পাতা:প্রভাতকুমার মুখোপাধ্যায়ের গল্পসমগ্র.djvu/৬৮৪

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


অবশ্যক হয় বলা যায় না। BBBB BBBB BBB BBB BBBB BBBB BBB BBBB DDBBBSBBBBBB কোন কোন জাতির বাস, এখানকার তাঁতিগণের সাধারণ অবস্থা কিরুপ, গ্রামে ধনীব্যক্তি কে কে আছে, তাহারা কিরুপ চরিত্রের লোক—ইত্যাদি। রাইচরণের সাংসারিক অবস্থার কথাও জিজ্ঞাসা করিলেন । তাঁতি ও তাঁতনী উভয়ে মিলিয়া নিজেদের দুঃখের কাহিনী সমস্তই বলিল। পবে তাহদের স্বচ্ছলতার কথাও বলিল। ভট্টাচাৰ্য মহাশয় ক্ৰমে কিরপে তাহদের যথাসর্বস্ব ফাঁকি দিয়া লইয়াছেন, এ কথা তাঁতনী—ততির বারমার বাধা সত্ত্বেও—ভাল করিয়া বর্ণনা করিল। ভট্টাচার্ষ্য মহাশয়ের সমদ্ধির কথাও বলিল। - সন্ন্যাসী তখন তাঁত সম্বন্ধে রাইচরণকে নানা কথা জিজ্ঞাসা করিতে লাগিলেন। এ গ্রামে পরে তাঁতের অবস্থা কিরূপ ছিল, এখনই বা কিরূপ, এ অঞ্চলের ত্রীলোকেরা: আর চরকায় সত্য কাটে কি না, সেই সভ্যতার যদি কাপড় বোনা যায় তবে বলাতী কাপড় অপেক্ষা সস্তায় বিক্ৰয় করা সম্ভব কি ন—এই সমস্ত সংবাদ। জাতীয় ব্যবসায়ের প্রসঙ্গে রাইচরণের মখে খলিয়া গেল। গ্রামের তাঁতিগণের পবেসমধি এবং আধুনিক দরবস্থার বিষয় সে তাহার প্রাণের ভাষায় ব্যক্ত করল। বলিল, তাহারই পর্বেপবযগণ গ্রামের প্রধান তন্তুবায় বলিয়া প্রখ্যাত ছিল । বাড়ীতে দোল দাগোৎসব হইত। অথচ আজ সে একমুটি অন্নের জন্য লালায়িত। পূর্বেকালে তাহদের ইন্টকালয় ছিল, তাহারই ভানসতপ সন্ন্যাসী ঠাকুরকে আলো ধরিয়া দেখাইয়া দিল। রাইচরণের চক্ষ দিয়া দরদর ধারায় আশ্রপাত হইতে লাগিল । তাহাকে কাঁদিতে দেখিয়া যুবক বলিলেন—“কে’দ না রাইচরণ—কে’দ না। তোমাদের দুঃখের রাত পাইয়ে এসেছে। স্বদেশী জিনিষের প্রতি ক্ৰমেই লোকের ভক্তি বাড়ছে। শীঘ্র এমন দিন আসবে যখন কাপড় বনে তোমরা কুলিয়ে উঠতে পারবে না। দেশের শিপের উপর, বিশেষতঃ তাঁতের উপর, ভগবানের শভেদটি পড়েছে। তাঁতির কান্না শনে ভগবানের আসন টলেছে। কেন্দ না-চপ কর।” রাইচরণ এই কথা শুনিয়া অত্যন্ত অভিভূত হইয়া পড়িল। চাপি চাপি তাহার শীর কাণে কাণে বলিল—“দ্যাখ-ইনি একজন ঈশ্বরজনিত লোক হবেন। যা বলছেন, আমার কিন্তু খুব মনে নিচ্ছে। ইনি একজন বড় দরের সাধপরাষ।” তাঁতনী চপি চপি বলিল—“আমারও তাই মনে হয়। দেখছ না কিবে চেহারা, যেন রাজপুত্তর। ইনি কোনও দেবতা হবেন, মানষের রপে ধরে এসেছেন। মাদলীটের কথা একে জিজ্ঞাসা কর না।” রাইচরণ বলিল—“তুই জিজ্ঞাসা কর।” . কিন্তু তাতিনী হঠাৎ সে কথা বলিতে পারিল না। উভয়পক্ষ প্রায় পাঁচ মিনিট কাল "বশেষ সমাস আবার যখন দুই একটি কথা কহিলেন তখন তাঁতিনী বলিল "বাবা, তোমার কাছে আমার একটি নিবেদন আছে।” যবেক সনি্ধ স্বরে বললেন—“কি, বল।" “আমার একটি বড় অপরাধ হয়ে গেছে।” “কি হয়েছে ?” তাঁতিনী তখন মাদলীর ইতিহাস আদ্যেপান্ত নিবেদন করিল। কেন যে মাদলী আজ বিক্ৰয় করিতে হইয়াছিল, খলিয়া বলিল। রাইচরণ যে অমঙ্গল আশঙ্কা করিয়াছিল, তাহাও জানাইল। সমস্ত শুনিয়া সন্ন্যাসী বলিলেন—“সে ভূজপত্ৰখানি আন কি মন্ত্র লেখা আছে দেখি।” তাঁতিনী সেখানি অনিয়া দিল। যবেক সাবধানে সেটি খালিয়া, আলোকের নিকট ধরিয়া পরীক্ষা করিলেন, কিন্তু কোনও লেখা দেখিতে পাইলেন না। এখানে ওখানে দুই একটা অলক্তক চিহ্ন আছে—কোনও কতু যত অক্ষর ল-কিন্তু এখন আদশ্য । সেখানি