পাতা:ফুলমণি ও করুণার বিবরণ.djvu/২৩৩

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


২৩১ তুমি আর কোন কথা বুঝিতে পার নাই, তাঙ্ক আমাকে বল । কৰুণ কহিল, মেম সাহেব, পঞ্চম নিয়ম এই, “তোমরা ভোজন পান প্রভৃতি যে কোন কৰ্ম্ম কর, সে সকলি ঈশ্বরের মহিমা পুকাশের নি. মিত্তে কর ;” কিন্তু আমাদিগকে দিনে ২ অপেন সন্তোষের নিমিত্ত্বে অনেক প্রকার ক্ষুদ্র ২ কৰ্ম্ম করিতে হয়, তবে সে সকল কৰ্ম্মছারী ঈশ্বরের মহিমা কিৰূপে প্রকাশ হুইবে? আমি কছিলাম, কৰুণা, বোধ করি পোল পুেরিত ঐ বিধি দৃঢ়ৰূপে স্থাপন করিবার জন্যে এই পুকার কথা লিখিলেন। সেই কথার অভিপ্রায় এই, কেবল মহৎ কৰ্ম্মে নয় বরণ ক্ষুদ্র কৰ্ম্মেও ঈশ্বরের মহিমা প্রকাশ করা উচিত ; তাহাতে বোধ হয়, তিনি দৃষ্টান্তভাবে ভোজন পান করিবার বিষয় কহিলেন । ভোজন পানদ্বারা মে ঈশ্বরের মহিমা প্রকাশ করা যায় না, এমত অনুমান করিও না ! অনেক খ্ৰীষ্টিয়ান লোকের এই বাকেতে মনোযোগ না করিয়া কেবল আত্মসুখের জন্যে আহারাদি করে, কিন্তু এমত করা উচিত নয়। ইন্দ্রিয়গণের বশীভূত ব্যক্তি পেটুক হইয়। অপরিমিত ভোজন পান করে, তাহাতে তাহার