পাতা:প্রভাতকুমার মুখোপাধ্যায়ের গল্পসমগ্র.djvu/৭৫৭

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


কি হয়েছে ?"—বলিয়া সবালার মুখটি হাত হইতে ছাড়াইয়া লইল; নিজের রমাল দিয়া তাহার শাক চক্ষ মাছিয়া দিতে লাগিল। স্বালা বলিল—“কি হয়েছে ? কি হতে বাকী আছে ? আমার যে সব্বনাশ হল !" —বলিয়া সে দই হাতে মুখ ঢাকিল। সত্যেন্দ্র বলিল—“এখন থেকে অত উতলা হবার দরকার কি ? কালেক্টার সাহেব এসে কি করেন দেখাই যাক না।” স্বালা এবার নিজের মুখ হইতে হাত সরাইয়া লইয়া বলিল—“তিনি এসে তদন্ত করলেই ত সব প্রকাশ হয়ে যাবে। আমরা এ ছমাস একসঙ্গে টমটমে বেড়িয়েছি—রাত্রি দশটা এগারটা পৰ্যন্ত প্রায়ই দুজনে একত্র থেকেছে—সবই ত তিনি জানতে পারবেন!” সত্যেন্দ্র বলিল—“টমটমে বেড়িয়েছি—এক সঙ্গে ডিনার খেয়েছি, রাত্রে বসে গল্প করেছি--এতে আর দোষ কি হয়েছে ? অজ্ঞ বাঙ্গালী আমাদের দোষী মনে করতে পারে: তিনি ইংরেজ—তিনি কখনও তা মনে করবেন না।” সবালা উত্তেজিত করে বলিল—“আপনি বলেন কি ! তিনি আমাদের দোষী মনে করবেন না ? এ রকম করে একসঙ্গে বেড়ায়, একসঙ্গে খায় কারা -যাদের অীজ বাদে কল বিয়ে হবে ।” সত্যেন্দ্র চমকিয়া উঠিল। সরেশবাব যাহা বলিয়ছিলেন, এও যে সেই কথাই বলে ! তবে কি তাহারই ভুল-ইহাদের কথাই ঠিক ? - BBB BBBB BBB BB BBB BBBS BBD kBBB BBB BBB কারল-“ছি ছি শেষে--এই কলঙ্ক আমার অদণ্টে ছিল ! আমি যখন হয়েছিলাম, তখনই আমার মা কেন নল খাইয়ে আমায় মেরে ফেলেনি ! আমার জীবনে ধিক । আমার বেচে সখি কি ? এ কলকের বোঝা আমি ত সইতে পারব না—আমি আজ রাত্রেই আসেনিক খাব।”—বলিয়া চক্ষে ব্লমাল দিয়া সবালা ফুপিয়া ফাঁপিয়া কাঁদিতে লাগিল। সবালার অবস্থা দেখিয়া সতেন্দ্রেরও কান্না পাইতে লাগিল। সে এখন বেশ বঝিয়াছে —সম্পণে তাহারই দোষে এই সমস্ত ঘটিল । বলিল—“মিস মজুমদার-আপনার কান্না দেখে আমার বদক ফেটে যাচ্ছে। যা হবার তাত হয়েই গেছে। এখন কি করলে ভাল হয় বলন, তাই করি। সরেশবাব বলছিলেন, যদি আম্নি মবয়ং দরখাস্ত করে এখান থেকে বদলি হয়ে ঘাই—তা হলে বোধ হয় কালেক্টার সাহেব কোনও তদন্ত আবশ্যক মনে করবেন না। তাই আমি মনে করেছি, কালই আমি বদলির দরখাস্ত দিই।” সবালা চক্ষ তুলিয়া কয়েক মহন্তে সত্যেন্দ্রের পানে চাহিয়া রহিল! আবার মখে রমেল দিয়া বলিতে লাগিল—“নিষ্ঠর –নিষ্ঠর ৮-এত নিষ্ঠর আপনি, তা জানতাম না।” সত্যেন্দ্র একটা বিমিত হইল। বলিল—“ও কথা কেন বলছেন তাপনি ?" সবালা হঠাৎ সত্যেন্মের বক্ষে মখ লুকাইয় বলিল—“নিষ্ঠর –আপনি চলে যাবেন? আমায় ফেলে চলে যাবেন ? বাবার আগে আমার গলায় ছাঁর দিয়ে যাবেন। আমার বেচে মরে থাকার চেয়ে, একেবারে মরে যাওয়াই ভাল ” সত্যেন্দ্র এ কথা শুনিয়া যেন আকাশ হইতে পড়িল । কি সব্বনাশ!--এমন ব্যাপার ? তলে তলে এই কাণ্ডটি ঘটিয়াছে ! তাহা তু সে কোনও দিন সবনেও ভাবে নাই ! দই মহত্তের মধ্যে সত্যেন্দ্র নিজ কৰ্ত্তব্য পিথর করিয়া লইল। সবালাকে সে বিবাহ করবে। তাহা ভিন্ন উপায় নাই—না করিলে ঘোর অধক্ষম হয়। সত্যেন্দ্র আদর করিয়া সবালার মুখখানি তুলিয়া ধরিয়া বলিল—“সবালা—কেদ না, চুপ কর। এই যদি তোমার দঃখের কারণ হয়-তা হলে তার প্রতিবিধান ত খুব সহজ ।” সবালা বলিল—“কি প্রতিবিধান তুমি করবে ?—এ কলঙ্ক থেকে আমায় বাঁচাতে - “পারব সবালা-পারব। আমি তোমায় বিবাহ করব—যদি তুমি সম্মতি দাও।--তা হলেই বলের সরে অন্তক ফুল-সাদ বা থান" JS)