পাতা:প্রভাতকুমার মুখোপাধ্যায়ের গল্পসমগ্র.djvu/৭৬৮

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


y এমনই নিবোধ বে, বিজ্ঞাপন দেখে ভুলে যাবে --রই কাৎলা কেদার মিত্তিরকে ছেড়ে চনোপটি আমাকে ধরবে ?" - “শর ত বিজ্ঞাপনে নয়, আপনি ভূপতি রায়কেও ত ঐ রকম সব কথা বলেছেন وو؟ "ম মন ভাৰ মন চাপিয়া বালা হাঁ: ভূপতি বা ত ভরি একটা লেতার কথা অমনি গবৰ্ণমেণ্ট শনলে আর কি! তার রিপোটের যদি কোনও ভাল থাকত —তা হলে সেই দিনই আমাদের আপিস খানাতল্লাসী হত না ?” * অবিনাশ সংশয়ের সরে বলিল—“তা বটে।” কাজকম যাহা ছিল, তাহা সারিয়া অবিনাশ বেলা দশটার সময় বাড়ী গেল। অন্যদিন বিকালে তিনটার সময় আসে—এদিন আর আসিল না। তাহার এই অনিয়ম দেখিয়া আমি মনে মনে একটা বিরক্ত হইলাম। সন্ধ্যাবেলা অবিনাশ আসিয়া বলিল, “না কোনও ভয়ের কারণ নেই। আপনি নিশ্চিলত হোন।” বিস্মিত হইয়া জিজ্ঞাসা করিলাম, "কেন, নতন কিছ শনলে নাকি ?” অবিনাশ বলিল, "শ্যামবাজারে বেণীমাধববাব থাকেন, জানেন ত? বড়বাবাপাঁচশো টাকা মাইনে পান। আপনার যদি ডিপোটেশনই স্থির হয়ে থাকে, তবে আর কেউ জানতে পারবার আগে তিনি জানতে পারবেন। তাই মনে করলাম-যাই, গিয়ে কৌশলে সংবাদটা নিই।” "তোমার সঙ্গে আলাপ ছিল ?" “আজ্ঞে না। আলাপ থাকলে ত অসুবিধেই হত। কৌশলে কথা বের করে নেবার মংলবে গিয়েছিলাম কিনা। দেখলাম--তিনি কখনও আপনার নামও শোনেন নি—আয"শক্তি বলে যে একখানি কাগজ আছে, তাও জানেন না। আমরা যা ভয় করেছি, যদি প্তাই হত, তা হলে এতদিন এ সম্বন্ধে কত চিঠিপত্র, কত মন্তব্য ওঁর হাত দিয়ে খেত --আপনার নাম, আর্যশক্তির নাম বেশ ভাল রকমই জানতে পারতেন। তাই একটা ফন্দি "झैँउठ्ला উদগ্রীব হইয়া বলিলাম—“কি—কি—কি ? বল বল—বলত।" অবিনাশ তখন আরম্ভ করিল-“বাবটির কাছে গিয়ে আমি বললাম—আমাকে মনতোষবাবা আপনার কাছে পাঠিয়ে দিলেন। —তিনি বললেন—কোন মনতোষবাব ?”— আমি বললাম ষাঁর আয"শক্তি –তিনি বললেন—পেটেন্ট ওষধ বুঝি ? তা বাপ, পেটেণ্ট ওষদ-ফসদে আমার তেমন বিশ্বাস নেই।—আমি বললাম—না, পেটেণ্ট ওষদ নয় —আয"শক্তি মাসিক পত্রিকা—তিনি বললেন—'মাসিক পত্রিকা ?—না, আমারই ভুল হয়েছে। ওষধটার নাম আয"শক্তি নয়—শক্তিচণ। তা, প্রাণতোষবাব কি বলেছেন ?” —আমি বললাম—প্রাণতোষবাব নয়—মনতোষবাব। তিনি আযীশক্তির সম্পাদক। তিনি আপনাকে এই কথা বলে পাঠালেন—আপনি হচ্ছেন আপিসের বড়বাব, যদি আপনাদের আপিসে অায্যশক্তির গোটাকতক গ্রাহক করে দেন, তবে বড় উপকার হয়। আর আপনি নিজেও যদি গ্রাহক হন। আর্য্যশক্তি খুব ভাল কাগজ—প্রতিমাসে ঠিক পয়লা তারিখে প্রকাশিত হয়। আজকালকার যিনি সব্বশ্রেষ্ঠ ঔপন্যাসিক-অনাদিবাবা-তাঁরই উপন্যাস বিদায়বাণী মাসে মাসে অায্যশক্তিতে বের হচ্ছে। দামও বেশী নয়—বছরে তিনটি টাকা ।” —বাবটি বললেন—সে ত বঝেলাম, কিন্তু আমি একখানা মাসিকপত্র নিই যে। তার নামটা কি ভাল—হ্যাঁ, ধমকেতু। তা বাপ, সেইখানাই পড়ে ওঠবার সময় পাইনে— আবার নতুন মাসিকপত্র নিয়ে কি করব বল? আর, আমার আপিসের বাবদের সম্বন্ধে, আমার বলাটা ভাল দেখায় কি ? তার চেয়ে বরং বেলা দটোর সময় বাবরা যখন টিফিনঘরে তামাক খেতে নামে, সেই সময় সেইখানে গিয়ে তুমি তাদের ধর-কিছ ফল হলেও হতে পারে। আমি তখন একটা ক্ষণস্বরে “ཨ་ཀཱ་ཚཱུ་ལ་ আত্তে—নমসকার -বলে চলে