পাতা:প্রায়শ্চিত্ত ১৯২০ - রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/৬১

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


প্রায়শ্চিত্ত \9x উদয়াদিত্যের প্রবেশ স্বরমা । আজ ধনঞ্জয় বৈরাগীকে আমাদের মন্দিরে গান গাবার জঙ্গে ডেকে পাঠিয়েছি। উদয়াদিত্য । সে তো হবে না ! স্বরম। কেন ? উদয়াদিত্য । তাকে মহারাজ কয়েদ করেছেন । স্বরম। কী সর্বনাশ! আমন সাধুকে কয়েদ করেছেন ! উদয়াদিত্য । ওটা আমার উপর রাগ করে। তিনি জানেন, আমি বৈরাগীকে ভক্তি করি— মহারাজের কঠিন আদেশেও আমি তার গায়ে হাত দিই নি— সেইজন্তে আমাকে দেখিয়ে দিলেন রাজকাৰ্য কেমন করে করতে হয় । স্বরম। কিন্তু এগুলো যে অমঙ্গলের কথা— শুনলে ভয় হয়। কী করা যাবে ! উদয়াদিত্য। মন্ত্রী আমার অনুরোধে বৈরাগীকে গারদে না দিয়ে তার বাড়িতে লুকিয়ে রাখতে রাজি হয়েছিলেন। কিন্তু ধনঞ্জয় কিছুতেই রাজি হলেন না। তিনি বললেন, আমি গারদেই ৰাব, সেখানে স্বত কয়েদি আছে তাদের প্রভূর নামগান শুনিয়ে আসব। তিনি যেখানেই থাকুন তার জন্তে কাউকেই ভাবতে হবে না, তার ভাবনার লোক উপরে उषt८छ्न । স্বরম। মাধবপুরের প্রজাদের জন্তে আমি সব লিধে সাজিয়ে রেখেছি —কোথায় সব পাঠাব ? উদয়াদিত্য । গোপনে পাঠাতে হবে। নির্বোধগুলো আমাকে রাজারাজা করে চেচাচ্ছিল, মহারাজ সেটা শুনতে পেয়েছেন— নিশ্চয় তার ভালো লাগে নি। এখন তোমার ঘর থেকে তাদের খাবার পাঠানো হলে মনে কী সন্দেহ করবেন বলা যায় না।