পাতা:বঙ্গদর্শন-প্রথম খন্ড.djvu/১৪৫

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


স্বতৱাং মুনি গোসায়ের বিজ্ঞতা উচ্ছখল হইয়া যায়। বাসদেবদিগের রসকতা সকল সময়ে সম্প্রস হয় না. - ন! হটক—রসিকান্ত। করিতে ভইলে । রনে সবস হউক বা ন:রস হউক।--তfগতে কেই হামুক পা ন হাসুক — JDKK BBB B BBBB BBBJB কপ{ পঙ্গুষ্টোধে সন্তাকে মিথ্য করতে হয়, তাছা ও স্বীপ-ব ; নন্দনীয়কে পূজা করতে হয়, বা পূজ্যকে নিনা ক’বতে হয়, তাকাতেও ক্ষতি নাই ; রসিকতার স্রোতঃ না মন্দ পড়ে। পূৰ্ব্বে এ শ্রেণীৰ লেখক এদেশে সচৰাচৰ দেখা ৰাষ্টত না । পাচলি এবং কবিওয়ালা ও যাত্রার দলে ইহার প্রাচুর্ভাব ছিল। কুক্ষণে হুতম পেচার নক্সা এদেশে প্রচার হইল । সেষ্ট পর্য্যস্ত এষ্ট লেখকগুলির রসিকতায় দেশ প্লাবিত হইতেছে ! রসিকতা, বাচনিক হউক বা লিখিত হউক, সৰ্ব্বত্র সমান প্রকৃতি দেখা যায়। প্রচলিত রসিক তা লন প্রকাৰ । প্রথম, প্রাচীন বরকতা । কেহু কাচাকে সম্বন্ধ লিপৃিদ্ধ কোন দোষারোপ কবিতে পরিলেই আপনাকে রসিকতায় পারদর্শী বিবেচনা করেন । এষ্ট প্রকাল রসিকতা প্রাচীন সম্প্রদায়ের মধ্যেই বিশেষ আদৃত। বৃদ্ধ গাঙ্গুলি মহাশয়, যদি কোন প্রকারে টঙ্গত করিতে পারিলেন, ৰে শম খাগুড়ে, কি যদু বউও, তবেই তিনি সে দনের মত রসিকতাপ জয়পতাকা বাধলেন । • ষ্টগরষ্ট সম্প্রসারণে দ্বিতীর প্রকাবের রসিকতার স্বষ্টি. কেহ কাকাকে যে কোল প্রকারে গালি দিলেই মনে করেন যে, জামি বিশেষ রসিকতা করিলাম। পরের মাতৃ পিতৃ প্রভৃতি সম্বন্ধে কাৰ্য্য কথা বলিতে পারিলেট এরূপ রসিকতার চরম হুইল । সুতরাং গ্রাম্য বালকেবা এইরূপ রসিকতায় #*क -श्t७ङ ! ख्ट्ठांभद्रश्रौंज़ब्र অতু রসিকতা । ' করণে ব্ৰতী লেখকের প্রায় তাহাদের কাছে? কাছে যান · · 暑 তৃতীয় শ্রেণীর রসিকের রসিক চূড়ামণি । ; অশ্লীলতাই উহাদের কাছে রসিকত । কোন ক্রমে অনুষ্ঠায্য কোন কথা ব্যক্ত কবিতে পাবলেই. তাঙ্কার রসিক তার একশেষ করিলেন । যাঙ্গা ভদ্রের অশ্রাবা বা অপাঠ্য, এবং সুনীতির বিনাশক, তাহাই তাহীদের কাছে রসিকতা । কথাগুলি স্পষ্ট বলিতে পরিলেই তাঁহাদের মনেম মত রস ছড়ান হয়, কিন্তু আইনের দৌরাত্ম্যে কেবল ইঙ্গিতে রসিকতা করিয়াই অনেককে ক্ষান্ত থাকিতে झग्न ! আর এক প্রকারের রসিকতা কেরল চাপল্যমাত্র । গ্ৰাম্য ইতর ভাষায় তাহার নাম “বাপাই ঝোড়া।” অনবরত মুখভঙ্গী, নিয়ত হস্তপদ সঞ্চালন, দিলাবাত্র হাসিলার এবং হাসাইবার নিষ্ফল উদ্যম, এই রসিকতার স:নগ্রী । যাত্রাব, “ভুলুরা” এবং “মটরূ” এক্ট সকল শ্রেণীর রসিকদিগের অদিশ । যে ব্যক্তি মুখে মুখে এই রূপ রসিকতা কবিগার জন্য কষ্ট করে, তাহার দুঃখ দেখিয়া দুঃখ হয়, রাগ হয় না । কিন্তু যে সকল লেখক এরূপ ভুলুল্লা গিরিতে প্রবৃত্ত, - তাহদের রসিকতা অসহ্য । আধুনিক নাটক লেখকদিগের মধ্যে অধিকাংশ, এবং হুতোষ সম্প্রদায়ের মুখ্যে অনেকে এই শ্রেণীৱ রসিক । রসিকতা করিবার জন্তু গুহারা - অভ্যস্ত अकब्र ; मछ गर्कमाझे ब्रहिङ्गऊ ; अल-छबौद्र বিরাম নাই ; চক্ষুর লানা রূপ বিকৃতি ; কিন্তু রসিকতার উপকরণের মধ্যে কতকগুলিন মীরস, অসংলগ্ন, অ देउब्र कथा । তাঙ্গাদেব গ্রন্থে একটু একটু তাড়িখালীন গন্ধ থাকে ।