পাতা:প্রভাতকুমার মুখোপাধ্যায়ের গল্পসমগ্র.djvu/৮৯৯

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


“ও৫–তুমি ? আচ্ছা, দেখ—আমি চলিয়া যাইবার সময় কুকুরটি বড়ই কাঁদতে লাগিল। এখন আর কাঁদতেছে না ত ?” “না, এখন কাঁদিতেছে না। আপনি চলিয়া যাওয়ার পর অনেকক্ষণ কাদিয়াছিল। মিস ফ্লোরা তাহাকে কত আদর করিতে লাগিল, কেক, বিস্কুট এ সব খাইতে দিল, কখনই খাইল না। খানিক পরে চাপ করিল বটে—কিন্তু মাঝে মাঝে এখনও এক একবার হোউ হোউ করিয়া কাঁদিয়া উঠিতেছে।" কন্টে আশ্ররোধ করিয়া শরৎ জিজ্ঞাসা করিল, “এখন কিছু খাইয়াছে কি ?” “তাহা ত আমি জানি না মহাশয়। তবে মিস ফ্লোরা রান্নাঘরে আসিয়া খানিকটা কোলড ফাউল আর খানিকটা রাই পাডিংস এই কতক্ষণ হইল লইয়া গিয়ছে –আপনি কি ভিতরে আসুিবেন ? গহিণী ঠাকুরাণীকে সংবাদ দিব ?" শরৎ তাড়াতাড়ি রলিল, “না—না—এখন আমি ভিতরে যাইব না। আমি অন্য কাষে যাইতেছি । গড় নাইট।”—বলিয়া দাসী বার রুদ্ধ করিল। শরৎ দীঘনিশ্বাস ফেলিয়া ধীরপদে একটি ফটক পার হইয়া রাজেন্টস পাকের ভিতরেই প্রবেশ করিল। এ সময় হাইড পাকে যেরপে জনতা এখানে সেরুপ নহে। তবে আলোও জলিতেছে, এখানে ওখানে লোকজনও বেড়াইতেছে। শরৎ খুজিয়া খুজিয়া সেই বেষ্টিতে গিয়া বসিল। বসিয়া ভাবিল—“আশ্চৰ্য্য ! এখানেই তাকে পেয়েছিলাম, এখানেই হারালাম।”—রমেল বাহির কবিরা শরৎ চক্ষ মাছিল। বসিয়া বসিয়া কত কথাই সে ভাবিতে লাগিল। এই পাঁচ মাস কুকুরটি করে কি করিয়াছিল, সমস্ত একে একে তাহার স্মরণ হইতে লাগিল। প্রতিদিন যখন সে প্রতরাশের পর বাহির হইত, টোবিও সঙ্গে সঙ্গে বাহির হইতে চাহিত । জোর করিয়া তাহাকে ভিতরে পরিয়া দরজা টানিয়া দিতে হইত। প্রতিদিন বিকালে সে যখন বাড়ী ফিরিত, দ্বার খালিয়াই দেখিত, হলে টোবি চপটি করিয়া বসিয়া আছে। সে প্রবেশ করিবামাত্র টোবির কি আনন্দ-কি লম্মফঝমফ ! ঠিক পাগলের মত ব্যবহার করিত । চায়ের সময় বসিয়া বসিয়া বিস্কুট খাইত। প্রথমে শরৎ টাবির জন্য সস্তা দামের কুকুর-বিস্কুট কিনিয়া আনিয়াছিল। তাহার পর শুনিল, বিস্কুটের কারখানায় দিনাতে ঘর ঝাঁট দিয়া যে সকল টকরা গড়াগাঁড়া জমা হয়, তাহা দিয়াই কুকুর-বিস্কুট প্রস্তুত হয়। সেই কথা শুনিয়া আর সে টেবির জন্য কুকুর-বিস্কুট কিনিত না--অধিক মল্যে দিয়া, মানুষ যে বিস্কুট খায়, তাহাই কিনিত। —তাহার আহার শেষ হইবামাত্র কি রকম করিয়া জানিতে পারত, বাহির হইয়া দাঁড়াইয়া লেজ নাড়িতে থাকত। শরৎ তখন টোবির খাবারের প্লেট নামাইরা দিত—টোবি খাইত । রোট ফাউল তাহার একটি প্রিয় খাদ্য ছিল। দাসী বলিয়াছে, ফ্লোরা তাহার জন্য রানাঘর হইতে ফাউল লইয়া গিয়াছে—কিন্তু টোবি খাইবে কি ? - সন্দেহ। একদিনের কথা মনে পড়িল, তখন মাসখানেক টোবি আসিয়াছে। শরতের বাহিরে ডিনারের নিমন্ত্রণ ছিল । রাত্রি দশটার সময় যখন ফিরিল, ল্যাণ্ডলেভি আহাকে বলিল, “মহাশয়, আপনার কুকুরটি অদ্ভুত । আমরা খাইয়া, প্লেট ভরিয়া খাবার আনিয়া টোবিকে দিলাম, সে পশও করিল না। খালি বাড়ীময় আপনাকে খুজিয়া খুজিয়া বেড়াইয়াছে। শেষে আপনার বসিবার ঘরে, খাবারশখে তাহাকে বধ করিয়া রাখিয়াছি, এখন যদি খাইয়া থাকে ত বলিতে পারি না।”—শরৎ বসিবার ঘরে প্রবেশ করিবামার টোবি মহা লম্ফঝমফ করিতে লাগিল। শুধু লম্মফঝমফ নয় —উল্লাসে চীৎকার করিতে করিতে লক্ষফঝমফ–যেন বলিতেছে—“কোথায় গিয়েছিলে বল দিকিন –আমি ত মনে করেছিলাম, আমায় চিরদিনের জনো ফেলে চলে গেছ--আর তোমায় দেখতে পাব না।”—উত্তেজনা কতকটা প্রশমিত হইলে, তখন টােবি আহারে মন দিল । পবে তাহা পশও করে নাই –শরৎ আবার অশ্লমোচন করিল। ঘড়ি খলিয়া দেখিল, ররি প্রায় ১১টা বাজে। ১১টার সময় ফটক বন্ধ করিয়া দিবে। రిం&