পাতা:প্রভাতকুমার মুখোপাধ্যায়ের গল্পসমগ্র.djvu/৭০৪

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


দিয়া কপালটি টিপিয়া ধরিয়া চিন্তা করিতে লাগিলেন। - কিয়ৎক্ষণ পরে সন্তোষবাবকে বলিলেন—“প্রকাশকে এ কথা জিজ্ঞাসা করা হয়েছে ?” SBSeeBB BB BBBS BB BBB BBB BB BBS BBBB BBB BBBBB যাতে ওর সেখানে বিবাহ করাই সম্ভব বলে মনে হয়।” বলিয়া কোন কোন কথা হইতে সন্তোষবাব এ সিদ্ধান্তে উপনীত হইয়াছেন, তাহা বলিলেন। অতুলবাক দাঁড়াইয়া উঠিয়া বলিলেন—“না না, ওকে সাফ সাফ জিজ্ঞাসা করতে হবে। ও সব ঘোর প্যাঁচের কথার প্রয়োজন কি ? আমি এখনি গিয়ে স্পষ্ট জিজ্ঞাসা করছি { চিঠিখানা দাও।”—বলিয়া অতুলবাব দ্রতপদে বাহির হইয়া গেলেন। সপ্রভা নিজ শয়নকক্ষ হইতে সমস্ত কথাবাত্তাই শুনিতে পাইতেছিল। উৎকৰ্ণ হইয়া পিতার ফিরিবার পদশবদ প্রতীক্ষা করিতে লাগিল। পাঁচ মিনিট পরে অতুলবাব ফিরিয়া আসিলেন । বলিলেন—“প্রকাশকে বিবাহের কথা জিজ্ঞাসা করতে সে আকাশ থেকে পড়ল। বললে ‘Good Heavens : আমি বলতে বিবাহ করে এসেছি ! নিশ্চয়ই না –lt is a vile calumny, কে বলেছে ? অামি তখন BB BBBB BBBBS mm BBB BB BBBB BBBSS SBBSS SBB BBBBS K চিঠি থেকেই এত কাণ্ড হয়েছে ? এ চিঠির অর্থ এই। বাড়ীর গিন্নিরাই সেখানে সাধারণতঃ ধোপা, মদী, গোয়ালা, মাংসবিক্রেতা প্রভৃতির সঙ্গে যা কিছু কারবার করে থাকেন। পরষরা ও সব দেখে শোনে না। তাই আমি যখন তাদের চিঠি লিখলামু যে একখানা রমাল আসেনি, তখন তারা ধরে নিলে যে বাড়ীর গিন্নিই ও চিঠি লিখে থাকবেন ।” গহিণী বলিলেন—“তোমার বিশ্বাস হয় ?” “কেন বিশ্বাস হবে না? আমি ত এতে অবিশ্ববাসযোগ্য কিছুই দেখছি:ম। ও আরও বললে, সম্প্রতি ওদের বন্ধ একজন নতন ব্যারিস্টার তাদের বাষ্ঠীর মেয়েদের জন্যে বেশবিন্যাসের কতকগুলো জিনিষের মল্যতালিকা চেয়ে বিলাতে কোন দোকানে চিঠি লিখেছিল। তারা মাল্যতালিকার মোড়কে ঠিকানা লিখে পাঠিয়েছিল মিস জে, সি, ঘোষ। সেই অবধি ওরা তাকে ঠাট্টা করিয়া মিস ঘোষ বলে।” এই সমস্ত কথা হইতেছে, এমন সময় প্রকাশ বাহিরে দাঁড়াইয়া বলিল—“আসতে পাবি ?” অতুলবাব উঠিয়া গিয়া তাহকে লইয়া আসিলেন। প্রকাশ বসিয়া মিসেস রামকে লক্ষ্য করিয়া বলিল--"আমি যা কৈফিয়ৎ দিয়েছি, তাতেও যদি আপনাদের সন্তোষ না হয়, তা হলে আমি আমার নিন্দোষিতার প্রমাণ দিতে পারি।" গহিণী বলিলেন—“কি প্রমাণ ?” “হামি যদি বাস্তবিকই সেখানে বিবাহ করেছিলাম এমন হয়, তা হলে ঐ চিঠির তারিখের পীবে এবং পরে, প্রতি সপ্তাহে সন্ত্রীলোকের উপযোগী অনেক কাপড়ও ত ধোপার ধাড়া গিয়েছিল "

  • সুখভর ” "বিলতে ধোপা নিযুক্ত হলে তার একখানি ছোট বাঁধানো খাতা দেয়। প্রতি সোমবারে কাপড় ধতে দেবার সময়, সেই খাতার একটা পাঠায় কাপড়ের তালিকা লিখে দিতে হয়। সেই খাতা আর গত সপ্তাহের প্রাপ্য টাকা, ধোপার লোক এসে ময়লা কাপড়ের সঙ্গে নিয়ে যায়। আবার শুক্লবার সন্ধাবেল ধোয়া কাপড়ের সঙ্গে সেই খাতাখানি ফিরে আসে, তাতে তারা হিসেবও লিখে দেয়—যেমন প্রত্যেক শাট চার পেনি, কলার এক পেনি রমাল আধ পেনি ইত্যাদি। আমার চেম্বাসে বলতের পরাণো কাগজপত্রের সঙ্গে আমার ধোপার খাতাখনিও আছে। কাগজপত্র গোছাতে গোছাতে আজই সকালে সেখানি আমি দেখেছি। আমার গাড়ী প্রস্তুত। আমি যদি এখনি চোবাস থেকে সে খাতাখানি এনে আপনাদের দেখাতে পারি যে, তার পাতার পর পাতায় কোথাও সীলোকের কাপড়ের কোন মামগন্ধ নেই, তা হলে আপনাদের বিশ্বাস হবে তু ?” ఉ