পাতা:প্রভাতকুমার মুখোপাধ্যায়ের গল্পসমগ্র.djvu/৬৮৬

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


ভট্টাচযি দেবেন, তাও বলে দিই ! হঠাৎ তোমার এই ভিটেখানি নেবার জন্যে তাঁর ভরি আগ্রহ হবে। ভগবানই ওঁকে ঐ মতি বৃদ্ধি দেবেন। শুষ্ট্ৰচযি প্রথমে অলপ টাকা দিযে তোমার ভিটে কিমতে চাইবেন । তুমি দিও না। ক্লান উনি দর বড়তে থাকবেন। তব, তুমি দিও না। শেষে যখন উনি. পাঁচ হাজার টাকা পয্যন্ত উঠবেন, তখন তুমি দিও নগদ টাকা নিয়ে তবে দেবে।” “যেমন অজ্ঞে করেন ।” “একটা বিষয় সাবধান করে দিই, আমার সঙ্গে তোমাদের যে এ সব কথাবাত্তা হল তা কার কাছে প্রকাশ কোরো না। যদি একটি প্রাণীও এ কথা শ্যনে, তা হইলে সমস্ত BB BB BBS BB BB BBB BB BBS BB BBBB BBBBBS BB BBBu S যেন প্রকাশ না হয়।” রাইচরণ বলিল—“শনছিস ত পার্টির মা—সাবধান । তোর আবার পেটে কথা থাকে না ।” BBBB BBB BBBB BBBSBBB BBBB BBB BBS BBB BB BBBB BBBB বলব, না !” “আচ্ছা বেশ । এখন তোমরা শয়ন করগে। আমায় একট পজোপাঠ করতে হবে। তারপর আহার করে আমি শয়ন করব । তোমরা খাব ভোরে আমায় উঠিয়ে দেবে— দদণ্ড রাত বাকী থাকতে থাকতে গ্রাম পরিত্যাগ করে যাব।” BBBB BBBB BBB BDDSBBBBB BBB BB BBBS BB BBBB শতে যাব। কিছ যদি দরকার হয় " “কিছু দরকার হবে না । তোমরা যাও ” “তাঁতঘরে ঠাকুরের বিছানা করা তাছে”—বলিয়া তাঁতি ও তাঁতিনী প্রণাম করিয়া বিদায় BBB S BBBB DBB BBBBB BBBB BBBS BBD BBB BBBDD BBB BBB করিয়া পাঠ আরম্ভ করিলেন । চতুর্থ পরিচ্ছেদ ৷ ভট্টাচায্যের সব নদর্শন ভোর রাত্রে তাঁতি ও তাঁতিনী আসিয়া সন্ন্যাসীকে জাগাইয়া দিল । সন্ন্যাসী যাত্রার জন্য প্রস্তুত হইয়া বলিলেন—“তোমার মাদলীর ভিতর যে কাগজখানি ছিল, সেখানি বড় ভাল জিনিষ । এই কাগজখানি, একটু বেলা হলেই, তাঁতিনী তুমি ভটচাৰ্য্য মহাশয়কে গিয়ে দেখাবে। মাদলী ভাগতে কাগজখানি অশুদ্ধ হয়েছে কিনা—তিনি শোধন করে একটা তামার কি অন্য কিছর মাদলীতে ভরে দেবেন। গলায় ধারণ কোরো, কোন বিপদ আপদ হবে না।” বলিয়া সন্ন্যাসী ভূজপত্ৰখানি তাতিনীকে দিলেন। তাঁতি তাহার ছেলে মেয়েটিকে আনিয়া বলিল-“ঠাকুর, এদের আশীবাদ করন —মাথায় পার ধলো দিন।” তাহাদিগকে আশীবাদ করিয়া সন্ন্যাসী বিদায় হইলেন। একটু বেলা হইলেই তাঁতিনী ভট্টাচায্যের গহে উপস্থিত হইল। তিনি তখন সন্ধ্যাবন্দনাদি সারিয়া, কাঁধে চাদর হাতে ছাতি লইয়া দোকানে বাইবার উপকুম করিতেছিলেন । তাঁতিনী তাঁহাকে প্রণাম করিয়া বলিল—“দাদাঠাকুর, আমাদের বড় বিপদ।” ভট্টাচাৰ্য" ভাবিলেন, নিশ্চয়ই টাকা ধার করিতে হাসিয়াছে। মুখ বাঁকাইয়া বল্লিলেন —“কি হল আবার?” - তাঁতিনী তখন মাদলীর আমলে ইতিহাস বলিয়া, রাইচরণের আশংকার কথা উল্লেখ করিল। আর বলিল—“তা দাদাঠাকুর সে ত সোণার গণ নয়, মন্তরটিরই ত গণ ? সেকরা মন্তরলেখা সে ভূক্তিজপত্ৰখানি আমায় ফিরিয়ে দিয়েছে। তাই আপনার কাছে বিধেন নিতে এসেছি যে, ভূক্তিজপত্ৰখানি অন্য মাদলীতে পরে দিলে হয় না ?” ভট্টাচায্য জিজ্ঞাসা করিলেন-—“রামকথচ না ইস্টকবচ r” “তা কি জানি দাদাঠাকুর । এই দেখ না।”—বলিয়া তীতিনী তাঁহার হতে ভূজপত্র సి)