পাতা:প্রাচীন বাঙ্গলা সাহিত্যে মুসলমানের অবদান.djvu/১০৮

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


প্রাচীন বাঙ্গল সাহিত্যে মুসলমানের অবদান సెని AMASAMAM পল্লী-গীতিক সংগ্ৰহাৰ্থ যখন আমাকে ডিরেক্টার ওটেন সাহেব চারটি লোক দিতে চাহিয়াছিলেন, প্রত্যেকের বেতন ৭•২ টাকা, তখন তিনি প্রস্তাব করিয়াছিলেন যে, ৭০ টাকা বেতনে ভাল গ্র্যাজুয়েট পাওয়া কঠিন হইবে না। আমি তদুত্তরে বলিয়াছিলাম যে—“আমি গ্র্যাজুয়েট চাই না, যাহার চাষার কুটিরে পা দিতে সহজে স্বীকৃত হইবে না এবং তাহাঁদের কথিত গানগুলি শুদ্ধ না করিয়া লিখিতে পারিবে না, নিম্নশ্রেণীর কাছে আসিলে যাহাদের গা ঘিন্‌ঘিন করিবে, এমন লোক আমি চাহিনী ; যাহারা দরদ দিয় তাহাদের আনন্দে যোগ দিতে পারিবে এবং তাহদের কথিত গানের একটি মাত্র বর্ণ না বদলাইয়। ঠিক তাহারা যেভাবে বলিবে, সেইভাবে টুকিয়া লইতে পারিবে, সেইরূপ লোক আমি চাই ; গ্র্যাজুয়েটদের মধ্যে এরূপ লোক সহজে মিলিবে না।” এইভাবে আমি সেই সন্মানিত শ্রেণীর লোকদের আবেদন অগ্রাহ্য করিয়া প্রকৃত দরদী লোক কয়েকটি নিযুক্ত করিয়াছিলাম। আমি বহু বৎসরের চেষ্টায় যে কয়েকটি লোককে একায্যের জন্ত বিশেষভাবে প্রস্তুত করিয়াছিলাম, এখন তাহার কাণ্ডারীবিহীন মাঝির স্তায় সংসার-সমুদ্রে হাবুডুবু খাইতেছে, এই সকল গুণী এখন কোনখানেই আশ্রয় পাইতেছে না। এইভাবে পল্পী-সাহিত্যের বিরাটত্ব সম্বন্ধে আমি ইতিপূৰ্ব্বেই লিখিয়াছি। কত শত বাউল ও ফকির যে এই সাহিত্যকে সমৃদ্ধ করিয়াছেন, তাহার ংখ্যা নাই। বাউল গান, মুরশিদ গান, জারি গান, পল্লী-গাথা পল্লীর ভক্ত ও প্রেমিকদের মুখ হইতে শিউলি-ফুলের দ্যায় অজস্র ফুটিতেছে ও ঝরিয়া পড়িতেছে। এই অবজ্ঞাত সাহিত্য শিক্ষিত সম্প্রদায়ের দ্বারা উপেক্ষিত। আমরা জনকতক শিক্ষাভিমানী লোক ইংরেজীর শিক্ষানবিশী করিয়া গত অৰ্দ্ধ-শতাব্দীর মধ্যে যে একটি অৰ্দ্ধ-পঙ্ক সাহিত্যের সৃষ্টি পূৰ্ব্বক তাহারই স্পৰ্দ্ধায় গগন-মেদিনী