পাতা:প্রভাতকুমার মুখোপাধ্যায়ের গল্পসমগ্র.djvu/৭১৫

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


, “কত ?” “প্রায় পারতাল্লিশ হাজার।" “তুমি আমাকে শাইলক বলে গাল দিয়েছ। আমি যে শাইলক নই, তার প্রমাণ আমি তোমায় দিচ্ছি। তোমার বাড়ী তিনখামার এখন বাজার-দাম কত হতে পারে মনে কর?” "এ পাঁচ বছরে কলকাতায় বাড়ীর দাম প্রায় দিবগণে বেড়ে গেছে। আমার তিনখানা বাড়ীর দাম এখন অন্ততঃ পঞ্চাশ হাজার টাকা।" - “সম্ভবতঃ আরও বেশী। দলিলে যে পাঁচ বৎসরের মেয়াদ ছিল, তা খেলাপ হয়ে BBB S BBB BB BB BD DBBS g B BBBB BBBB BB BBB Bm আইনতঃ বাধ্য নই ত ই” “ত নও।” SBBS BB BBB BBBBB BBBB BB BBBSBBB BDBB BBBB BBS কেমন, শাইলক হলে, সে রাজি হত “ নলিনী অধোবদনে বসিয়া রহিল। DD BBBS BB BBBB BB S BB BB B BBB SBBBBS BB BB BBB BS BBB B BBSBBS BB BBBB BBB BB BBBB BBBBB হাজার টাকা কেটে দিয়ে, পাঁচ হাজার টাকা দাও।”—তোমার বিপিনদ! কি উত্তর দিতেন একবার শোনা যাইত। কিয়ংক্ষণ নীরব থাকিয়া, বিনীত কাতরস্বরে নলিনী বলিল—“ভাই, পীয়তাল্লিশ হাজার টাকার কথা কি বলছ, আজ যদি প্রয়তাল্লিশর্টে টাকা নিয়ে বাড়ী ছেড়ে দেবার প্রস্তাব করতে, তাও আমার সাধ্য হত না। ঘরে যা আছে, আজ কাল পশু-তিন দিনের খোরাক হবে। তার পরদিন থেকে উপবাস।” বিপিনবাব চরটে একটা টান দিয়া, অস্টেপ অপে সেই রাশিতৃত ধর্ম ফর ফর করিয়া বাহির করিয়া দিলেন। শেষে বলিলেন—“আমায় কি করতে বল ?" দজনের মধ্যে যে ভালবাসা ছিল, সেই ভালবাসার দোহাই, আমাকে নন্ট কোরো না। আমার সদে কিছল তুমি মাফ কর। আমার বাড়ী তিনখানার দাম এখন পঞ্চাশ হাজার টাকার উপর, তা তুমি নিজেই বলেছ। তুমি বিষয়ী লোক, আমার মেয়ে এ সব জিনিষ তুমি অনেক ভালই জান। তুমি ভাড়াটে বাড়ী দুখানি নিয়েই আমায় নিম্প্রকৃতি দাও । ও দরখানার দামও অন্ততঃ ছত্রিশ সাঁইত্রিশ হাজার টাকা হবে--আমার দেনার আসল পচিশ হাজার টাকার চেয়ে ত অনেক বেশী । মনে কর সদটা কিছু কমই পেলে । আমার পৈতৃক ভিটেখানি আমায় ছেড়ে দাও। নইলে ছেলেপিলে নিয়ে স্বামায় রান্তীয় দাঁড়াতে হবে। আমার মাথা গোঁজবার স্থানটুকু থাকলুে, আমি দঃথ ধন্দা করে হোক, যেমন নগদ কিছু চাচ্ছিনে—যদিও আজ তিনটি মাত্র টাকা আমার সমবল ? তিন দিন আমার খাবার অাছে, এর মধ্যে আমি কিছু একটা যোগাড় করে নেব। সদের টাকা কিছ আমার মাফ কর । বসতবাড়ীর কবলাখানি আমায় ফিরে দাও।” বিপিনবাব মস্তক অবনত করিযা শুনিতেছিলেন-তাঁহার, সরট নিবিয়া গিয়াছিল। নলিনীর বাক্য শেষ হইলে, জানালার বাহিরে বাগানের পানে, একবার নলিনীর পনে চাহিয়া, চরটটি ধরাইয়া আবার বাগানের দিকে মুখ ফিরাইয়া বলিতে লাগিলেন—“দেখ, তুমি তোমার ছেলেপিলের কথা বললে, সেইরকম আমারও ছেলেপিলে আছে। আমরা খাটিখাঁটি, রোজগারপত্তর করি, সে আমাদের ছেলেপিলের জন্যই ত? আমাদের অবত্তমানে তারা কোনও রকম কট না পায়, সেইটে আমাদের করে যেতে হবে, সতরাং তাদের প্রতি আমাদের একটা গভীর কক্তব্য রয়েছে। আমার বাপ পিতামহ যা বিষয় আশয় আমায় দিয়ে গেছেন, সেই সব বাড়িয়ে গুছিয়ে, আমি আবার আমার ছেলেপিলেদের দিয়ে সাব S&S