পাতা:বঙ্কিমচন্দ্রের উপন্যাস গ্রন্থাবলী (তৃতীয় ভাগ).djvu/২৬৬

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


ԳՀ সে কয় দিন নয়নতারার কাছে ঘেঁসিতে পারে নাই। নয়নতারার কতকগুলি ছেলেমেয়ে হইয়াছিল। তাদেরই বিপদ বেশী। এ কয় দিন মার খাইতে খাইতে তাদের প্রাণ বাহির হইয়া গেল । সেই দেবীর শ্ৰীমন্দিরে প্রথম সাগর গিয়া দেখা দিলেন । দেখিয়া নয়নতারা বলিল, “এসে ! এসো ! তুমি বাকী থাক কেন ? অার ভাগীদার কেউ আছে ?” সাগর। কি, আবার না কি বিয়ে করেছে ? ময়ন । কে জানে, বিয়ে কি নিকে, তার খবর আমি কি জানি ? সাগর । বামণের মেয়ের কি আবার নিকে হয় ? নয়ন। বামণ কি শূদ্র, কি মুসলমান, তা কি আমি দেখতে গেছি ? সাগর । অমন কথাগুলো মুখে এনে না । আপনার জাত বঁচিয়ে সবাই কথা কয় । নয়ন। যার ঘরে এত বড় কনে বউ এলো, তার আবার জাত কি ? সাগর । কত বড় মেয়ে ? অামাদের বয়স হবে ? নয়ন । তোর মা'র বয়সী। সাগর। চুল পেকেছে ? নয়ন । চল ন পাকৃলে আর রাত্রিদিন বুড়ে মাগী ঘোমটা টেনে বেড়ায় ? সাগর । দাত পড়েছে ? নয়ন। চুল পাকৃলো, দাত আর পড়েনি ? সাগর। তবে স্বামীর চেয়ে বয়সে বড় বল ? নয়ন। তবে শুনছিস কি ? সাগর। তাও কি হয় ? নয়ন । কুলীনের ঘরে এ সব হয় । সাগর । দেখতে কেমন ? নয়ন ৷ রূপের ধ্বজা ! যেন গালকুলে গোবিন্দের মা । সাগর। যে বিয়ে করেছে, তাকে কিছু বল নি ? নয়ন। দেখতে পাই কি ? দেখতে পেলে হয়। মুড়ো ব্যটি তুলে রেখেছি। সাগর । আমি তবে সে সোনার প্রতিমাখানা দেখে আসি । নয়ন। যা, জন্ম সার্থক কর গে যা । নূতন সপত্নীকে জিয়া সাগর তাহাকে পুকুরঘাটে ধরিল। প্রফুল্ল পিছন ফিরিয়া বাসন মাজিতেছিল। সাগর পিছনে গিয়া জিজ্ঞাসা করিল, হঁ, গা, তুমি আমাদের নূতন বউ?" “কে, সাগর এয়েছ ?” বলিয়া.সূতন বউ সম্মুখ ফিরিল। সাগর দেখিল, কে । বিস্ময়াপন্ন হইয়া জিজ্ঞাসা করিল, “দেবী রাণী ?” - প্রফুল্ল বলিল, “চুপ । দেবী মরিয়া গিয়াছে।” সাগর। প্রফুল্ল ? প্র। প্রফুল্ল মরিয়াছে। সা। কে তবে তুমি ? প্র । আমি নুতন বউ । সা। কেমন ক’রে কি হ’লো, আমায় সব বল দেখি । প্র । এখানে বলিবার জায়গা নয় । আমি একটি ঘর পাইয়াছি, সেইখানে চল, সব বলিব । দুই জনে দ্বার বন্ধ করিয়া-বিরলে বসিয়া কথোপকথন হুইল। প্রফুল্ল সাগরকে সব বুঝাইয়া বলিল । শুনিয়া সাগর জিজ্ঞাসা করিল, “এখন গৃহস্থালীতে কি মন টিকিবে ? রূপার সিংহাসনে বসিয়া, হীরার মুকুট পরিয়া, রাণীগিরির পর কি বাসনমাজা, ঘরবfাট দেওয়া ভাল লাগিবে ? যোগশাস্ত্রের পর কি ব্ৰহ্মঠাকুরাণীর রূপকথা ভাল লাগিবে ? যার হুকুমে দুই হাজার লোক খাটিত, এখন হারির মা, পারির মা’র হুকুমবরদারি কি তার ভাল লাগিবে ?” প্র। ভাল লাগিবে বলিয়াই আসিয়াছি। এই ধৰ্ম্মই স্ত্রীলোকের ধৰ্ম্ম । রাজত্ব স্ত্রীজাতির ধৰ্ম্ম নয় । কঠিন ধৰ্ম্মও এই সংসারধৰ্ম্ম ; ইহার অপেক্ষ কোন যোগই কঠিন নয় । দেখ, কতকগুলি নিরক্ষর, স্বার্থ পর, অনভিজ্ঞ লোক লইয়া আমাদের নিত্য ব্যবহার করিতে হয়। ইহাদের কারও কোন কষ্ট না হয়, সকলে সুখী হয়, সেই ব্যবস্থা করিতে হইবে । এর চেয়ে কোন সন্ন্যাস কঠিন ? এর চেয়ে কোন পুণ্য বড় পুণ্য ? আমি এই সন্ন্যাস করিব। স। তবে কিছু দিন আমি তোমার কাছে থাকিয়া তোমার চেলা হইব । যখন সাগরের সঙ্গে প্রফুল্লের এই কথা হইতেছিল, তখন ব্ৰহ্মঠাকুরাণীর কাছে ব্রজেশ্বর ভোজনে বসিয় : ছিলেন । ব্রহ্মঠাকুরাণী জিজ্ঞাসা করিলেন, "বেঞ্জ এখন কেমন রাধি ?” † ব্ৰজেশ্বরের সেই দশ বছরের কথা মনে পড়িল । কথাগুলি মূল্যবান—তাই দুই জনেরই মনে ছিল। ব্ৰজ বলিল, “বেশ ।” ব্ৰহ্ম । এখন গোরুর দুধ কেমন ? বেগড়ায় কি ? ব্রজ। বেশ জুধ । ব্ৰহ্ম । কই, দশ বৎসর হলো—আমায় ত গঙ্গায় দিলি না ?