পাতা:প্রভাতকুমার মুখোপাধ্যায়ের গল্পসমগ্র.djvu/৯০৪

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


আড়তখানি এই মাখন সরের সম্পত্তি। ত্রিশ বৎসর পবে কলিকাতায় আসিয়া সর মহাশয় অলপ মুলধনে সামান্য ভাবে এই আড়তখানির পত্তন করেন। কমলা সদয়নেত্রে চাহিলেন—বৎসরের পর বৎসর মাখন ফাঁপিয়া উঠিতে লাগিলেন। আরম্ভে, মাসিক ১২, ভাড়ায় একখানি খেলার বাড়ী লইয়া তিনি সপরিবারে বাস করতেন;—এখন দশমণহাটা কট্রীটে তাঁহার প্রকাণ্ড ত্রিতল অদ্ভালিক । সর মহাশয়ের পত্রদ্বয়ের নাম অদৈবতচরণ ও নিতাইচরণ। জ্যেষ্ঠ অদ্বৈতচরণের বয়স এখন একত্রিশ বৎসর। রঙটি তাহার মিশমিশে ক লো, দাড়ি গোঁফ কামানো, চক্ষ দুইটি ছোট ছোট, তবে দাঁতগুলি বেশ বড় বড় বটে। অদ্বৈত ভারি চালাক চতুর, ব্যবসায়-বন্ধিটা খব; লোকে বলে, বাপের ব্যবসা যদি রাখিতে পারে তবে অদ্বৈতই পরিবে—নিতাইটা কোন কমেমরি নয়। অথচ নিতাই লেখাপড়া জানে, কলেজে পড়িতেছে ; অদ্বৈত ইংরাজির এ-বি-ও জানে না। বাংগালা লেখাপড়–অর্থাৎ শিশবোধক, ধারাপাত, শুভঙ্করী—এই শিখিতে শিখিতেই অদ্বৈত অল্টাদশ বর্ষে পদপিণ করিয়াছিল। জ্যেষ্ঠপত্রকে তখন উপযুক্ত বিবেচনা করিয়া পিতা তাহার বিবাহ দিলেন এবং দোকানে কাজ শিখাইতে লাগিলেন। নিতাই তখন সাত বছরের ছেলে। কি ভাবিয়া বলা যায় না, তাহাকে সরে মহাশয় ইংরাজি স্কুলে ভত্তি করিয়া দিলেন। দোকানের খরিদারগণ মাঝে মাঝে তাঁহাকে ইংরাজিতে পত্রাদি লিখিত। সে সকল পত্র অন্য কাহারও কাছে গিয়া পড়াইয়া আসিতে হইত, জবাব লিখিবার জন্য ইহার উহার তাহার খোসামোদ করিতে হইত; তাই রাগ করিয়া বোধ হয় সরে মহাশয় নিতাইকে ইংরাজি পড়িতে দিয়াছিলেন। তাহার বয়স এখন কুড়ি বৎসর। বি-এ পড়িতেছে—কিন্তু হইলে কি হয়, ব্যবসায়-বুদ্ধি তাহার কিছুই নাই। নিতাই নিতান্ত নিরীহ প্রকৃতির লোক। তাহার রঙটি দাদার মত অত কালো নহে; চোখ দটি বড় বড়, কিন্তু দেহটি কিঞ্চিৎ কৃশ। তিন বৎসর হইল তাহারও বিবাহ হইয়াছে—এখনও সন্তানাদি হয় নাই। অদ্বৈতচরণের দুইটি ছেলে, তিনটি মেয়ে। শ্ৰাদ্ধশান্তি চকিয়া গেল। গ্রাম হইতে এই উপলক্ষে আত্মীয় কুটাব ধাহারা আসিয়াছিল, তাহারাও কালীঘাট, চিড়িয়াখানা, থিয়েটার ও বায়সেকাপ দেখা শেষ করিয়া একে একে বাড়ী ফিরিল। অদ্বৈত, নিতাইকে নিভৃতে পাইয়া বলিল, “এতদিন বাবা বৈ’চে ছিলেন, আমরা দই তাই পৰ্ব্বতের আড়ালে ছিলাম। কোন ভাবনা ছিল না, চিন্তে ছিল না, পায়ের উপর পা দিয়ে বসে খেয়েছি। এখন তাঁর সবগবাস হল। এখন করবারটি সম্বন্ধে কি রকম ব্যবস্থা করা যায় বল দেখি ?" নিতই তাহার চশমাবদ্ধ চক্ষ দুইটি দাদার পানে তুলিয়া ফাল ফাল করিয়া চাহিয়া অদ্বৈত বলিল "এ বিষয়ে তুমি কিছ: ভেবেছ?” নিতাই পাববৎ কয়েক মহত্ত চাহিয়া থাকিয়া বলিল, “আজ্ঞে ?” “কারবারটি সম্ভবন্ধে কি রকম বন্দোবসত করা যাবে, এইবার একটা ঠিক করতে হয় ত। পৈতৃক সম্পত্তি—আমরা দ ভাই—আমার আট আনা, তোমার আট আনা ।” নিতাই এবার চক্ষ নত করিল। বলিল, “ওঃ ” অদ্বৈত বলিল, “দোকান আমার একার নয়,—তোমার আমার দুজনেরই। কি ভাবে দোকান চালান হবে, সেইটে একটা ঠিক কর।” নিতাই বলিল, “আমি ত ও সব বিষয় কিছ জানিনে দাদা। আপনি যা ভাল বোঝেন—” অদ্বৈত তাহীর নেড়া মাথার পশ্চাদভাগে হাত বলাইতে বলাইতে বলিল, “দোকানটি, ধর, যেমন চলছিল সেইভাবেই চলবে ত? আর না হয়, তুমি যদি আলাদা হয়ে কারবার চালাতে চাও—তাও হতে পারে। পাড়ার পাঁচজন ভদ্রলোককে ডেকে বাড়ীখানা, আর iদাকানে যা আছে, দুজনকে তাঁরা ভাগ-বাটরা 諡 দিতে পারেন। ভবিষ্যতে কোন রকম ుర్ఫిO