পাতা:বঙ্গদর্শন-প্রথম খন্ড.djvu/৫১৯

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


● >b* করিতেছেন—অনুসূয়া প্রিয়ম্বদা হাসিতেছে—শকুন্তলা ক্রোধে ও লজ্জায় মুখ তুলিতেছেন না—দুষ্মন্তের দিকে চাহিতেও পারিতেছেন না—যাইতেও পারিতেছেন না । আর এক চিত্রে, রণসজ্জিত হইয়া, সিংহশাবক তুল্য প্রতাপশালী কুমার অভিমন্য উত্তরার নিকট যুদ্ধ যাত্রার জন্য বিদায় লইতেছেন—উত্তর যুদ্ধে যাইতে দিবেন না বলিয়া দ্বার রুদ্ধ করিয়া আপনি দ্বারে দাড়াইয়াছেন । অভিমনু। বিষবৃক্ষ। তাহার ভয় দেখিয় হাসিতেছেন, আর | কেমন করিয়া অবলীলংক্রমে ব্যুহভেদ করিবেন, তাহা মাটীতে তরবারির অগ্রভাগের দ্বারা অঙ্কিত ‘ করিয়া দেখাইতেছেন । উত্তর তাহা কিছুই দেখিতেছেন না। চক্ষে দুই হস্ত দিয়া কঁদিতেছেন । আর এক খানি চিত্রে সত্যভামার তুলাত্ৰত চিত্রিত হইয়াছে । বিস্তৃত প্রস্তর-নিৰ্ম্মিত প্রাঙ্গণ ; তাহার পাশে উচ্চ সৌধপরিশোভিত রাজপুরী স্বর্ণচুড়ার সহিত দীপ্তি পাইতেছে। প্রাঙ্গণমধ্যে এক অত্যুচ্চ রজতনিৰ্ম্মিত তুলা যন্ত্র স্থাপিত হইয়াছে । তাহার এক দিকে ভর করিয়া, বিদ্যুদীপ্ত নীরদ খণ্ডবৎ, নানালঙ্কার ভূষিত, প্রৌঢ় বয়স্ক দ্বারকাধি পতি শ্ৰীকৃষ্ণ বসিয়াছেন । তুলাযন্ত্রের সেই ভাগ ভূমিস্পর্শ করিতেছে ; আর এক দিকে, নানা রত্নাদি সহিত হুবর্ণ | ဒါi့၊ স্তৃপকৃত হইয় রহিয়াছে, তথাপি t i | | | (বঙ্গদর্শন, মীঃ, ১২৭৯ ) তুলাযন্ত্রের সেই ভাগ উৰ্দ্ধোথিত হইতেছে না। তুলাপাশে সত্যভামা ; সত্যভামা প্রৌঢ়বয়স্ক, সুন্দরী; উন্নতদেহ, পুষ্টকান্তি, নানাভরণ ভূষিতা, পঙ্কজলোচনা ; কিন্তু তুলাযন্ত্রের অবস্থা দেখিয় তাহার মুখ শুকাইয়াছে । তিনি অঙ্গের অলঙ্কার খুলিয়া তুলায় ফেলিতেছেন হস্তের চম্পকোপম অঙ্গুলির দ্বার কর্ণাবলম্বী রত্নভূষা খুলিতেছেন, লজ্জায় কপালে বিন্দু২ ঘৰ্ম্ম হইতেছে, দুঃখে চক্ষে জল আসিয়াছে ক্রোধে নাসারস্ক, বিম্বফারিত হইতেছে, অধর দংশন করিতেছেন। এই অবস্থায় চিত্রকর তাহাকে লিথিয়াছেন । পশ্চাতে দাড়াইয়া, স্বর্ণপ্রতিম রূপিণী রুক্মিণী দেখিতেছেন । তাহারও মুখে বিমর্ষ, তিনিও আপনার অঙ্গের অলঙ্কার খুলিয়া সত্যভামাকে দিতেছেন । কিন্তু তাহীর চক্ষু শ্ৰীকৃষ্ণুের প্রতি ; তিনি স্বামীপ্রতি অপাঙ্গে দৃষ্টিপাত করিয়া, ঈষণাত্র অধর প্রান্তে হাসি হাসিতেছেন ; কিন্তু শ্ৰীকৃষ্ণ সেই হাসিতে সপত্নীর আনন্দ সম্পূর্ণ দেখিতে পাই । তেছেন। শ্ৰীকৃষ্ণের মুখ গম্ভীর স্থির, যেন কিছুই জানেন না ; কিন্তু তিনি অপাঙ্গে রুক্মিণীর প্রতি দৃষ্টি করিতেছেন, সে কটাক্ষেও একটু হলি আছে। মধ্যে শুভ্ৰবসন, শুভ্রকান্তিদেবর্ষি নারদ ; তিনি বড় আনন্দিতের স্থায় সকল দেখিতেছেন, বাতাসে ভাষার উত্তরীয় এবং শ্মশ্র