পাতা:প্রভাতকুমার মুখোপাধ্যায়ের গল্পসমগ্র.djvu/৭৬৬

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


লাগিল। কিয়ৎক্ষণ প্রবন্ধ দুইটি নীরবে পাঠ করিয়া শেষে বলিয়া উঠিল—“দেখেছেন পাজির চালাকি !” “কি 2” “আরে সর্বনাশ --এর নাম কি প্রবন্ধ : এ যে একেবারে আগন : এই ছাপালেই হয়েছে আর কি ! সঙ্গে সঙ্গে হাতকড়ি ;" “বল কি ?” “শনেন না।”—বলিয়া প্রবন্ধন্বয়ের কয়েকটা স্থান সে পড়িয়া পড়িয়া আমায় শনাইল। আমি বলিলাম—“সব্বনাশ! বোধ হয় আমাদের ফাঁসবার মৎলবেই প্রবন্ধ দুটো রেখে গেছে। দাও ছিড়ে ফেলি।”—বলিয়া প্রবন্ধ দুইটি অমি খণ্ড খণ্ড করিয়া ছিড়িয়া ওয়েস্টপেপার-বাপেকটে ফেলিয়া দিলাম।. অবিনাশ বলিল—“এ বেরলে সদ্য সদ্য আমাদের বিরদ্ধে ১২৪ক—আর পাঁচটি বছর করে শ্ৰীঘর। ওগুলো শধ্যে ছিড়ে ফেললে চলবে না। একেবারে উননে ফেলে দিয়ে আসন। কি জানি, যদি আমাদের আপিস থানাতল্লাসী করায়—ঐ টকরোগলো নিয়ে গিয়ে যোড়া দিয়ে আমাদের বিরধে বিষম প্রমাণস্বরুপ দাঁড় করবে।” আমি বলিলাম, “ঠিক বলেছ অবিনাশ ! তাই বোধ হয় সে রাস্কেলের মৎলব।”— ছিন্নাংশগুলি সাবধানে সংগ্ৰহ করিয়া লইয়া, অন্তঃপরে গিয়া সেগুলি জলন্ত চল্লীতে নিক্ষেপ করিলাম। বসিয়া মাথা গজিয়া একমনে কি লিখিয়া যাইতেছে। চারি পাঁচ তত্ত্বা কাগজ লিখিয়া টেবিলের উপর ছড়াইয়া রাখিয়াছে। জিজ্ঞাসা করিলাম, “হচ্ছে কি ?” “একটা প্রবন্ধ লিখছি।” “কি প্রবন্ধ ?—বলিয়া লেখা কাগজগুলি উঠাইয়া পাঠ করিতে লাগিলাম। দেখিলাম, অবিনাশ ইংরাজ গভর্ণমেন্টের অসামান্য ন্যায়পরতা, অপার সদাশয়তা, আদশ প্রজাবৎসল্য প্রভৃতি সদগণরাশির ব্যাখ্যা করিয়া দীঘ ছন্দে একটি পরম রমণীয় স্তব রচনা করিয়াছে। যে সকল অপরিণামদশী অজ্ঞলোক ঈদশ মহানুভব পিতৃমাতৃতুল্য গভর্ণমেণ্টের বিপক্ষতাচরণ করিতেছে, তাহাদিগকে যৎপরোনাসত গলি দিয়াছে। প্রবন্ধটি পড়িয়া আমি মনে মনে হাসিলাম। বঝিলাম, সেই ডিটেকটিবের কৌশল বিফল করিবার জন্য ইহা অবিনাশের উল্টা চাল-প্রবন্ধ শেষ করিয়া কাগজগুলি গছোইয়া, কোণ ফাঁড়িয়া সীতা গাঁথিয়া বলিল, -—“লিখে দিন—মনোনীত—কাত্তিকের জন্য—লিখে সই করে দিন “ আমি তাহাই লিখিয়া সহি করিয়া দিলাম। অবিনাশ আমার বন্ধি বল—অবিনাশ আমার দক্ষিণ হস্ত। প্রবন্ধটি দেরাজের মধ্যে রাখিয়া অবিনাশ বলিল, “বেলা হয়েছে, এখন তবে বাড়ী চললাম। সনানাহার করিগে।” আমি বলিলাম, “ওহে, এক কাজ কর না। আজ এইখানেই নানাহার কর । কি জানি যদি পলিস-টালিস এসে পড়ে, তুমি থাকলে অনেকটা ভরসা হয় ।” অবিনাশ আমতা আমতা করিয়া বলিল, “আজ ত আমার থাকবার যো নেই মনতোষবাব! বাড়ীতে একজন কুটুম্ব এসেছেন। আমি না গেলে—” আমি বলিলাম—“আচ্ছা, তা যাও, কিন্তু অজ ওবেল একট সকালে সকালে এস।” “তা আসব।”—বলিয়া সে প্রস্থান করিল i দ্বিতীয় পরিচ্ছেদ অবিনাশ সেই যে গেল—আর তিন দিন ধরিয়া তাহার টিকিটও দেখিতে পাইলাম না। এ তিন দিন অত্যন্ত ভয়ে ভয়ে কাটাইলাম। পতাঁত-পতত্রে বিচলিত পত্ৰে-মনে হয় - . . . ১৭২