পাতা:প্রভাতকুমার মুখোপাধ্যায়ের গল্পসমগ্র.djvu/৭১৮

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


নলিনী প্রবেশ করিয়া বলিল--"গড়মাণাং সার!" সাহেব কাগজ হইতে চক্ষ তুলিয়া ইংরাজিতে বলিলেন—“গড়মণিং! কি চাই বাবা ?” : "কম চাই। আপনি অনুগ্রহ করিয়া যদি আমায় কোনও কমে নিযুক্ত করেন, তবে আমি থাইতে পাই। নাহলে আমায় চরি কিবা আত্মহত্যা দইয়ের একটা করিতে হইবে।” zo - - নলিনীর ভাবভঙ্গি দেখিয়া এবং তাহার এই অদ্ভূত উক্তি শুনিয়া তাহকে উন্মাদ বলিয়া সিথর করিলেন। একটা শঙ্কিতও হইলেন। ভিত্তিগাত্রে প্রোথিত লোহার সিন্দকটির দিকে স্বতঃই তাঁহার চক্ষ আকৃষ্ট হইল—সিন্দক বন্ধই আছে। নিজের পকেটে হাত দিয়া দেখিলেন, চাবি যথাস্থানেই আছে। কি জানি, লোকটা যদি হঠাৎ আক্ৰমণ করে, এই ভাবিয়া ভূত্য ডাকিবার ঘণ্টা বাজাইলেন। ভূত্য আসিয়া দাঁড়াইল। সাহেব তখন মিস্টাবরে বলিলেন, “বাব আমি বড় দঃখিত হইলাম, উপস্থিত আমাদের আফিসে কোনও কাৰ্য খালি নাই। তুমি বরং তোমার সার্টিফিকেটগুলির নকল সহ ডাকে আমার নামে এক দরখাস্ত পাঠাও। কম খালি হইলেই তোমার বিষয় বিবেচনা করিব। গড়মণিং।”—ভূত্যকে বলিলেন—“বাবকে রাস্তা দেখাও।” নলিনী একটি দীঘ"বাস ফেলিয়া, বাহির হইয়া গেল। পরে পরে আরও একটি ইংরাজি দোকানের বড় সাহেবের সহিত সাক্ষাং করিতে চেণ্টা করিল, কিন্তু তার সকলকাম হইল না। কোনও বারবানের অনগ্ৰহ হইল না, কোথাও তাহার অনুগ্রহ হইল ত " সাহেলের ফরসৎ 苔T1 - নীলনা তখন ধীরে ধন্মতলার দিকে অগ্রসর হইল। কিয়ৎক্ষণ পরে সে কোনও বিখ্যাত ইংরাজি দৈনিক সংবাদপত্র আপিসের ফটকের সম্মখে উপনীত হইল। দেখিল, ফটকের বাহিরে একথনে কতকগুলি ইউরেশিয়ান ও ফিরিঙ্গি সাহেব দাঁড়াইয়া কি পড়িতেছে। নিকটে গিয়া বঞ্চিল, তক্তার উপর সেইদিনকার সংবাদপত্রখানি অংশে অংশে লগন রহিয়াছে। অধিকাংশ লোকই কক্ষম"খালির বিজ্ঞাপন পাঠ করিতেছে। ইহাই ত নলিনী চায়। সেও মনোযোগসহকারে বিজ্ঞাপনগুলি পড়িতে লাগিল। কিছুক্ষণ এইরপে অতিবাহিত হইলে পর তাহার মনে হইল, অন্ততঃ দুইটি বিজ্ঞাপন আছে যাহা তাহার কাজে লাগিতে পারে। অন্যান্য ব্যক্তিগণ, কেহ বা পকেটবুকে, কেহ বা ফাঁস কাগজে নিজ নিজ মনোমত বিজ্ঞাপনগুলি টকিয়া লইতেছিল। কিন্তু নলিনীর পকেটে ত কাগজও নাই, পেন্সিলও নাই, কিনিয়া লইবার পয়সাও নাই। প্রথমে সে ভাবিল, বিজ্ঞাপন দুইটা মুখস্থ করিয়া লইবে। মুখস্থ করিতে আরম্ভ করিয়া দেখিল, তাহার মাথা ঠিক নাই, মুখপথ হইতেছে না। তখন হতাশ হইয়া ইতস্ততঃ চাহিতে চাহিতে দেখিল, একখানা থিয়েটারের হ্যাণ্ডবিল কাগজ পথে পডিয়া রহিয়াছে। নলিনী সেটি কুড়াইয়া লইল। কাগজ সংগ্ৰহ হইল। পেন্সিলের কি হয় ? একজন ইউরেশিয়ান সাহেব, ময়লাটপী ছিন্ন কোট পরিয়া, সেখানে দাঁড়াইয়া বিজ্ঞাপন টরিতেছিল। লেখা শেষ হইবামার, নলিনী তাহার নিকট গিয়া হিন্দিতে বলিল, "সাহেব, পেন্সিলটা একবার দিতে পার ?" এই অ্যারোধে সাহেব চক্ষ রাংগাইয়া বলিল, "গেট আউট ইউ ড্যাম নিগার।" মহত্তমধ্যে নলিনী সাহেবের গণ্ডে এক প্রবল চপেটাঘাত করিল। বাঙ্গালী হস্তের স্বদেশী চড় খাইয়া সাহেব প্রথমটা হতভম্বব হইয়া গেল। একটা পরেই, আতিন গটাইয়া নলিনীকে সে আক্ৰমণ করিল। . তখন দুইজনে ঘোর বাহযোদ্ধ বাধিয়া গেল। দেখিতে দেখিতে শত শত পথচারী ইহাদিগকে ঘিরিয়া ফেলিল। কোথা হইতে এক পাহারাওলা আসিয়া "ক্যা হয়ো ক্যা হয়ো" বলিতে বলিতে ভাঁড় ঠেলিয়া ভিতরে প্রবেশ করিল, এবং অনেক কটে দুইজনকে ছাড়াইয়া দিল। ইতিমধ্যে একজন সাজেন্ট সাহেবও আসিয়া, উপস্থিত হইল।. ইউরেশিয়ানের নাসিকা হইতে রক্তপাত হইতেছে, নলিনীর বালাপোষ ও জামা ছিড়িয়া গিয়াছে। সাজেণ্ট সাহেবকে দেখিবামার ইউরেশিয়ান সাহেব বলিল, “এ নোটব আমায় মারিয়াছে।” ১২৪