পাতা:প্রাচীন বাঙ্গলা সাহিত্যে মুসলমানের অবদান.djvu/১৬২

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


প্রাচীন বাঙ্গল সাহিত্যে মুসলমানের অবদান )(t ○ কি এক ভাবনা ভাবে, মুখে নাই বাত, ছেড়া কাপড় ছেড়া কোৰ্ত্তা, টুপি নাই মাথাত ॥” এই গীতিকাটিতে প্রাদেশিকত৷ অতান্ত বেশ কিন্তু তৎসত্ত্বেও ইহা বাঙ্গলা ভাষার অসাধারণ শক্তি প্রমাণ করিতেছে। মনের ভাব ব্যক্ত করিতে বাঙ্গলা ভাষার যে অনিৰ্ব্বচনীয় ক্ষমতা আছে, তাহা বিস্ময়কর। মালেকের পিতা নজু মিঞা কাইচ নদীতে ঝড়ে নৌকাডুবি হইয়। মারা যায়, নজুর আশা বছর বয়স্ক মা--মালেককে বুকে করিয়| বিলাপ করিতেছেন। বৃদ্ধার বর্ণনা এইরূপ— “আশী বছরের বুড়ী দুই ওক্ত রাধে। সাগরে জোয়ার আইলে বুক কুটি র্কাদে ॥ কঁাদে বুড়ি রব করি শুনিতে অদ্ভুত। হাড়ি কুমীরের মত করে ‘স্থত ‘হুত ॥* জোয়ারে না আইলি রে পুত, ভাটায় না আইলি । কোন হাঙ্গরে কোন কুমীরে আমার পুতরে খাইলি ॥ নাভীরে লইয়া বুকে র্কাদে তার দাদী। ছাওয়াল লাভীরে মোর না করালি সাদি ॥” ছোটকালের প্রেম সম্বন্ধে কবি লিখিয়াছেন— “ছোট কালের পরিভি রে ভাই কঁাটালের আটা। ছাড়ালে না ছাড়া যায় এক্ষি বিষম লেটা ॥ ছোট কালের পরিতিরে কোকিলের রা। উতরি উতরি উঠে, কলজগতে মারে ঘা ৷ ছোট কালের পরিভিরে নারিকেলের তেল। জমিয়া ছিল শীতের রাইতে রৈদে উনাই গেল।”

  • Tহত-পুত শব্দের অপভ্রংশ।