পাতা:প্রভাতকুমার মুখোপাধ্যায়ের গল্পসমগ্র.djvu/৯২০

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


ক্তিজ্ঞসর অধিকার দাবী করল। কোনও পক্ষই নিজ দাবী ত্যাগ করতে সক্ষমত নহে। অবশেষে বন্ধগণ মীমাংসা করিয়া দিলেন, হীর দত্ত মহাশয় একটা ছড়ি ঘরাইয়া উদ্ধেৰছড়িয়া দিউন, ছড়ি ষে গ্রামের অভিমুখে মাথা করিয়া পড়িবে, সেই গ্রামের মাস্টার প্রথমে মানে জিজ্ঞাসা করিবার অধিকার পাইবেন। “আমার ছড়ি লউন—আমার ছড়ি লউন” বলিয়া উভয় উভয় গ্রামের অনেকেই ছটিয়া উদ্ধের উৎক্ষিপ্ত করিলেন । ক্ৰমে ছড়ি আসিয়া ভূমিতে পতিত হইল। সকলে দেখিল, তাহার মাথাটি নন্দীপরের দিক হেলিয়া রহিয়াছে। নন্দীপর ইহা দেখিয়া উল্লাসে চীৎকার করিয়া উঠিল; গোঁসাইগঞ্জের মুখটি চণ হইয়া গেল। সকলে সাগ্রহে বিচার ফলের জন্য প্রতীক্ষা করিয়া রহিল। নন্দীপরের হারাণ মাটার তখন বক ফলাইয়া সম্মখে আসিয়া দাঁড়াইলেন; ব্রজ মাস্টারও উঠিয়া দাঁড়াইলেন; তাঁহার বকটি দর দর করিতে লাগিল; কিন্তু প্রাণপণ চেন্টায় মুখে সে ভাবকে তিনি প্রকাশ পাইতে দিলেন না। হারাণ মাস্টার তখন বলিলেন, “slīpās, zizi zņîsi až zmrzi îș– HoRNs of A DILEMMA” সৌভাগ্যক্ৰমে ব্রজ মাস্টার এই কািট প্রশ্নের অর্থ অবগত ছিলেন। তিনি বক ফলাইয়া, সাহস্য বদনে বলিলেন, “এর মানে— উভয়-সঙ্কট —কেমন কি না ?” “পেরেছে—পেরেছে—আমাদের মাস্টার পেরেছে”—বলিয়া গোঁসাইগঞ্জ তুমলে কোলাহল আরম্ভ করিয়া দিল। দলপতিগণ অনেক কটে তাহাদের থামাইলেন। এখন ব্রজ মাস্টারের প্রশ্ন জিজ্ঞাসার পালা আসিল । ব্রজ মাস্টার উঠিয়া দাঁড়াইয়া বলিলেন— . “শোন হারাণবাবু, আমি তোমায় কোনও কঠিন প্রশ্ন করতে চাইনে, বরং খুব সহজ দেখেই একটা জিজ্ঞাসা করব। এ অঞ্চলে, মনে কর, তুমি আর আমি, এই দ’জনে ষা ইংরেজিনবীশ আছি। একটা শক্ত কথার মানে জিজ্ঞাসা করে তোমায় ঠকিয়ে দেবে, সেটা আমার মনঃপত নয়। এতে হয়ত গোঁসাইগঞ্জ রাগ করতে পারেন—কিন্তু আমি নিজে একজন ইংরেজিনবীশ হয়ে, আর একজন ইংরেজিনবীশের প্রকাশ সভায় অপম ন ত করতে পারিনে! আচ্ছা, খুব সহজ একটা কথার মানে জিজ্ঞাসা করে--বেশ হেকে উত্তর দাও, যাতে দই গ্রামের সকলে শুনতে পায়। আচ্ছা এর মানে কি রল দেখি—তুমি জান নিশ্চয়ই —আচ্ছা এর মানে বল—I DON'T KNow, হারাণ মাস্টার উচ্চস্বরে বলিল-“আমি জানি না " শ্রবণমাত্র নন্দীপরের সকলের মুখ একেবারে পাংশ বর্ণ ধারণ করিল। সেই মহেত্তে" গোঁসাইগঞ্জের দল একসঙ্গে দাঁড়াইয়া উঠিয়া বিপলে বেগে নত্য ও চীৎকার করিতে লাগিল --“হো হো জানে না—নন্দীপর জানে না--হেরে গেল দাও—দও।” হারাণ মাস্টার, মহা বিপন্ন ভাবে সকলকে কি বলিতে চেন্টা করিলেন, কিন্তু ঠিক সেই সময় গোঁসাইগঞ্জের ঢাক ঢোল কাড়া নাগারা ও রামশিঙ্গা সমবেত ভাবে গজন করিয়া উঠিল। তাঁহার কথা আর কাহারও শ্রীতিগোচর হইবার সম্ভাবনা রহিল না। গোঁসাইগঞ্জ-নিবাসী কয়েকজন বলশালী লোক আনন্দে নত্য করতে করিতে অগ্রসর হইয়া আসিল, এবং তন্মধ্যে একজন ব্রজ মাস্টারকে সকন্ধের উপর তুলিয়া লইয়া গ্রামাভিমুখে চলিল। সকলে তাহাকে ঘিরিয়া নতো করিতে করিতে, বাদ্যভান্ডের সহিত গ্রামে ফিরিয়া আসিল। পরদিন শনা গেল হারাণ মাছটার নন্দীপর তাগ করিয়া চলিয়া গিয়াছেন । তথায় মকুলটি বন্ধ হইয়া গেল। গোঁসাইগঞ্জে ব্রজ মাস্টার অপ্রতিহত প্রভাবে মাস্টারি এবং গ্রামস্থ সকলের অপত্য নিবিশেষে ক্ষীর ননী ছানা ভূঞ্জন করিতে লাগিলেন। { অশ্বিন, ১৩২৬ ] లిపిఱ