পাতা:প্রভাতকুমার মুখোপাধ্যায়ের গল্পসমগ্র.djvu/৮৬০

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


ইহার এত ব্যথা কেন ?”—কুমাদের দুইটি চক্ষ হইতে দই ফোঁটা জল গড়াইয়া পড়িল । আরও দুই চারি কথার পদ কুমদ বলিল-“দেখ এথেল, আমি তোমার কাছে অপরাধী । আমার অপরাধ তুমি ক্ষমা করিবে কি ?” এথেল বলিল—“কি অপরাধ ?” “মনে বুঝিয়া দেখ—আমি কি তোমার প্রতি কোনও অন্যায় করি নাই ” কুমদের হাতটি ধরিয়া এথেল বলিল—“কেন তুমি আজ একথা বলিতেছ?”—তাহার মকর কাঁদ কাঁদ। কুমদ বলিল—“কেহ যদি কাহারও নিকট কেনিও অপরাধ করে ক্ষমা প্রার্থনা করে না কি ?—তুমি আমায় ক্ষমা কর এথেল।” - কুমদের হাতটি ছড়িয়া দিয এথেল বলিল—“যাও, তুমি যদি ওসব বলিবে—তবে আমি কাঁদিব । তুমি আজ এমন হইয়াছ কেন ?” তাহার ভাব দেখিয়া কুমদ তাহাকে সান্ত্বনা দিতে লাগিল । কুমুদ অন্ধশয়ানভাবে পড়িয়া ছিল—এথেল নিকটে বসিয়া ছিল। আর কিছুক্ষণ এ কথা সে কথার পর, এথেল খেলাচ্ছলে কুমাদের কোটের বোতাম ধরিয়া টানিতে লাগিল। হঠাৎ একটা পথলে কোনও পদাৰ্থ আছে অনুভব করিল। ক্ষিপ্রহস্তে কুমাদের পকেট হইতে সে জিনিষটি টানিয়া বাহির করিয়া রন্ধশবাসে জিজ্ঞাসা করিল--"কুমি—এ কি ” কুমদ বলিল—“ওটা রিভলভার।” “রাত-বিরাত পথে ঘাটে বেড়াই, সঙ্গে থাকা ভাল। দাও, ঘাঁটিও না।” কিন্তু ইহার মধ্যে এথেল বিদ্যুদবেগে উঠিয়া দাঁড়াইয়া, কুমাদের কথা শেষ হইতে না হইতে, দ্রতপদে জলের দিকে ছটিল। “কি কর—কি কর”—বলিয়া কুমদেও তাহার পশ্চাদ্ধাবন করিল। জলের নিকট গিয়া তাহার রাউজের পশ্চাদভাগ চাপিয়া ধাঁরল। তন্মহেনত্তেই এথেল, সাপোস্টাইনের মধ্যভাগ লক্ষ্য করিয়া প্রাণপণ বলে রিভলভারটি নিক্ষিপ্ত করিল। জলের কোনও অদশ্য অংশ হইতে “কব” করিয়া একটা শব্দ শনা গেল। নরশোণিতের পরিবত্তে, সেই শিশরোক্ষস, স্বীয় অগ্নিময়ী তৃষা জলেই নিবারণ করিতে বাধা হইল। পঞ্চম পরিচ্ছেদ এথেলের হস্ত বজ্রমটিতে ধারণ করিয়া কুমদ বলিল--"শয়তানী—একি করিলি " এথেল বলিল—“শয়তান –খবে করিয়াছি—বেশ করিয়াছি—আমার খসী—আমার হাত ছাড়, লাগে ।” কুমদ বলিল—“ভাবিয়াছিস-রিভলভার ভিন্ন আমার অন্য উপায় নাই ?” এথেল বলিল—“উঃ উঃ—আমার হাত কাটিয়া গেল—লাগে যে—ছাড় না--Brute 1" কুমুদ তাহার হাত ছাড়িয়া দিল। ধীরে ধীরে পর্বেপ্ৰথানে আসিয়া বসিল—এবার শয়ন করিল না। এথেল ফিরিয়া আসিয়া বলিল—“দেখ দেখি কি করিয়াছ! আমার রিস্টলেট ভাঙ্গিয়া করেীর মাংসের মধ্যে প্রবেশ করিয়াছে। উহহে ।”—বলিয়া সে হাত ঝাড়িতে লাগিল । পকেটে দিয়াশলাই ছিল—একটা জালিয়া কুমদ দেখিল, এথেল সত্য বলিয়াছে। এলামেলের চড়ি ভাঙ্গিয়া খানিকটা এথেলের কাজীতে প্রবেশ করিয়াছে। রক্ত পড়িতেছে। দেখিয়া কুমুদ তাড়াতাড়ি তাহাকে জলের ধারে লইয়া গেল। ভাগ চড়িটকৈ তুলিয়া, মোল ৬িঞ্জাইয়া পথানটি ধাইয়া দিল। গোটকতক ঘাস ছিড়িয়া সেগুলো বেশ করিয়া নিল তখন দে দি নতু পর রুমাল ছিড়িয়া জলপটি বধিয়া দিল।