিস ক্যাবেল তখন ধীরে ধীরে মাথাটা তুলিলেন। মদ-কণ্ঠে বলিলেন—“কি হইয়াছে ?” দাসী বলিল-“ঠাকুরাণী, আগানের গরমে আপনি মাছ গিয়াছিলেন।” আমি বলিলাম—“ঘরের সকল জানালা এমন বন্ধ করিয়া এত আগন জালা ভুল হইয়াছিল। এখন আপনি কেমন আছেন মিস ক্যাবেল ?” “আমি মচ্ছা গিয়াছিলাম? কট দিলাম-মাফ করিও। এখন ভাল আছি।” আমি বললাম—“চলন, আপনাকে শয্যায় লইয়া যাই ।” "চল"—বলিয়া তিনি উঠিতে চেষ্টা করিলেন–কিন্তু আবার তাঁহার দেহ অবসন্ন । দুইজনে ধরাধরি করিয়া তাঁহাকে শয়নকক্ষে লইয়া গেলাম। পালকের উপর তাঁহাকে শোয়াইয়া দাসীকে বলিলাম—“আমি ছটিয়া ডাক্তার ডাকিয়া আনি। তুমি ততক্ষণ যতটা পার ইহার বহিরাবরণ উন্মুক্ত করিয়া দাও”—বলিয়া পশ্চাৎ ফিরিবামাত্র দেখিলাম, ভিত্তিগাত্রে একখানি তৈলচিত্র—আমার পিতার যবমিত্তি ! ইহা যে ফোটোগ্রাফের অনলিপি, তাহার এক খণ্ড আমার অ্যালবমেও রক্ষিত আছে। সমস্তই বঝিলাম। ছটিয়া গিয়া ডাক্তার আনিলাম। তাঁহার ঔষধে এবং আমাদের শাশ্রষায়, রাত্রি নয়টার মধ্যে মিস ক্যাবেল প্রকৃতিস্থ হইলেন। একপেয়ালা গরম সরয়া তাঁহাকে পান করাইয়া, রাত্রির মত আমি বিদায় গ্রহণ করিলাম। পঞ্চম পরিচ্ছেদ উক্ত ঘটনার পর একটি বৎসর আমি বিলাতে ছিলাম। মিস ক্যামেবলের নিকট সব্বদা যাতায়াত করিতাম। তিনি আমার পত্ৰবৎ স্নেহ করিতেন। আমি তাঁহাকে পত্রাদি লিখিলার সময় মাতৃসম্বোধন করিয়া লিখিতাম; কিন্তু সাক্ষাতে বলিতে পারিতাম না—কেমন লঙ্কজা করিত। 艾 পরে তিনি আমায় বলিয়াছিলেন, বটিশ মিউজিয়মের পাঠাগারে আমায় দেখিবমাত্র আমার পিতার সহিত প্রবল সোঁসাদৃশ্য অনুভব করিয়াছিলেন। আমার পরিচয়ের জন্য উৎকণ্ঠিত হইয়া তিনি সে দিন আমার পশ্চাৎ পশ্চাৎ ভিয়েনা রেস্টোরতে প্রবেশ কবিয়াছিলেন ; নচেৎ প্রকাশ্য প্ৰথানে ভোজনাদি করা তাঁহার নিতান্তই অপ্রীতিকর। যথাসময়ে আমি বারে কলড হইলাম। তাঁহাকে সঙ্গে করিয়া আনিবার জন্য অনেক সাধ্য সাধনা করিলাম। বলিলাম—“আপনি এখন বন্ধ হইয়াছেন। এখন সব্বদা আপনার সেখাধল্পের আবশ্যক। আমার গহে আসিয়া, মাতৃগৌরবে আমার সেবা গ্রহণ করন।” --কিন্তু কিছুতেই তাঁহাকে সমমত করিতে পারলাম না। বলিলেন-এ বয়সে জন্মভমি খাড়িয়া অন্য কোথাও গেলে আমি শান্তি পাইব না।" . ধেশে ফিরিয়া আসিয়া প্রতি মেলেই তাঁহাকে পত্র লিখিতাম এবং তাঁহার পর পাইতাম। wnlয় যখন বিবাহ হইল, আমার স্ত্রীকে আশীবাদ সবরপ তিনি সেই সোণার চড়ি প, গোড়া পাঠাইয়া দিলেন। আমার সত্ৰী সব্বদা সেগুলি পরিয়া থাকেন। তাছার পর খোকা জন্মিল। তিনি লিখিলেন, খোকা একটু বড় হইলেই, তাহাকে a wাখার মাকে লইয়া আমি যেন একবার বিলাত যাই। মরিবার পবে, আমাদের তিন জনকে একবার দেখিবার তাঁহার বড় সাধ হইয়াছে। এ কথা উপযুপরি কয়েকখানি শnেই লিখিলেন। সে বৎসর পজার ছটিতে আমরা বিলাত যাইব, সমস্ত স্থির হইল। riate এ সংবাদ লিখিলাম। কিন্তু পত্ৰখানি দেড়মাস পরে ফিরিয়া আঁসল। খামের taখন লণ্ডমের পোট আফিস রবারট্যাপের ছাপ মারিয়া দিয়াছে—“মালিক মত, পত্র fगाँण इंtश भा।” গাঁ৷ দ্বিতীয়বার মাতৃহীন হইলাম। চৈত্র ১৩১৭] br9.