পাতা:ফুলমণি ও করুণার বিবরণ.djvu/২০

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


অবস্থা দেখিয়া সে অতিশয় দুঃখিত হইয়া বলিতে লাগিল, হায় কৰুণা! তুমি কি করিলা? আমার সুন্দরীর চারাটি গেল। কৰুণা বলিল, আমাকে ক্ষমা কর। ফুলমণি, আমি এই বিষয়ে বড় দুঃখিত হইয়াছি। তুমি ঐ গাছটিকে তোমার সুন্দরীর নিশান স্বৰূপ জ্ঞান করিয়া অত্যন্ত ভাল বাসিতা, তাহা অামি জানি।

 ইহা শুনিয়া ফুলমণির ক্ৰোধ নিবৃত্তি হইল, পরে সে হাস্য মুখে বলিল, ক্ষতি নাই। ইহাতে ধৰ্ম্মপুস্তকের একটি অতি সান্ত্বনাদায়ক পদ আমার স্মরণ হইতেছে। হায় কৰুণা। তুমি যদি আপন মনে ঐ কথার বহুমূল্যতা জ্ঞাত হইতা, তবে তোমার দুঃখ অনেক ন্যূন হইত। সে কথা এই, “তৃণ শুদ্ধ হয়, ও পুষ্প ম্লান হয়, কিন্তু আমাদের ঈশ্বরের বাক্য নিত্য স্থায়ী।” য়িশয়িয় ৪০৷ ৮৷

 কৰুণা নিশ্বাস ত্যাগ করিয়া কিছু উত্তর করিল না, কিন্তু আমি তাহার মুখপানে তাকিয়া অনুমান করিলাম, সে ফুলমণির স্বভাব পাওয়া হইতে ইচ্ছা করিতেছিল। অবশেষ কৰুণা আপন সুশীলা বন্ধুর নিকটে বিদায় লইয়া আমাকে সেলাম দিয়া তৈলপাত্র হাতে করিয়া চলিয়া গেল।