পাতা:বঙ্গদর্শন-প্রথম খন্ড.djvu/৪৬

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


एव' ँन, *षः, s२१• ') দও প্রণেতা ੋ, उाशत्र शङ्कांव नाम বীরত্ব। . আপনারা, যখন সভ্যসমাজে অধিষ্ঠিত হইবেন, তখন এই সকল নাম-বৈচিত্র স্মরণ রাখিবেন, নচেৎ লোকে অসভ্য বলিৰে । বস্তুতঃ, আমার বিবেচনায় এত বৈচিত্রের প্রয়োজন নাই ; এক উদর-পূজা নাম রাখিলেই বীরত্বাদি সকলই বুঝাইতে পাবে । e সে বাঙ্গই ইউক, যাহা বলিতেছিলাম শ্রবণ করুন । মঙ্কয্যেবা বড় ব্যাঘ্রভক্ত । আমি, একদা” মনুষ্যবসতি মধ্যে বিষয়কৰ্ম্মেীপলক্ষে গিয়াছিলাম। শুনিয়াছেন, কয়েক বংসর হইল এই সুন্দরবনে পোর্ট ক্যানিং কোম্পানি স্থাপিত হইয়াছিল।” মঙ্গদংষ্ট্র পুনরায় বক্তৃত বন্ধ করাইয় জিজ্ঞাসা করিলেন, “পোর্ট ক্যানিং কোম্পানি কিরূপ জন্তু ?” • বৃহন্নাঙ্গল কছিলেন, “তায় আমি সবিশেষ অবগত নহি । ঐ জন্তুর আকার হস্তপদ্ধাদি কিরূপ, জিঘাংসাই বা কেমন ছিল, ঐ সকল আমরা অবগত নহি । শুনিয়াছি, ঐ জন্তু মন্থয্যের প্রতিষ্ঠিত ; মনুষ্যদিগেরই হৃদয়শোণিত পান কথিত ; এবং তাঙ্গীতে বড় মোটা হইয়া মবিয়া গিয়াছে। মনুষ্যজাতি অত্যন্ত অপরিণামদর্শী। আপন আপন ধধোপায় সৰ্ব্বদা আপনারাই স্বজন করিয়া থাকে। মনুযোেব যে সকল অস্ত্রাদি ব্যবহাব করিয়া থাকে, সেই সকল অস্ত্রই এ কথার প্রমাণ । মনুষ্যবধই ঐ সকল অস্ত্রের উদ্দেশ্য। শুনিয়াছি, কখন কখন সহস্ৰ সহস্ৰ মনুষ্য প্রাস্তুর মধ্যে সমবেত হইয়া ঐ সকল o ব্র্যাম্ৰাচাৰ্য বৃহন্নাঙ্গল। 3 Y অস্ত্রাদির দ্বারা ཨཱི་ཨ་གྷ་ প্রহার করিয়া বধ । করে। আমার বোধ হয়, মনুষ্যগণ পরম্পরের | বিনাশার্থ এই পোর্ট ক্যানিং কোম্পানি নামক রাক্ষসের স্বজন করিয়াছিল। সে যাহাই হউক, আপনার স্থির হইয় এই মনুষ্য-বৃত্তান্ত ! শ্রবণ করুন। মধ্যে মধ্যে রসভঙ্গ করিয়া প্রশ্ন জিজ্ঞাসা করিলে বকৃত হয় না । সভ্য- { জাতিদিগের এরূপ নিয়ম নহে । আমরা { এক্ষণে সভ্য হইয়াছি, সকল কাজে সভ্যদিগের | নিয়মানুসাবে চলা ভাল । আমি একদা সেই পোর্ট ক্যানিং কোম্পা- | নির বাসস্থান মাতলায় বিষয়-কৰ্ম্মোপলক্ষে । গিয়াছিলাম। তথায় এক বংশ-মণ্ডপ-মধ্যে | একটা কোমল মাংসযুক্ত নৃতাশীল ছাগবৎস দৃষ্ট ! করিয়া, তদাস্বাদনার্থ মণ্ডপ-মধ্যে প্রবিষ্ট । হইলাম। ঐ মণ্ডপ ভৌতিক—পশ্চাৎ | জানিয়াছি, মনুষ্যেবা উহাকে ফাজ বলে। ] আমার প্রবেশ মাত্র আপন হইতে তাহার | দ্বার রুদ্ধ হইল। কতকগুলি মনুষ্য তৎপরে | সেইখানে উপস্থিত হইলু। তাহারা আমার দর্শন পাইয়া পরমানন্ধিত হষ্টম, এবং আহ্লাদস্বচক’ চীৎকার, হাস্য, :রিহাস;দি করিতে লাগিল। তাহার যে আমার ভূয়সী প্রশংসা করিতেছিল, তাহা আমি বুঝিতে পারিয়াছিলাম। কেঁহ আমার আকারের প্রশংসা করিতেছিল, কেহ আমার দত্তের, কেহ নখের, কেহ লাঙ্গলের গুণগান করিতে লাগিল । এবং অনেকে আমার উপর প্রীত হইয়া, পঞ্জীর সহোদরকে যে সম্বোধন করে, আমাকে সেই প্রিয় সম্বোধন করিল। পরে তালুক ! ভক্তিভাবে মামাকে মণ্ডপ-সমেত স্কন্ধে বহন ಹೊì~as