পাতা:প্রভাতকুমার মুখোপাধ্যায়ের গল্পসমগ্র.djvu/৮৪৫

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


সরেন, টনা-দুইজনেই চমকিয়া উঠিল। সরেন বলিল—“কে কি ?” ঝি বলিল—“বঙ্কুবাব ।” টন বলিয়া উঠিল—“মেজদা এসেছেন :“ - হস্তধারণ করিয়া অন্তঃপর মধ্যে লইয়া আসিল । ষষ্ঠ পরিচ্ছেদ্ধ সন্ধ্যার পর একটি নিজজন কক্ষে বসিয়া সরেন্দ্র জিজ্ঞাসা করিল—“বকুদাদা, ব্যাপার কি ? কি বিপদের কথা আপনি বলবেন, আমি ত কিছুই অনুমান করতে পারছিনে।” বঙ্কুবাব বললেন—“এখানে বলব ? কেউ যদি শুনতে পায় ? বড় গোপনীয় কথা।” “না, এখানে কেউ আসবে না, আপনি নিভয়ে বলন।” বঙ্কুবাব তখন সকল কথা খলিয়া বলিলেন। বঙ্কুবাব বললেন—“ভাই, এর উপায় কি করা যায় ?” সুরেন্দ্র যেমন বসিয়া ছিল, তেমনই বসিয়া রহিল; কোনও উত্তর করিল না? বঙ্কুবাবু বলিতে লাগিলেন—“আমি আজ দুদিন ক্ৰমাগত ভাবছি। দশ্চিন্তায় আমার বধিসদ্ধিও লোপ হবার উপক্রম হয়েছে। কোনও দিকে কুলকিনারা দেখছিনে। এ সকল বিষয় তেমন কিছ জানিও না। তবে সহজ-বন্ধিতে বা মনে হয়, ঐ রকম, কি তার চেয়ে বেশী ক্ষমতাপন্ন কোনও তান্ত্রিক-সন্ন্যাসী যদি পাওয়া যায়, তা হলে ঐ যজ্ঞ নিম্ফল বা হঠাৎ খুজে পাই কোথা তুমি কাউকে জান ?” সুরেন্দ্রনাথ নীরবে শিরশচালনা করিয়া জানাইল-“না।” কিয়ৎক্ষণ নিস্তবন্ধ থাকিয়া বৎকুবাব বলিতে লাগিলেন—“আর এক উপায় হতে পারে; কিন্তু তাতে কোন ফল হবে কি না জানি না। আমরা সবাই—তুমি, আমি, টুন-বিন্ধ্যাচলের সেই সাধবাবার পায়ে গিয়ে লটিয়ে পড়ি। সকল কথা তাঁকে জানাই। বলিবাবা, সে কোনও অপরাধ করেনি, কোনও দোষের দোষী নয়—তাকে কেন নটে করবেন আপনি ? এই কচি মেয়েটা, একে আপনি কি অপরাধে এই বয়সে বিধবা করবেন ?-- টনীর মুখ দেখলেও কি বাবার দয়া হবে না ? তোমার কি মনে হয় ?” সুরেন্দ্রনাথ বলিল—“বকুদাদা, আপনি এই সব হাবাগ বিশ্বাস করেন । আমি রইলাম কোথায়, সে রইল কোথায় কয়লা দিয়ে লোহর তাওয়াতে আমার মাত্তি লিখে, ‘মারয় মারয় শোণিতং পিব পিব জপ করে, অামার মেরে ফেলবে? এ আপনার বিশ্বাস হয় ?” “খবে বিশ্বাস হয়। মারণ, স্তম্ভন, উচাটন—এসব তন্ত্রশাস্ত্রে লেখা রয়েছে যে ভাই ! মুনি-ঋষিরা কি সব মিছে করে লিখে গেছেন ?” “আপনি পড়েছেন ?” "হ্যাঁ, অলপ-স্বল্প কিছ কিছু গড়েছি। ও রকম হয়, তাও শুনেছি। এগারো রাত্রি ঐ রকম প্রক্রিয় করলে, রোগ উপস্থিত হবে-আর ঠিক একুশ দিনের দিন মৃত্যু ! মা না— ও সব গোয়াত্তমি কোরো না। আর তুমি, মুখে বলছ বিশ্বাস কর না, কিন্তু বুকে হাত দিয়ে বন দেখি ভাই, তোমার মনে ভয় হয়নি ?” ঈষৎ হাসিয়া সুরেন্দ্রনাথ বলিল—“ককে হাত দিয়েই বলছি, কিছু ভয় হয়নি।” ”তবে অমন মনুষড়ে পড়েছ কেন ? মাথায় হাত দিয়ে বসে ভাবছ কেন ?” একটা বিষাদের হাসি হাসিয়া সমরেন্দ্র বলিল—“দাদা, আমি কি তাই ভাবছি ? আমি ভাবছি, আমার যিনি জেষ্ঠ--যার এবং క్యాF রস্তু মাংস হাড়গুলি পর্যন্ত